শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০
সারাদেশ
মহাসড়কের আন্ডার পাসে টাঙ্গাইলবাসীর স্বস্তি
শামছউদ্দিন সায়েম, টাঙ্গাইল জেলা প্রতিনিধি :
Published : Tuesday, 28 May, 2019 at 8:48 PM
মহাসড়কের আন্ডার পাসে টাঙ্গাইলবাসীর স্বস্তিটাঙ্গাইল শহরের পূর্ব পাশে ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু মহাসড়ক। শহর থেকে রেলস্টেশন যেতে গেলে এ সড়ক পার হতে হয় ।আগে এই বাইপাস অতিক্রম করতে দুই প্রান্তে সিএনজি চালকসহ বিভিন্ন যানবাহন দাঁড়িয়ে থাকতো।বাই পাসের গাড়ির চাপ কম হলে এরপর সড়ক অতিক্রম করতে হতো। এখন আর সে ঝামেলা নেই।শহর থেকে রেলস্টেশন ও শহরের পূর্বাঞ্চলের এলাকায় যাওয়া যানবাহন নির্র্র্র্র্র্বিঘ্নে পার হয়ে যাচ্ছে আন্ডার পাস দিয়ে। এর নাম ঘারিন্দা আন্ডার পাস। আর এ দৃশ্য আজকের।
গত শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই মহাসড়কের যে দুইটি উড়াল সড়ক এবং চারটি আন্ডারপাস উদ্বোধন করেন তার একটি হচ্ছে টাঙ্গাইল শহর বাইপাসের এই ঘারিন্দা আন্ডারপাস।
টাঙ্গাইল শহর বাইপাস সড়কে এই আন্ডারপাস স্বস্তি এনেছে হাজারো পথচারী।এ সড়ক পার হতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হতে হতো। দূর্ঘটনায় প্রাণ গেছে অনেকের।অনেকেই হয়েছে পঙ্গু। এলাকাবাসী আশা করছেন,এখন দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাবেন তাঁরা।
টাঙ্গাইল থেকে কালিহাতীর ছাতিহাটি রুটে চলাচলকারী সিএনজিচালিত অটোরিক্সার চালক আকবর হোসেন বলেন,আগে বাইপাস পার হতে ভয়ে বুক কাঁপতো। এখন আর সে ঝামেলা নেই। নির্বিঘেœ চলে যেতে পারি।
এতদিন নির্মাণাধীন আন্ডার পাসের দুপাশ দিয়ে চলত মহাসড়কের বড় যানবাহন। ফলে ঘটতো দূর্ঘটনা। এখন সব বড় যান-বাহন চলছে আন্ডার পাসের ওপর দিয়ে।
ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইল শহর বাইপাস চালু করা হয় ২০০১সালে।
এ বাইপাস সড়কের পশ্চিম থেকেই টাঙ্গাইল পৌর এলাকা শুরু। আর পূর্ব পাশে পড়েছে টাঙ্গাইল রেলওয়ে স্টেশন। টাঙ্গাইল শহর থেকে ট্রেনে যাতায়াত করতে ঝুঁকিপূর্ণ এই বাইপাস পার হতে হতো। এ ছাড়া সদর উপজেলার ঘারিন্দা,কালিহাতী উপজেলার পাইকরা,বল্লা,কোকডহরা ও সহদেবপুর এবং বাসাইল উপজেলার ফুলকি ইউনিয়নের হাজারো মানুষকে প্রতিদিন টাঙ্গাইল শহরে যাতায়াত করতে এ বাইপাস অতিক্রম করতে হতো। বাইপাস দিয়ে ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গগামী দ্রুতগতির গাড়ি চলাচল করে। এটি অতিক্রম করতে গিয়ে প্রায়ই দূর্ঘটনা ঘটতো।
স্থানীয় লোকজন জানান,বাইপাস চালু হওয়ার পর এই রাস্তা অতিক্রম করতে গিয়ে ঘারিন্দা মোড়ে প্রাণ হারিয়েছে অন্তত ২০জন। পঙ্গু হয়েছে আরও অনেকে।তাই এলাকার মানুষের দাবি ছিল এখানে আন্ডারপাস নির্মাণের।
তাই মানুষের দাবির মুখে জয়দেবপুর-এলেঙ্গা চার লেন প্রকল্পের আওতায় এখানে আন্ডারপাস নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়।
আন্ডারপাস পার হয়ে স্টেশন এলাকায় গিয়ে কথা হয় ট্রেন যাত্রী হামিদুর রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন,আগে বাইপাস পার হতে অনেক সময় লাগতো।সেজন্য নির্ধারিত সময়ে স্টেশনে পৌঁছাতে না পাড়ায় ট্রেন চলে যতে। এখন আর সে দুর্ভোগ পোহাতে হবে না।
সদর উপজেলার ঘারিন্দা ইউনিয়নের সুরুজ গ্রামের হযরত আলী জানান,এই আন্ডারপাস টাঙ্গাইল শহরের সঙ্গে অন্তত ছয়টি ইউনিয়নের সড়ক যোগাযোগ নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করেছে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft