রবিবার, ০৫ এপ্রিল, ২০২০
স্বাস্থ্যকথা
জেনে নিন চোখে কম দেখার কারণ ও তার প্রতিকার
কাগজ ডেস্ক :
Published : Friday, 29 March, 2019 at 6:50 AM
জেনে নিন চোখে কম দেখার কারণ ও তার প্রতিকারআমাদের শরীরের সবচেয়ে মূল্যবান অংশটিই হচ্ছে চোখ। এজন্য চোখের যত্ন নেয়া উচিৎ নিয়মিত। দৃষ্টিশক্তি ছাড়া আমরা ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ি। বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হতে শুরু করে এই বিষয়টিতে কোন দ্বিমত নেই এবং তখন রিডিং গ্লাসের প্রয়োজন হয়।
অক্ষিগোলকের ব্যাসার্ধ বেড়ে গেলে বা চোখের লেন্সের ফোকাস করার মতা কমে গেলে আমরা কাছের জিনিস দেখতে পাই। কিন্তু দূরের জিনিস দেখতে পারি না।
চোখের এ ধরনের সমস্যার নাম মায়োপিয়া। সমস্যাটি গুরুতর হলে আক্রান্ত ব্যক্তি শুধু খুব কাছের জিনিসই দেখতে পায়। এটি হঠাৎ করেই বা খুব ধীরে ধীরে বিকশিত হতে পারে। শিশু-কিশোরদের এ সমস্যা বেশি হয়। বংশগত কারণে এমন হতে পারে। চশমা এবং কন্ট্যাক্ট লেন্স ব্যবহারে এ অবস্থার উন্নতি করা যায়। অপারেশনের মাধ্যমেও এ সমস্যার সমাধান করা যায়।
এমন হওয়ার কারণ :
অক্ষিগোলক খুব বড় হলে বা ব্যাসার্ধ বেড়ে গেলে লেন্সের ফোকাস মতা কমে গিয়ে সৃষ্টি হয় ক্ষীণ দৃষ্টির। এ ক্ষেত্রে আলোকরশ্মি কর্ণিয়ার সামনের একটি নির্দিষ্ট বিন্দুতে আপতিত হয়। কিন্তু স্বাভাবিক অবস্থায় আলোকরশ্মি সরাসরি রেটিনার ওপর আপতিত হয়। এ ছাড়াও কর্ণিয়া বা লেন্স বেঁকে গেলে এ সমস্যার সৃষ্টি হয়। আরও যেসব কারণে দৃষ্টি ক্ষীণ হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায় তা হলো-
বাবা-মায়ের এ সমস্যা থাকলে সন্তানেরও হতে পারে। বেশি সময় ধরে বই পড়লে বা এমন কাজ করলে, যেখানে কোনো কাছের বস্তুর দিকে একনাগাড়ে অনেকণ তাকিয়ে থাকতে হয়।
লক্ষণ:
এ রোগে আক্রান্তদের মধ্যে যেসব লক্ষণ দেখা যায় তা হলো- চোখে কম দেখা; ঘোলাটে দৃষ্টি; চোখে ব্যথা হওয়া; চোখের লালভাব; চোখের অভ্যন্তরে কোনো কিছুর অস্তিত্ব অনুভব; চোখে চুলকানি; চোখ দিয়ে পানি পড়া; চোখের অস্বাভাবিক নড়াচড়া; অন্ধত্ব বা চোখে না দেখা; চোখের বিচ্যুতি; চোখের পাতার অস্বাভাবিক নড়াচড়া ইত্যাদি।
পরামর্শ:
যদিও ক্ষীণ দৃষ্টি প্রতিরোধ করা যায় না, তবে চোখ ও দৃষ্টিশক্তি রা করা যায়।
বিভিন্ন শারীরিক ব্যাধি, যেমন- ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ ইত্যাদি দৃষ্টিশক্তির ওপর প্রভাব বিস্তার করে। তাই এ ব্যাধিগুলোর সঠিক চিকিৎসা করাতে হবে।
এক চোখের দৃষ্টি হঠাৎ কমে যাওয়া, অস্পষ্ট বা ঝাপসা দৃষ্টি, চোখের সামনে লাল-নীল আলো দেখতে পাওয়া এসব লণ দেখা গেলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। কারণ বিভিন্ন ক্রনিক ডিজিজ, যেমন- রেটিনাল টিয়ার বা রেটিনাল ডিটাচমেন্ট, চোখের ছানি বা স্ট্রোকের কারণে এসব লণ দেখা দিতে পারে। আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি থেকে চোখ রা করার জন্য সানগ্লাস ব্যবহার করতে হবে। খেতে হবে স্বাস্থ্যকর খাবার। পরিহার করতে হবে ধূমপান। কম আলোয় পড়াশোনার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft