বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই, ২০২০
আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
বউরে খুশী কত্তি বুনরে বাড়োয় মাইল্লো ভাই!
Published : Tuesday, 18 December, 2018 at 6:31 AM
নিজির সুংসারে অসুকি ভুগা বড় বুন ছিলো বুজা। তাই বড় বুনরে নিয়ে দোবেলা ঝামেলী হতো বউরে সাতে। বউ চাইতো যিরাম কইরে হোক বাড়িত্তে আপদ দূর কত্তি। কিন্তুক বিচেনে শুইয়ে রোগে শোগে দিন কাটলিও আজরাইল যেন তারে চোকি দেকতো না। কিডা জাইনতো বড় বুনির জীবনে আজরাইল হইয়ে আসপে তারই আপন মার প্যাটের ভাই। যারে বুন কোলে কাখে কইরে মানুস কইরেচে। সেই ছোট ভাই বউরে খুশী কত্তি আপন বড় বুনরে বাড়োয়েই মাইরে ফেলেচে। খবরডা শুইনে বুকির মদ্দি হু হু কইরে উটলো।
কি জামেনা আইসলো। এট্টা মানুস অসুকি মত্তি বইয়েচে, তারে সিবা যতœ কইরে সুস্ত কইরে তুলার বদলি বাড়োয়ে মাইরে ফেলা কোন মুনিষ্যির কাজ হতি পারে? দিন দিন আমরা কনে যাচ্চি! দুক্কুজনক ঘটনাডা ঘটেচে গাজীপুর জিলার কালিগঞ্জ থানার জামালপুর ইউনিয়নের কলাপাটুয়া গিরামে। ছোট ভাই আর ভাই বউর হাতে মার খাইয়ে মইরে যাওয়া অভাগা বুনডার নাম আছিয়া বেগম।
মৃত্যু আজিম উদ্দিনের মাইয়ে আছিয়া ১৫ বছর আগে শরীলির একপাশ অবশ হইয়ে পড়–টে হইয়ে যাওয়ায় বর তারে তালাক দিলো। তারপরেত্তে আছিয়া বাপের বাড়িতি থাকতেন। হতভাগা ছোট ভাই নজরুল ইসলাম ও তার বউ হোসনে আরা বেগমরে ঘের দেচে পুলিশি। কাল দুপারে নিহতের মরাদেহ উদ্দার কইরে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পোসমটেমের জন্যি পাটানো হয়েছে। এলেকার ইউনিয়ন পরিষদের মিম্বার আরমান মুল্লা চাচা কইয়েচেন, বচর ৩৫ আগে আছিয়ার বিয়ে হইলো। দীর্ঘ ১৬ বছর আছিয়া স্বামীর সংসার করিলেন। পরে শরীলির একপাশ অবশ হইয়ে পড়–টে হইয়ে গেলি বর তারে সংসারেত্তে তালাক দিয়ে খেদায় দিলো, ১৫ বছর আগে। স্বামীর সুংসারে জাগা না হওয়া আছিয়া ফিরে আইলো বাপের বাড়ি। বাপের বাড়িতি ৩ ভাই’র মদ্দি অসুস্থ বড় বুনির দায়িত্ব নেয় ছোট ভাই নজরুল। বড় বোনের দায়িত্ব নিয়ার পর নিজির সংসারে শুরু হয় অশান্তি। বোনরে কেন্দ্র কইরে কয়েকদিন পর পর বউ’র সাতে ঝুনঝাট লাগেই থাইকতো। পিরায় হোসনে আরা নিজির সুংসার ফেইলে বাপের বাড়ি হাটা দিতো। ঘটনার দুইদিন আগেও নজরুলির বউ চইলে গিলো। পরে আবার আপন ইচ্চেয় ফিরে আসে। রোববার দুপারে নজরুলের বউর রান্না করা ভাত তরকারি দুই ভাই- বোন মিলে খাচ্চিল। এই সুমায় বউ বাদায় দেয় ঝগড়া। এরপর বউরে খুশী কত্তি বুনরে কাটের ফিড়ে দিয়ে বাড়োনো শুরু করে। অবশ শরীল দোড়োয় বাচারও উপায় ছিলো না। মারির চোটে জাগায় মইরে যায় অসুস্ত বুনডা। সন্ধ্যের আগেই সব জাগায়  হত্যার বিষয়ডা জানাজানি হয়। খবর পাইয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকি নিহতের মরাদেহ উদ্দার করে। সে সুমায় পুলিশ ডাবি মাইরে থাকা ভাই নজরুল ও তার বউ হোসনে আরারে ধইরে থানায় নিয়ে যায়।
কি জামেনা আইসলো কও দিনি বাপু। আলাম কনে, মলাম যে, অবস্তাডাকি!
শব্দার্থ
কত্তি = করতে, বুন = বোন, বুজা = বোঝা, বিচেনে = বিছানায়, প্যাটের = পেটের, ফিড়ে = পিঁড়ি




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft