সোমবার, ২০ মে, ২০১৯
অর্থকড়ি
যশোর সার্কেলে পুড়েছে ৩টি ট্রান্সফরমার
ঘূর্ণিঝড় ফণীতে বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি
জাহিদ আহমেদ লিটন :
Published : Thursday, 16 May, 2019 at 6:42 AM

ঘূর্ণিঝড় ফণীতে বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি ঘূর্ণিঝড় ফণী যশোরে ফণা না তুললেও বিদ্যুৎ বিভাগের বিপুল পরিমান ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থায় চার জেলায় এ ক্ষতির পরিমান প্রায় ১৫ লাখ টাকা।
ওজোপাডিকো যশোর সার্কেলের কর্মকর্তাদের তাৎক্ষনিক পদক্ষেপে এ সমস্যা আঁচ করতে পারেননি এ অঞ্চলের বিদ্যুৎ গ্রাহকরা।
গত ৩ মে রাতে যশোরাঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যায় ঘূর্ণিঝড় ফণী। এরআগে ভয়াবহ এ ঘূর্ণিঝড়টি ভারতের উড়িষ্যা উপকূলের পুরীতে আঘাত হানে। যশোরাঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া এ ঝড়ে বড় ধরণের কোন ক্ষয়ক্ষতি না হলেও বোরো ধান ও বিদ্যুতের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। ওজোপাডিকো যশোর সার্কেল সূত্রে জানা যায়, ফণীতে বিদ্যুৎ বিভাগের এ সার্কেলের চার জেলায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জেলাগুলো হলো, যশোর, সাতক্ষীরা, মাগুরা ও নড়াইল। আর এ ক্ষয়ক্ষতির পরিমান ১৪ লাখ ২৫ হাজার ৫৩০ টাকা। ক্ষতির মধ্যে রয়েছে বৈদ্যুতিক খুঁটি, ট্রান্সফরমার ও তারসহ বিভিন্ন প্রকার বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম। আর বিদ্যুৎ বিভাগের বড় ক্ষয়ক্ষতির মধ্যে রয়েছে ৩টি ট্রান্সফরমার। যার মূল্য ১২ লক্ষাধিক টাকা। গত ৩ মে ঘূর্ণিঝড়ের রাতে যশোর শহরের দড়াটানায়, শহরতলীর রাজারহাটে ও নড়াইলে এ ৩টি ট্রান্সফরমার পুড়ে যায়। এসময় গোটা শহর প্রায় তিন ঘন্টা বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। ওজোপাডিকো যশোর সার্কেলের কর্মকর্তাদের তাৎক্ষনিক পদক্ষেপে এ সমস্যার নিরসন হয়। কর্মকর্তারা দ্রুত পুড়ে যাওয়া ট্রান্সফরমার বদলে নতুন ট্রান্সফরমার স্থাপন করায় গ্রাহকরা বড় ধরণের এ সমস্যার কোন আঁচ করতে পারেননি। এছাড়া, সাতক্ষীরার শ্যামনগরে ঝড়ে বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে ও তার ছিড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। একই ক্ষতি যশোর, নড়াইল ও মাগুরার বিভিন্ন উপজেলা এলাকায় হয়েছে বলে ওজোপাডিকো অফিস সূত্রে জানা যায়। ক্ষতিগ্রস্থ এসব এলাকায় বিদ্যুৎ কর্মীরা সাথে সাথেই গিয়ে ভেঙ্গে পড়া খুঁটি পুনঃস্থাপন ও তার মেরামত করেছেন। পরদিন সকালের মধ্যেই তিন জেলার বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করে পুনরায় লাইন চালু করা হয়। এ কারণে ওজোপাডিকোর গ্রাহকরা কোন সমস্যায় পড়েননি।
ওজোপাডিকো সূত্রে জানা গেছে, ফণির আঘাতে ওজোপাডিকো’র ৬টি জোনের ২১ জেলার মধ্যে ১৮টি জেলার ৩২টি উপজেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এসব এলাকায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থায় ক্ষতির পরিমাণ ছিল এক কোটি ১৯ লাখ ৫৫ হাজার ৮১৮ টাকা। এর মধ্যে খুলনা সার্কেলে ৩৫ লাখ ৬৬ হাজার ২৮৮, যশোর সার্কেলে ১৪ লাখ ২৫ হাজার ৫৩০, কুষ্টিয়া সার্কেলে চার লাখ পাঁচ হাজার, ফরিদপুর সার্কেলে ২১ লাখ ৮৪ হাজার।
এ ব্যাপারে কথা হয় ওজোপাডিকো যশোর সার্কেলের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী নাসির উদ্দীনের সাথে। তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণী মোকাবেলায় অন্যান্য দপ্তরের মতো বিদ্যুৎ বিভাগও আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল। তাৎক্ষনিক সমস্যা মোকাবেলায় তাদের চার জেলায় জরুরি টিম প্রস্তুত ছিল। ওই রাতে এ সমস্যা সমাধানে এ টিমের সদস্যরা কাজ করেছেন। এছাড়া তাদের সার্বিক প্রস্তুতির তুলনায় ফণীর আঘাত ছিল কম। ফলে সহজেই তারা সকল সমস্যা মোকাবেলা করতে পেরেছেন।
এ ব্যাপারে ওজোপাডিকো যশোর সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী শহিদুল আলম বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণী মোকাবেলায় তাদের ব্যাপক প্রস্তুতি ছিল। দুর্যোগকালে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা সার্বক্ষনিক মনিটরিং ও তদারকি করা হয়। যেখানে সমস্যা, সেখানেই তাৎক্ষণিক কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। আমরা ফণীর আঘাতের তথ্য পাওয়ার পরই ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে প্রস্তুতিমূলক কাজ শুরু করি। যার সফলতা আমরা পেয়েছি।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft