সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০১৯
আন্তর্জাতিক সংবাদ
চীনকে হাতে রাখতেই জয়শঙ্করকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী করলেন মোদি
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
Published : Saturday, 1 June, 2019 at 8:20 PM
চীনকে হাতে রাখতেই জয়শঙ্করকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী করলেন মোদিভারতের নতুন মন্ত্রিসভার সবচেয়ে বড় চমক হচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা, ভারতের চির শত্রু চীনকে হাতে রাখতেই সাবেক পররাষ্ট্র সচিবকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিয়েছেন মোদিও অমিত শাহ। কেননা সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন ঘটনায় বেইজিংয়ের সঙ্গে নয়াদিল্লির সম্পর্ক উন্নয়ণের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে যা ধরে রাখতে তৎপর মোদি সরকার।
প্রথম দফান মোদি সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব বিচক্ষণতার সঙ্গে সামাল দিয়েছেন সুষমা স্বরাজ। ভারতীয়রা বিশ্বের যে প্রান্তেই বিপদে পড়ুন না কেন, সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন সুষমা। কিন্তু অসুস্থতার কারণে তিনি এবার আর মন্ত্রিসভায় নেই। তার বিকল্প খুঁজতে বেগ পেতে হচ্ছিল বিজেপিকে। অবশেষে এস জয়শঙ্করকে বেছে নেওয়া হয়েছে। শুক্রবারই তাকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী করার কথা ঘোষণা করা হয়েছে।
ডোকলাম সংঘাতের সময়েও গুরুদায়িত্ব নিয়েছিলেন এই সুব্রহ্মণ্যম জয়শঙ্কর। চীন সীমান্তে বেশ কয়েকদিন মুখোমুখি দাঁড়িয়ে ছিল ভারত ও চীনের সেনাবাহিনী। চীন-ভারতকে সেই সংঘাতময় পরিস্থিতি থেকে সরিয়ে আনতে তখন বড় ভূমিকা পালন করেছিলেন এই ব্যক্তি। একসময় তিনি চীনে ভারতের রাষ্ট্রদূত হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। সীমান্তবর্তী লাদাখে অনুপ্রবেশ রুখতেও বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন জয়শঙ্কর। তাই তাকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিলে চীনকে ভারতের হাতে রাখা সম্ভব হবে বলেই আশা মোদি সরকারের।
শুধু তাই নয়, ২০০৫ সালে যুক্তরাষ্টের সঙ্গে পরমাণু চুক্তির সময় ভারতের যে টিম কাজ করেছিল তার অন্যতম সদস্য ছিলেন জয়শঙ্কর। দু বছর পর ২০০৭ সালে মনমোহন সিংয়ের শাসনামলে সেই চুক্তি সম্পন্ন হয়।
এস জয়শঙ্কর ১৯৭৭ ব্যাচের অফিসার। ২০১৩ তে তাকেই পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে প্রথম পছন্দ ছিল মনমোহন সিংয়ের। কিন্তু অন্যান্য নেতাদের পরামর্শে সিনিয়র হিসেবে সুজাতা সিং কেই এই দায়িত্ব দেওয়া হয়।
গত মার্চ মাসেই রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে পদ্মশ্রী পুরস্কার গ্রহণ করেছেন জয়শঙ্কর। গত চার দশকে তিনিই সবচেয়ে বেশি সময় ধরে পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৫ সালে এই দায়িত্ব পান তিনি এবং ২০১৮ তে অবসর নেয়ার আগ পর্যন্ত এই পদে ছিলেন।
চাকরির প্রথম দিকে রাশিয়ায় ছিলেন জয়শঙ্কর। এরপর টোকিও সহ ইউরোপের একাধিক রাজধানী শহরে কাজ করেছেন তিনি। শ্রীলঙ্কার ভারতীয় পিস কিপিং ফোর্সের পলিটিক্যাল অ্যাডভাইজার ও সচিব হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি।
২০১৮ সালে অবসরের পর থেকে তিনি টাটা গ্রুপের গ্লোবাল করপোরেট আফেয়ার্সের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
এই সবকিছু মিলিয়ে এবার তাই সুষমা স্বরাজের পরিবরর্তে জয়শঙ্করকেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে সবচেয়ে যোগ্য মনে করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কলকাতা টুয়েন্টি ফোর



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft