শুক্রবার, ২১ জুন, ২০১৯
আক্কেল চাচার চিঠি (আঞ্চলিক ভাষায় লেখা)
সষষেয় ভূত, কি অদ্ভুত!
Published : Tuesday, 11 June, 2019 at 6:06 AM
মুরুব্বীগের মুকি কুটি কালে শুনতাম মানুস চিনলাম, কিন্তুক মাইটে চিনতি পাল্লাম না। পেত্তম পেত্তম কতাডা শুইনে খুব খটকা খাতাম। এ আবার কিরাম কতা! আস্তের আস্তের এট্টু ডাঙ্গর হওয়ার পর বুজদি পাল্লাম, কেন মুরুব্বীরা এই সব কতা কইতো।
কারবালা ধম্মতলা মোড়ে আগে য্যানে নিপুন ইস্টিডিও ছিলো ঐ লাইনির সব দুকান পাট ভাইঙ্গে নতুন দালান বানানো হচ্চে।  নিপুন ইস্টুডিওর সুমকি কাল এট্টা সাইন বোড দেকলাম কারা ঝুলোয় থুইয়েচে। কারো চিনতি হলি তারে ক্ষেমতা দিয়ে দ্যাও। ক্ষেমতা পালি নাই মানসির আসল চিহারা বারোয় আসে। একবার নাটকে এট্টা সুংলাপ শুনিলাম, ভেটকের খিয়াঘাট মাটে। তাতে একজন কইলো, কলি অকাল হইলো, কুলি পিটের ল্যাজ উইটলো। মানি লোকের মান আর নেই। দুডো টাকা পয়সা হচ্চে আর সব ড্যানা গজাচ্চে। টাকা আর ক্ষেমতা এক সাতে কারো হলি তো পুয়া বারোত্তে ষোল। মানুসরে আর মানুস বিলে গুনার সুমায় নেই। কিডা বড় কিডা ছোট সুমকি আসলি কোন কিচু মানবিচ থাকে না। আর নীয়ম নীতির তুয়াক্কার আশা করাই ভুল। লোকের সুমকি আরে মিটে মিটে কতা কবে কিন্তুক মনে থাকে মনের কতা। ইরাম অভিনয় হইতো নাটক সিনেমায়ালারাও কত্তি পারে কিনা সন্দেহ। কাল এট্টা খবর শুইনে আকাটা মাইরে গিলাম। সরকার দুন্নীতি বন্দ করার জন্যি জিহাদ ঘোষনা কইরেচে। যিরাম কইরেই হোক দুন্নীতির গুড়াশুদ্দ উগড়োই ফেলার জন্যি পোধানমুন্ত্রী নিদ্দেশ দেচেন। দেশে গড়া হইয়েচে দুন্নীতি দমন কমিশোন। এই কমিশোন এর মদ্দি অনেক ভালো ভালো কাজও কত্তিলো। কিন্তুক সষষের মদ্দিও যে ভুত থাকে সিডা বারোই আইসলো এক খবরে। বউ আর ছাবাল মাইরে ফেলায় রাইকে জোর দকল কইরে এট্টা মাইয়েরে বউ বানায় রাকিল পুলিশির এক ডিআইজি। নানা হক না হক কাজ করা আর অবৈধ পতে সম্পদের পাহাড় গড়ার জন্যি তার বিরুদ্দে মাটে লাবিল দুদক। অপরাদ যেই করুক তারে আইনের মদ্দি আনতি পাল্লি আইনির শাসন পোতিষ্টা হয় তাই এই উদ্যোগরে স¹লি সাদুবাদ জানাইলো।
খোদ স্বরাস্টমুন্ত্রী কইলেন অপরাদ পোমান হলি তার বিরুদ্দে আইন অনুযায়ী ব্যবস্তা নিয়া হবে। কিন্তুক কাল শুনলাম দুদকের যিনি এই বিষয়ডা তদন্ত কচ্চিলেন তিনি নাই ৪০ লক্ক টাকায় বুজবাজ হইয়ে গেচেন। পিপারে পড়লাম ডিআইজি সাহেবের বিরুদ্দে উটা অভিযোগ শুইনে গড়া তদন্ত পোতিবেদনে ডিআইজি সাহেবের নাম মুইছে দিতি ৪০ লক্ক টাকায় রফা করিলেন। এর মদ্দি ঐ দুদক কম্মকত্তা ৪০ লক্কত্তে লগদ ২৫ লক্ক টাকা বাজারের খতেই কইরে  রমনা পার্কে হাটার অভিনয় কইরে নিয়ে আইলো। আর বাকি ১৫ লক্ক টাকা এক সপ্তার মদ্দি দিতি হবে বিলে কাড়ায় রাকিল। এর বাইরি ছাবালরে ইশকুলতে আনা নিয়ার জন্যি গ্যাস দিয়ে চালানো এট্টা পিরাইবেট গাড়ি আবদারও করিল। আর এ সবের বিনিময়তি দুদকে ককন কি হচ্চে, তার নামে কি তদন্ত পোতিবেদন হবে এই সগল খবর চাপনিতি তারে জানায় দিতো। সব্বশেষ চুক্তি ছিলো ফেল কড়ি মাকো তেল পদ্দতিতি আসলি তার নামে আসা সব অভিযোগ সারফ এক্সেল দিয়ে ধুইয়ে ফকফকা কইরে দেবে। কিন্তুক অনুসন্দানের পিচনে আরাক অনুসন্দান কইরে সুম্বাদিকরা তা বাইরো কইরে ফেলায়েচে।
আপাতত ঐ দুদক কম্মকত্তারে কাজেত্তে বসায় দেচে। এবার অনুসন্দানকারীর বিরুদ্দেই অনুসন্দান হবে। আল্লায় জানে সিডাতেও বুজবাজ হইয়ে যায় কিনা !



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft