বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৯
আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
তুচ্চ ঘটনায় কাইজে গন্ডগোল হচ্চে, ফ্যারাডা কি!
Published : Monday, 10 June, 2019 at 6:20 AM
জলবায়ু বদলায় যাওয়ার কারনে কেরমে কেরমে পৃতিবীর তাপ বাইড়ে যাচ্চে। সেই জন্যি পড়তেচে সব্বরাশে গরম। সেই গরমের কচনে মানসির মাথাও কেরমেই গরম হইয়ে যাচ্চে। আশপাশে বাইড়ে যাচ্চে কাইজে গন্ডগোল। তক্কাতক্কি বাদলিই একন হাতাহাতিত্তে বাইড়ো বাড়ি বাইদে যাচ্চে। আর একন কাইজে গন্ডগোল দুজনে বাদালি টকাস কইরে মুবাল কইরে লোক জড়ো কইরে ফেলে। ফলে ছোট্ট তক্কাতক্কি হইয়ে যাচ্চে বড় মারামারি। ককনো তাতে জড়ায় যাচ্চে গিরামের স¹ল মানুস। অথচ তলাশ কল্লি পাওয়া যাবে এত বড় গন্ডগোলের শুরু ছোটখাট বিষায় নিয়ে যা নিয়ে আসলে গন্ডগোল করার কোন মানেই হয় না।
কয়দিন আগে ঘুন্নিঝড় হইয়ে গ্যালো। যে আঙয়াচ দিলো তাতে মনে হইলে সব খ্যায় কইরে থুইয়ে যাবে। খুদাতায়ালাই রক্কে করিল। আমাগের দেশে ঢুকার মুকি নেতায় পড়িল। সে ঝড়ে সিরাম কোন ক্ষয়ক্ষেতি না হলিও ঝড়ের নাম ফেণী না ফণী সিডা নিয়ে চা’র দুকানে তক্কাতক্কি বাদায়ে বাইদে গিইলো কাইজে। তাতে পিরায় পনের বিশজন থেতো হইলো। রুযার মদ্দি ইস্তারিতি মুড়ির সাতে জিলেপী দেবে কি দেবে না সিডা নিয়েও তক্কাতক্কিত্তে বাইড়ো বাড়ি বাইদে গিলো। তাতেও বেশ কিচু লোক থেতো হইলো। এর কয়দিন পর জিলেপীর ইংরেজী কি সিডা নিয়ে  শিক্কের্থীগের মদ্দি তক্কাতক্কিত্তে বাদিল মারামারি। তাতে কয়জন থেতো হওয়ার পাশাপাশি দাবড়া দাবড়িতি ক্যাম্পাস এলেকায় আতংক ছড়ায় পড়িল। এই রুযার মদ্দিই খবর পাইলাম শউর বাড়ি বেড়াতি যাইয়ে জামোই’র ইস্তারিতি বেগুনিতি বেগুন না থাকায় বাইদে গিলো তক্কতক্কি। স্যানতে ঢেক্কাঢেক্কি। পরে বাইড়ো বাড়ি। শেষ মেষ একন বেগুনির জন্যি তালাক দিয়াদিয়ি পন্তিক হইয়ে গ্যালো। ঈদির দুইদিন পর ব্রাক্ষনবাড়ি জিলার সদর আর সরাইল দুই উপজিলার মদ্দি বাইদে গ্যালো হায়রে হায় কান্ড! দুই উপজিলার দুই গিরামের মানুস কাইজে বাদায়ে বাইড়ো বাড়ি কইরে ২০ জনরে থেতো কইরে হাসপাতালে পাটায়েচে। শুক্কুরবার সকাল ১০টাত্তে ১১ডা পযযন্ত ঘন্টা খানেক মারামারি করার হেতু হচ্চে গরুর গোস্ত কিনাবেচা নিয়ে। এলেকাবাসী জানায়েচে বিয়েনবেলায় সরাইল উপজিলার বিশ্বরোড মোড়ে এক গোস্তের দুকানে কুট্টাপাড়া গিরামের এক লোক গিলো গোস্ত কিনতি। গোস্তে হাড় বেশী দেচে এই নিয়ে খদ্দের বিটাডা গোস্তয়ালার সাতে তক্কবাইস শুরু কইরে দিলো। এক কতায় দুই কতায় বাইদে গেল ঝই ঝই। দুইজনের মদ্দি শুরু হওয়া তক্ক! এক সুমায় দুই গিরামের মদ্দি ছড়ায় পড়ে। গিরামের লোক বাইর গিরামের লোকের কাচে মাইর খাইয়েচে এলেকার এই বদরাম মাইনে নিতি নারাজ দুই পক্ক। ব্যাস ভেলা গোস্ত কিনা বেচা। থাইকলো ঝুলা চইললো ভুলা। সব ফেলায় রাইকে লাটিশুটা দা বটি বল্লম গাছিদা যে যেম্মি পাইরেচে নিয়ে ঝাপায় পইড়েচে কাজেই। খবর পাইয়ে থানা পুলিশ আসতি আসতি দুই পক্ক মিলে বিশ তিরিশজনরে পাটায় ফেলায়েচে।
সামান্য কারনে ইরাম মারামারির ঘটনা শুইনে মনডা খারাপ হইয়ে যায়। আমরা দিন দিন কনে লাইবে যাচ্চি! চারিদিকি ভেজালের মদ্দি আমরাও হয়ত ভেজাল মানুস হইয়ে যাচ্চি। কবে হয়ত আমাগের বিরুদ্দেই মবিলকোট বসপে! ভেজাল মানুস হিসেবে গুনতি হতি পারে জরিপানাও ! আলাম কনে মলাম যে !



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft