সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
ইরা কি মুনিষ্যি!
Published : Monday, 25 February, 2019 at 10:00 PM
রাজধানীর চকবাজারে আগুন দূর্ঘটনার পরেত্তে খুইজে পাওয়া যাচ্চেনা ফাতেমাতুজ জোহরা বিষ্টি ও তার বান্ধবী রেহনুমা দুলা নামের দুডো ভাইঝিরে। ঘটনার এতদিন পর পরিবারের লোকজন যকন তাগের খোজে হয়রান, তকন হটাস এট্টা আনকা ফোন আসিল বিস্টির বাপ জসিম উদ্দিনের কাচে। ফোনে কওয়া হইলো মাইয়ে তাগের হাওলায় আচে। এক লক্ক টাকা দিলি মাইয়েডারে ফেরট দিয়া হবে। পোস্ট অপিসির মুবাল ব্যাংকিং ‘নগদ’ এর মাদ্যমে ৫০ হাজার টাকা ঐ নম্বরে পাটানোর পরেত্তে ওই মুবাল নম্বরডা বন্ধ কইরে দেচে। এই ঘটনায় লালবাগ থানায় এট্টা সাধারণ ডায়রি কইরেচেন বিস্টির বাপ জসিম উদ্দিন।
তদন্ত কম্মকত্তা জানায়েচেন, কম্পুটারের মাদ্যমে এই ফোন কলডা বিস্টির বাপের কাচে করা হইলো। ইডা এট্টা ডিজিটাল পোতারনা। পোতারকগের শিনাক্ত করার কাজ চলতেচে। নিখোজ দুই মাইয়ের পরিবারের লোকজন জানায়েচে, গ্যালো ২০ ফেব্রুয়ারি শিল্পকলা একাডেমিতি কবিতা আবৃতির অনুষ্ঠানেত্তে ফিত্তিলো বিস্টি আর দুলা। পরিবারের লোকের সাতে বিস্টির সবশেষ কতা হয় রাত ১০টা ০৪ মিনিটি। চকবাজারে আগুন লাগে ১০টা ৩৮ মিনিটি। এর পরেত্তে বিস্টি আর দুলা নিখোজ। তাগের মুবাল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়। ফোন বন্ধ পাইয়ে ঢাকা মেট্টোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশির সাহায্য নিয়ে নিখোজ দুইজনের মুবাল ফোন টুকায়ে জানা গেচে, আগুন লাগার সুমায় তারা ঘটনাস্থলের আশপাশেই ছিল। এ তথ্য জানার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে খোজ করেও তাগের সুন্ধান পাওয়া যায়নি। পদ্দিন ২১ ফেব্রুয়ারি বিস্টির বাপ জসিম উদ্দিনের মুবালি বিস্টির নম্বরেত্তে এট্টা কল কইরে কওয়া হয় মাইয়ে তাগের হিপাজতে। মাইয়ে ফেরট নিতি হলি ১ লক্ক টাকা লাগবে। হাজার হোক বাপ। এই কতা শুইনে কইলো আমি এট্টু আমার মাইয়েডার সাতে কতা কতি চাই। তকন ও পাশতে কইলো কতা কতি হলি আগে ৫০ হাজার টাকা ০১৬৩৯২৩৮১৯৩ লম্বর ‘নগদ’ ওয়ালেট এ পাটাতি হবে। হুড়োতাড়া কইরে জসিম উদ্দিন ৫০ হাজার টাকা পাটায় দেন। এরপরেত্তে সেই লম্বরডা বন্ধ। অভিযোগডা তদন্ত কচ্চেন লালবাগ থানার এস আই মামুন চাচা। তিনি কইয়েচেন থাড পাটি সফটার ব্যবহার কইরে কলডা করা হইলো। কারও লম্বরেত্তে এই কলডা যায়নি। সিডিআর কল ডিটেলস রিকাড চেক কইরে ইরাম কোন তত্য পাওয়া যায়নি। ঘটনার দিন রাত ১০টা ৩১ মিনিটির পরেত্তে বিস্টির মুবাল বন্ধ। এরপরেত্তে তার লম্বরেত্তে কোনটোয় আর কল যায়নি। লম্বর বানায়ে মুবাল কল করা ডিজিটাল পোতারনা। পোতারকগের শিনাক্ত করার বিষয়ে এস আই মামুন চাচা জানায়েচেন এই সব পোতারকগের সহজে চিহ্নিত করা যায় না। এগুলো বের কত্তি যথেষ্ট সুমায় লাগে। তেবে তাগের খুইজে বাইরো করা যায়। এট্টু সুমায় লাগবে এই যা। আমরা কাজ শুরু করিচি।
কি জামেনা পইড়লো কও দিনি বাপু ! মাইয়ে দুডোরে না পাইয়ে দুডো পরিবার পাগল হওয়ার জুগাড়। বাইচে আচে না মইরে গেচে সিডাও অনিচ্চিত। ইরাম দুঃসুমায়তিও অসহায় পরিবারের সাতে পোতারনা কইরে টাকা টাইনে নেলে ইরা কি মুনিষ্যি? মানুস কনে লাইবে গেচে ভাবদিও কস্ট হচ্চে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft