বুধবার, ১৯ জুন, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোরে গ্রামীণ সড়কের চেহারা বদলের উদ্যোগ
শুরু হচ্ছে ৫০ কোটি টাকার কাজ
সদর উপজেলায় ১৩.২৯০ মিটার, চৌগাছায় ১৭.৬৯০ মিটার, ঝিকরগাছায় ১২.৪০০ মিটার
এম. আইউব :
Published : Thursday, 13 June, 2019 at 6:13 AM
শুরু হচ্ছে ৫০ কোটি টাকার কাজযশোরের গ্রামীণ সড়কের চেহারা বদলের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। একটি প্রকল্পের আওতায় জেলার বিভিন্ন উপজেলায় পাঁচটি সড়কের ৪৩ কিলোমিটারে এ কাজ হবে। আর এ কাজের সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে আনুমানিক ৫০ কোটি টাকা। আগামী এক মাসের মধ্যে এ কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। বিশাল এ প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন হলে বদলে যাবে যশোরের গ্রামীণ জনপদ। সুফল ভোগ করবে কয়েক লাখ মানুষ।
দীর্ঘদিন ধরে যশোরের বিভিন্ন উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ অনেক সড়ক চলাচলের অনুপযোগী হয়ে রয়েছে। এসব সড়কে বড় বড় গর্ত আর খানাখন্দকে ভরে গেছে। যানবাহন চলাচল রীতিমত দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে। এমনকি পায়ে হেঁটে চলাচলও কষ্টকর। এ নিয়ে পথচারীদের ক্ষোভের শেষ নেই।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, জেলার মধ্যে যেসব সড়ক চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, যশোর সদর উপজেলার যশোর-কায়েমকোলা, চৌগাছা উপজেলার চৌগাছা-দামোদর বটতলা-বিদ্যানন্দপুর, পরাণপাড়া-মহেশপুর বিদ্যানপুর বাজার ও নারায়নপুর ইউপি অফিস-বন্দলীতলা বাজার এবং ঝিকরগাছা উপজেলার ব্যাংদা জিসি-কায়েমকোলা জিসি-মোহাম্মদপুর বাজার-ছুটিপুর বাজার সড়ক।
যশোর এলজিইডি কর্মকর্তারা বলছেন, জেলার মধ্যে যতগুলো সড়কের অবস্থা বেহাল তারমধ্যে উল্লেখিতগুলো সবচেয়ে খারাপ। সরেজমিন যশোর-কায়েমকোলা সড়কে গিয়ে তার প্রমাণ মিলেছে। এই সড়কটি দিয়ে পায়ে হেঁটে চলাচল করাও কষ্টকর। সড়কটি খানাখন্দকে ভরে যাওয়ায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। জনগুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি দিয়ে সুদূর ঝিকরগাছার ছুটিপুর থেকে শ’ শ’ মানুষ প্রতিদিন শহরে বিভিন্ন কাজে আসেন। প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ বাইসাইকেলে চড়ে আসেন শহরে। তাদেরই কয়েকজন আব্দুল হালিম, আরিফুজ্জামান, সোহাগ হোসেন, নুরুজ্জামান ও কামরুজ্জামান। শহরতলির ধর্মতলা মোড়ে দাঁড়িয়ে কথা হয় তাদের সাথে। তাদের বক্তব্য, রাস্তাটি দিয়ে সাইকেল চালানোতো দুরের কথা, হাঁটাও যায় না। তারপরও জীবিকার তাগিদে বাধ্য হয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। কতদিন সাইকেল নিয়ে পড়েছি তার হিসেব নেই। অনেকের সাইকেলের ফর্কও ভেঙেছে। ক্ষোভের সাথে তারা বলেন, অনেক দিন ধরে শুনছি রাস্তাটি মেরামত করা হবে। কিন্তু তার কোনো খবর নেই। আদৌ হবে কি না কে জানে!
এদিকে, যশোর এলজিইডি অফিসে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, রুরাল কানেক্টিভিটি ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট-আরসিআইপি প্রজেক্টের আওতায় পাঁচটি সড়কের ৪৩ দশমিক ৩৮ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের কাজ হাতে নেয়া হয়েছে। সড়কগুলো হচ্ছে, যশোর-কায়েমকোলা, চৌগাছার চৌগাছা-দামোদর বটতলা-বিদ্যানন্দপুর, পরাণপাড়া-মহেশপুর বিদ্যানপুর বাজার ও নারায়নপুর ইউপি অফিস-বন্দলীতলা বাজার এবং ঝিকরগাছার ব্যাংদা জিসি-কায়েমকোলা জিসি-মোহাম্মদপুর বাজার-ছুটিপুর বাজার। এরমধ্যে যশোর-কায়েমকোলা সড়কে ১৩ কিলোমিটার ২শ’৯০ মিটার, চৌগাছা-দামোদর বটতলা-বিদ্যানন্দপুর ৫ কিলোমিটার ৭শ’ ৬০ মিটার, পরাণপাড়া-মহেশপুর বিদ্যানপুর বাজার ৭ কিলোমিটার ৫শ’ ৩০ মিটার, নারায়নপুর ইউপি অফিস-বন্দলীতলা বাজার ৪ কিলোমিটার ৪শ’ মিটার ব্যাংদা জিসি-কায়েমকোলা জিসি-মোহাম্মদপুর বাজার-ছুটিপুর বাজার ১২ কিলোমিটার ৪শ’ মিটার রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে। যার আনুমানিক ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ কোটি টাকা। এলজিইডি কর্মকর্তাদের বক্তব্য, এটি অনেক বড় একটি প্রজেক্ট। এই প্রজেক্ট বাস্তবায়িত হলে যশোরের গ্রামীণ সড়কের চেহারা বদলে যাবে।
এ ব্যাপারে যশোর এলজিইডির সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী মুনছুর আলী বলেন, এই প্রজেক্ট সম্পর্কে ঢাকায় প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। এটি মূল্যায়নের পর্যায়ে রয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে ওয়ার্কঅর্ডার আসতে পারে। এরপর টেন্ডার হয়ে কাজ শুরু হবে।
বড় এই প্রকল্পের বিষয়ে জানতে যশোর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মীর্জা মো. ইফতেখার আলীর কাছে ফোন দিলেও তিনি তা রিসিভ করেননি। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায় তিনি বাইরে ছিলেন। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft