বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
আ’লীগ নেতার দাপট
কেশবপুরের ভালুকঘরে ৫০ পরিবারের যাতায়াতের রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণ
কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি :
Published : Friday, 3 May, 2019 at 6:46 AM
কেশবপুরের ভালুকঘরে ৫০ পরিবারের যাতায়াতের রাস্তা দখল করে ঘর নির্মাণকেশবপুরের ভালুকঘর গ্রামের এক আওয়ামী লীগ নেতার ছত্রছায়ায় প্রায় ৫০ পরিবারের চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগীরা ভালুকঘর পুলিশ ক্যাম্পে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার ভালুকঘর বাজারের উত্তর পাশে লুৎফর রহমানের স্ত্রী জোহরা বেগমের জমির উপর দিয়ে প্রায় ৪০ বছর ধরে আশ পাশের ৫০/৬০ পরিবার যাতায়াত করে আসছে। যাতায়াতের একমাত্র ওই রাস্তা দিয়েই প্রায় তিন শতাধিক মানুষ ভালুকঘর বাজার ও কেশবপুরসহ বিভিন্ন স্থানে চলাচল করে। বিভিন্ন স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাও ওই রাস্তা দিয়ে চলাচল করে। শনিবার বিকেলে ভালুকঘর গ্রামের আজিজুর রহমান এলাকার কিছু প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতাদের ম্যানেজ করে যাতায়াতের ওই রাস্তাটি দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ করেন। যার ফলে বর্তমানে প্রায় তিনশত লোকের যাতায়াতের পথ বন্ধ হয়ে পড়েছে। স্কুল মাদ্রাসায় পড়–য়া শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া ব্যাহত হচ্ছে। ওই সড়কে চলাচলকারী হামেদ আলী (৭০) বলেন, প্রায় ৫০ বছর ধরে এই রাস্তা দিয়ে আমি সহ প্রায় ৪০/৫০ পরিবারের লোকজন যাতায়াত করে আসছি। কোন কারণ ছাড়াই আজিজুর রহমান এলাকার কিছু প্রভাবশালী আওয়ামী লীগের নেতাদের ম্যানেজ করে এবং বাইরে থেকে একদল লোক ভাড়া করে চলাচলের রাস্তাটি বন্ধ করে দোকান ঘর নির্মাণ করেছে। যার কারনে আমরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছিনা। ওই সড়কে চলাচলকারী সালমা খাতুন, মুজিবুর রহমান, আব্দুল মুকিত ও ইলাহি বক্সসহ আরো অনেকে একই অভিযোগ করেন। ভালুকঘর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিরা খাতুন জানায়, রাস্তা বন্ধ করে দেয়ায় সে স্কুলে যেতে পারছে না। তার মত আরো প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থীরা বর্তমানে স্কুলে যেতে না পারায় তাদের লেখাপড়া ব্যাহত হচ্ছে।
এ বিষয়ে ভুক্তভোগী লুৎফুর রহমান বলেন, প্রায় ১৩ বছর পূর্বে মেহেরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আজিজুর রহমান আমার কাছ থেকে চলাচলের ওই সড়কের বিপরীত পাশে রাস্তা ছাড়াই ৮ শতক জমি ক্রয় করে। সেই থেকে ওই জমি সে ভোগদখল করে আসছে। সম্প্রতি সে আমাদেরকে কিছু না বলেই আমার স্ত্রী জোহরা বেগমের জমির উপর দিয়ে চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি দখল করে জোরপূর্বকভাবে দোকান ঘর নির্মাণ করে। স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতা আনোয়ার দফাদারের ছত্রছায়ায় থেকে আজিজুর রহমান এসব কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। শনিবার রাতেই এবিষয়ে ভালুকঘর পুলিশ ক্যাম্পে লিখিত অভিযোগ করি। এ ঘটনার পর থেকে আজিজুর রহমান বিভিন্ন ভাবে আমাকে ও আমার পরিবারের সদস্যদেরকে হুমকি প্রদানসহ মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার চক্রান্ত করছে। পরিবার নিয়ে বর্তমানে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।
একাধিক এলাকাবাসীরা জানান, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি পরিচয়দানকারী আনোয়ার দফাদারের অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে তিনি এলাকার বিভিন্ন মানুষের জমি দখলসহ বিভিন্নভাবে হয়রানি করে আসছে। তার বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না । কয়েক বছর পূর্বে পারিবারিক জমি নিয়ে আফসার সরদার ও আব্দুল খালেকের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এঘটনায় আনোয়ার দফাদার আব্দুল খালেকের পক্ষ নিয়ে আফসার সরদারকে বিভিন্নভাবে হুমকি ও হয়রানি করেছে। এছাড়াও তিনি এলাকার যে কোন বিরোধ সৃষ্টি হলে একপক্ষের কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে অপরপক্ষকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করে থাকেন। শনিবার বিকেলে তিনি আজিজুর রহমানের কাছ থেকে বড় অংকের উৎকোচ গ্রহন করে লুৎফর রহমান গংদের চলাচলের রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়ে দোকান ঘর নির্মান করতে সহযোগিতা করেছেন। খোজ নিয়ে জানা গেছে, সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের ভালুকঘর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের প্রায় ১০ বছর পূর্বে আনোয়ার দফাদার সভাপতি ছিলেন। সাতবাড়িয়া ও ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন ভাগ হবার পরে আর কোন কমিটি গঠিন হয়নি। কিন্তু আনোয়ার দফাদার নিজেকে সভাপতি পরিচয় দিয়ে এলাকার প্রভাব বিস্তার করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন বলেন, বর্তমানে ভালুকঘর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কোন কমিটি নেই। আনোয়ার দফাদার পূর্বের কমিটির ওই ওয়ার্ডের সভাপতি ছিলেন। ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন ভাগ হবার সময় সব কমিটি ভেঙ্গে দেয়া হয়। পরবর্তীতে আর কোন ওয়ার্ডের কমিটি গঠিত হয়নি। আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে যদি কেউ সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।  
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার দফাদার বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে সবই মিথ্যা এবং ষড়যন্ত্রমূলক। একটি পক্ষ নিজেদের স্বার্থ উদ্ধার করতে না পেরে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছে। চলাচলের রাস্তা দখলের বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা।
এবিষয়ে শিক্ষক আজিজুর রহমান বলেন, চলাচলের রাস্তা দখল করার ঘটনা সত্য নয়। ওখানে কোন রাস্তা ছিলোনা। ওই জমিটা  লুৎফর রহমানের কাছ থেকে আমি ক্রয় করেছি। যেটা দলিলে ও স্পষ্ট উল্লেখ করা রয়েছে। জমি দিতে তালবাহানা করার এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আমি আমিন নিয়ে জমি মেপে আমার ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে দোকান ঘর নির্মাণ করেছি।
এ ব্যাপারে ভালুকঘর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক নাসির উদ্দীন গ্রামের কাগজকে বলেন, ওখানে চলাচলের একটি রাস্তা ছিলো। আজিজুর রহমার কাউকে কিছু না বলে চলাচলের রাস্তা দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ করেছেন। এবিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft