শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৯
আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
কারে কি কবো কও দিনি বাপু!
Published : Tuesday, 30 April, 2019 at 6:08 AM
কাউরে কিচু না জানায়ে গ্যালো বিসসুদবার বিকেলে টানা ২ ঘণ্টা নড়াল আধুনিক সদর হাসপাতালে সফর করিলেন নড়াল- ২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি চাচা। হটাস যাইয়ে দেকেন রুগী হাসপাতলের মাজেয় গোড়োগোড়ি খাচ্চে, কিন্তুক ডাক্তার তলাশ কইরে পাওয়া যাচ্চে না। হাজরে খাতা নিয়ে দেকেন অপারেশন করা বড় ডাক্তার সেদিনতো আসিইনি, এর আগে আরো দুই তিন দিন আসেন নি। তার তলাশ কত্তি চালি পিয়ন চাপরাশি গোছের কেউ জানালো ডাক্তার সাহেব ছুটিতি আচেন। ছুটির কোন দরখাস্ত করে গেচেন কিনা কিম্বা কল্লি সে কাগজ দেকতি চালি আর কারো মুকি রা নেই। এ সুমায় মাশরাফি চাচা রুগী সাইজে ডাক্তার সাহেবরে মুবাল কল্লি সাফ কতা কইয়ে দেন, আজ আসতি পারবো না, পাল্লি আপনি রোববার এক পাক আসেন। তকন তিনি জানতি চালেন যদি কোন জরুলী অপারেশনের রুগী আসে তালি তার কি হবে। ও পাশে ডাক্তার সাহেব আর উত্তর বাত্তার দেন না। তকন মাশরাফি চাচা নিজির পরিচয় দিয়ে তাড়াতাড়ি কাজে আসার জন্যি তাগেদা দেন। এরপর তিনি ওয়াডে ওয়াডে যাইয়ে রুগীগের সাতে কতা বাত্তার কইয়ে তাগের খোজ খবর নেন। ও সুমায় পুরো হাসপাতালে মাত্তর ১জন ডাক্তার আর ২ জন নার্স ছাড়া কারো তলাশ কইরে পাওয়া যায় নি। দায়িত্বে থাকাগের মুবাল কল্লি কারো মুবাল ছিল বন্দ, কারো রিং বাইজে বাইজে পাইজে গেচে। কিন্তু কলডা রিসিভ হয়নি। রুগীগের আব্দারে হাসপাতালের পিচ্চাপ পায়খানা ঘর তার পরিবেশ দেকতি নিয়ে গেলি গন্দের চোটে মাশরাফী চাচা স্যানে ঢুকতি পারেননি। তফাত্তে মুবালি ছবি তুইলে নিয়ে গেচেন।
তার এ সব কম্মকান্ড বেশ কয়দিন ধইরে আলাপ আলোচনা হচ্চে।  বেশীর ভাগ লোকজনই এমপি সাহেবের ইরাম কাজে খুব খুশী। তেবে কিচু কিচু ডাক্তার সাহেবরা খুব খাররা হয়েছেন। ফেসবুকি দেকলাম দুই ডাক্তার কওয়াবুলা কইরেচে, মাশরাফীডা আবার কিডা? তার কতা শুইনে মনে হলো তিনি মঙ্গল গ্রহেত্তে কেবল মাত্তর ডাউনলোড হইয়েচেন। আবার শুনলাম, নওগা এলেকার এক বিটি ডাক্তার যিনি এক বড় নিতার মাইয়ে তিনি মাশরাফী চাচারে গালাগাল কইরে ফেসবুকি লিকা ছাইড়েচে। তার সাতে আবার দেকলাম ডাক্তার আব্দুর নূর তুষার চাচা মাশরাফী চাচারে ১১ডা কোচ্চেন কইরেচেন। তুষার চাচারে ডাক্তার না কইয়ে উপস্থাপক কলিই বেশী চিনতি সুবিদে হয়। যিনি ডাক্তার হিসেবে সরকারি চাকরি নিয়ে দায়িত্ব পালন না কইরে টিভিতি বিনোদুন অনুষ্টান উপস্তাপনা কইরে বেড়াতেন। তেবে তিনি ডিউটি না কল্লি মাস গেলি সই কইরে সরকারি বেতনডা তুলতি ভুল কত্তেন না। তিনি মাশরাফী চাচার কাচে জানতি চাইয়েচেন, ক্রিকেট খেলার মাটে ১১ জনের বদলি ৪ জন লাবলি তিনি খেলবেন কিনা। তালি  য্যানে ২৭ জন ডাক্তার দরকার স্যানে কেন ৭ জন ডাক্তার সিডা সংসদে যাইয়ে জানতি চান। য্যানে ৬০০ রুগী ধরে স্যানে ১৮০০ রুগী ভত্তি হলি কেন ৬ গুন বেশী নার্স নিয়োগ দিয়া হয় না। হাসপাতালের স্টোরে যাইয়ে না শুইনে স্বাস্ত্যমুন্ত্রীর কাচে শোনেন স্টোর ওষুদ পাতি রাকার উপযুক্ত কিনা। আপনি জাতীয় দলের খেলার জন্যি বেতন পান, তালি খেলায় জিতলি উপহার হিসেবে দেড়ি টাকা বাড়ি গাড়ি দিয়া হয়, ভালো অপরাশেন কইরে রুগী বাচালি ডাক্তারগের কেন উপহার দিয়া হয় নি সংসদে যাইয়ে শোনেন।  
শেষে কইয়েচেন আল্লা আপনার আরো বড় করুক যাতে সংসদে যাইয়ে আমার কতার উত্তর আনতি পারেন। এরপর কি লিকা উচিত সিডা আপনাগের ওপর ছাইড়ে দিলাম।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft