মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট, ২০২০
ওপার বাংলা
দিদি ভয় পায় না : মোদির উদ্দেশে মমতা
কাগজ ডেস্ক :
Published : Monday, 8 April, 2019 at 8:34 PM
দিদি ভয় পায় না : মোদির উদ্দেশে মমতাভারতের পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশে বলেছেন, দিদি ভয় পাওয়ার লোক?‌ আপনারা তো জীবনে একটা ছড়ির বাড়িও খাননি। আর দিদিকে পা থেকে মাথা পর্যন্ত মেরেছে। দিদি গুলির সামনে দাঁড়িয়ে লড়াই করেছে। আপনাদের মতো ডাকাতদের ভয় পায় না দিদি।
রোববার (৭ এপ্রিল) সকালে কোচবিহারে বিজেপির নির্বাচনী সভা থেকে মমতাকে কটাক্ষ করে নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, নির্বাচন কমিশনকে দিদি ভয় পেয়েছেন! তার এ মন্তব্যের কয়েকঘণ্টার মধ্যে তৃণমূলের নির্বাচনী সভায় মমতা মোদির উদ্দেশে এসব কথা বলেন।
পাশাপাশিই তিনি জানান, বেনারসের গঙ্গা পরিষ্কার করতে পারেননি। বেনারসেও আপনি জিতবেন না। আপনি হারাতঙ্ক‌ রোগে ভুগছেন। ‌
এদিন সারদা–‌‌নারদা প্রশ্নে মোদি মমতাকে নিশানা করেছিলেন। মমতা আবার উল্টে সেই প্রসঙ্গে মোদির কঠোর সমালোচনা করেছেন। তার বক্তব্য, সারদা-নারদা কাণ্ডের মূল অভিযুক্তই প্রধানমন্ত্রীর মঞ্চ থেকে সভা পরিচালনা করেছেন। তার প্রশ্ন, হাওয়ালাতেও অভিযুক্ত ওই নেতাকে মঞ্চে রেখে কীভাবে প্রধানমন্ত্রী তৃণমূলকে সারদা–‌নারদা কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে দেন।
এদিন মুখ্যমন্ত্রী ‌জলপাইগুড়ির কাছে ময়নাগুড়ির চূড়াভাণ্ডার ও ফালাকাটায় নির্বাচনী সভা করেন। প্রতিকূল আবহাওয়া থাকায় নির্ধারিত সময়ের কিছুটা আগেই সভাস্থলে পৌঁছান মুখ্যমন্ত্রী।
চূড়াভাণ্ডারের সভা থেকে মোদির আক্রমণ সুদে-আসলে ফিরিয়ে দিয়ে মমতা বলেন, ২০১৪ সালে একই কথা বলেছেন। ২০১৬ সালে একই কথা বলেছেন। ২০১৯ সালেও বলছেন। আপনার নেতা সারদা-নারদার নেতা। তৃণমূল নয়। তৃণমূল না খেতে পারে। কিন্তু টাকা নিয়ে ধোঁকা দেয় না। আপনাদের মতো চোর-জোচ্চোর পার্টি তৃণমূল কংগ্রেস নয়। ওই নেতার নামে হাওলাতেও কোর্টে কেস হয়েছে।
ভাষণের শুরুতেই মোদিকে কটাক্ষ করে মমতা বলেন,‌ তারা নির্বাচনের আগে বসন্তের কোকিলের মতো কুহু-কুহু করে ডাকতে আসে। নির্বাচন মিটে গেলে আর আসে না।
দার্জিলিংয়ের সঙ্গে তরাই-ডুয়ার্সের দাঙ্গা লাগানোয় বিজেপিকে অভিযুক্ত করে মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেন, যারা দাঙ্গা লাগিয়েছিল, তারাই এখন বিজেপির প্রার্থী!
রাজ্যের নাম ‘‌বাংলা’‌ করা থেকে আটকে দেওয়ার জন্যও বিজেপিকে কাঠগড়ায় তুলে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, দু’‌বার বিধানসভায় পাশ করেছি। যা জানতে চেয়েছিল জানিয়ে দিয়েছি। তাও নামটা করতে দেয়নি।
নির্বাচনে বিজেপি কোটি কোটি টাকা নিয়ে রাস্তায় নেমেছে বলেও তোপ দেগে মমতার বক্তব্য, মিছিলে গেলে ১০০০ আর মিটিংয়ে গেলে ৫০০০ টাকা দিচ্ছে বিজেপি। ওই টাকা জনগণের টাকা। এতবড় কেলেঙ্কারির নির্বাচন আগে কখনও হয়নি। কী ভাবেন?‌ ইনকাম ট্যাক্স, সিবিআই, ইডিকে দিয়ে রেড করালে সবাই ভয় পেয়ে যাবে? আপনি যখন থাকবেন না, তখন সবাই আপনাকে ছুঁড়ে ফেলে দেবে। কয়টা সিবিআই তখন আপনার বিরুদ্ধে হয় দেখব।
রাজ্যের পুলিশকর্তাদের সরানো নিয়ে এদিন ফের সরব হন মুখ্যমন্ত্রী। তার কথায়, দু’‌জন পুলিশ অফিসার সরিয়ে ভাবছেন নির্বাচনে জিতবেন?‌ সেগুড়ে বালি। সব অফিসারই আমাদের অফিসার। অত সস্তা নয়। এ রাজনীতি করে কারা, যারা ভয় পায় তারা।
মোদির ‘বিদায়ঘণ্টা’ বেজে গেছে জানিয়ে ভিড়ে ঠাসা সভা থেকে বিজয়চন্দ্র বর্মনকে জেতানোর আর্জি জানিয়ে মমতা জানান, জলপাইগুড়িতে বিশ্ববাংলা ক্রীড়াঙ্গন, গাজলডোবায় ভোরের আলো, জয়ী সেতু, সার্কিট বেঞ্চ, ভুটান-বাংলাদেশ রাস্তা করেছে রাজ্য সরকার। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft