বুধবার, ১৯ জুন, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোরাঞ্চলে আইএমইআই নাম্বার পাল্টে দেয়া শক্তিশালী চক্র
চুরি ছিনতাই হওয়া মোবাইল উদ্ধার হচ্ছে না, প্রযুক্তিতে অভিজ্ঞ অপরাধী চক্র জড়িত
দেওয়ান মোর্শেদ আলম :
Published : Thursday, 13 June, 2019 at 6:13 AM
যশোরাঞ্চলে আইএমইআই নাম্বার পাল্টে দেয়া শক্তিশালী চক্র যশোর অঞ্চলে মোবাইলের শনাক্তকরণ নম্বর আইএমইআই পাল্টে ফেলা শক্তিশালী চক্র কাজ করছে। এর একটি চক্রের সন্ধান পেয়েছে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা। আইটি স্পেশালিস্ট অপরাধী চক্র মোবাইল সেট, ল্যাপটপ ও ট্যাব ব্যবহার করে। ব্যবহার হয় দঙ্গল নামে একটি ডিভাইস। যে কারণে যশোরাঞ্চল থেকে চুরি-ছিনতাই হওয়া শ’শ’ মোবাইলের বেশিরভাগই উদ্ধার হচ্ছে না। আর মোবাইলের আইএমইআই পাল্টানোর কারণে এর সূত্র ধরে অপরাধী আটক সাফল্য ভেস্তে যাচ্ছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার। এ ব্যাপারে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখাসহ কয়েকটি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা জোরালো তদন্ত শুরু করেছে।
সূত্র জানিয়েছে, চলতি বছরে যশোর কোতোয়ালীসহ ৯ টি থানায় মোবাইল চুরি, ছিনতাই-এর কয়েক’শ অভিযোগ জমা পড়ে।  তদন্ত ও মোবাইল উদ্ধার প্রক্রিয়ার জন্য অফিসাররা কাজ করলেও ফলাফল অনেকটা শূন্যের কোটায়। গত জানুয়ারি মাসে সরকারি এমএম কলেজের ক্যামিস্ট্রি প্রথম বর্ষের ছাত্র ও বিবর্তন কলেজ শাখার সভাপতি আনন্দ কুমার সরকারের কাছ থেকে ব্ল বিভো জিরো ফাইভ ও স্যামস্যাং জেট-টু দুটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়া হয়। বেজপাড়া মেইন রোডের মাহফুজ আহমেদ প্রিন্স নামে যশোর সিটি কলেজের এক ছাত্র থানায় আরও একটি অভিযোগ করেন। তার কাছ থেকেও হু আই মোবাইল সেট ছিনতাই হয়। ২ ফেব্রুয়ারি বিকেলে সরকারি এমএম কলেজের ছাত্র অর্ঘ্য মন্ডলের মোবাইল ফোনটা ছিনিয়ে নেয়া হয়। যশোর ডিসি বাংলো রোডে কলেজ ছাত্র স্টেডিয়ামপাড়ার নাফিজ ইমরানের কাছ থেকে একটি  ফোন ছিনতাই হয়। যশোরের বাউলিয়া এলাকার হাফিজুর রহমানের ছেলে শাহিন আলম রাব্বির গতিরোধ করে কাছে থাকা আরও একটি ফোন ছিনতাই করা হয়। যশোর ঘোপ নওয়াপাড়া এলাকার বাবুর একটি দামি ফোন চুরি হয়। তাদের অভিযোগ, তারা থানায় জানিয়েও ফল পাননি। এধরণের কয়েক শ’ ফোন চুরি ছিনতাইয়ের অভিযোগ নিয়ে পুলিশ কাজ করতে গিয়ে হোঁচট খাচ্ছে। চোর বা যার কাছে ফোনটির অবস্থান তা নিশ্চিত করার আগেই আইএমআই নাম্বার পাল্টে দেয়া হচ্ছে। যে কারণে চুরি ছিনতাই হওয়া মোবাইল উদ্ধারে পুলিশি সাফল্য একেবারে কম।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখার একটি সূত্র জানিয়েছে, মোবাইল সেটের একমাত্র দালিলিক প্রমাণ আইএমইআই নম্বর পাল্টে ফেলার মতো প্রযুক্তি এক সময় বাংলাদেশে সহজলভ্য ছিল না। গত কয়েক বছর ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে আইএমইআই পাল্টে ফেলার কাজ শুরু করেছে অভিজ্ঞ অপরাধী চক্র। যশোরাঞ্চলেও শক্তিশালী চক্র কাজ করছে। জেলা গোয়েন্দা শাখার হাতে তথ্য এসেছে ওই চক্রের সাথে যোগসূত্রতা রয়েছে যশোরের বেনাপোলের একটি টেলিকমের। এ তথ্যে ওই প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালানো হয়। সে সময় কিছু তথ্যও পাওয়া গেছে।  
সূত্রটি আরও জানায়, ভারতীয় চোরাই মোবাইল বাংলাদেশে এবং বাংলাদেশের চোরাই মোবাইল ভারতে পাঠানো হচ্ছে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। যশোরাঞ্চলে কয়েকটি আইটি প্রতারক চোরাই ও ছিনতাই করা মোবাইলের আইএমইআই পাল্টে দিচ্ছে। চক্রের সদস্যরা মোবাইলের আইএমইআই পরিবর্তনের জন্য মোটা অংকের টাকা নিয়ে থাকে। এক এলাকার মোবাইল অন্য এলাকায়, এমনকি বাংলাদেশ-ভারতের সীমান্ত হওয়ায় দু’দেশের চোরাই মোবাইল সিন্ডিকেটের সাথে চক্রের যোগাযোগ রয়েছে। মোবাইলের আইএমইআই নম্বর পাল্টে ফেলতে পারলে অপরাধীদের শনাক্ত করা অনেক ক্ষেত্রেই সম্ভব হচ্ছে না।
গোয়েন্দা পুলিশ জানিয়েছে, চায়নার তৈরি সব ধরনের দামি মোবাইল সেট, স্যামসাং, অপ্পোসহ কয়েকটি ব্র্যান্ডের সেটের আইএমইআই সহজেই পাল্টে ফেলা যায়। দঙ্গল নামে একটি ডিভাইস আছে, যাতে বিশেষ ধরনের সিম থাকে। ওই সিমে অসংখ্য ১৪ ডিজিটের আইএমইআই সংযুক্ত থাকে। ওই ডিভাইস ব্যবহার করে পাল্টে ফেলা হচ্ছে শনাক্তকরণ নম্বর। তবে নকিয়া-আইফোন সেটের আইএমইআই পাল্টে ফেলা সহজ নয়। প্রত্যেক ব্রান্ডের জন্য আলাদা সফটওয়্যার আছে। সেই সফটওয়্যার যে কোন মোবাইল-ল্যাপটপে ব্যবহার করা যাবে না। এজন্য গেটওয়ে দরকার। সেই গেটওয়ে হচ্ছে দঙ্গল।
গোয়েন্দা সূত্রটি আরও জানায়, সাধারণত মোবাইলের আইএমইআই পরিবর্তন করতে আধা ঘণ্টা সময় লাগে বলে তারা তথ্য পেয়েছে। স্মার্টফোনে লাগে সর্বোচ্চ দু’দিন। তবে আইএমইআই পরিবর্তনের পর যদি সেট ফ্লাশ করা হয় তাহলে আগের প্রকৃত নম্বারটি চলে আসে। পাল্টে ফেলা ভুয়া আইএমইআই অনেক ক্ষেত্রে ৮-১০টি মোবাইলেও ব্যবহার হয়। এ ক্ষেত্রে অপরাধ সংঘটনের পর অনেক নিরীহরাও পুলিশি ঝামেলায় পড়ে যান।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহমেদ জানিয়েছেন, ওই চক্রকে সনাক্ত করার কাজ চলছে। গত বছর এসআই আবু মুরাদসহ কয়েকজন অফিসার এ ব্যাপারে গোপন তদন্ত শুরু করেছিলেন। আইএমইআই পাল্টানো চক্রকে পাকড়াও করা না গেলে চুরি ছিনতাই হওয়া মোবাইল উদ্ধার করা কঠিন হবে।
এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ অপূর্ব হাসান জানিয়েছেন, ্আইএমইআই পাল্টানো চক্রের সন্ধানে কাজ চলছে। ওই চক্রটি মূল অপরাধীদেরও আড়াল করতে সহায়তা করছে। তাদের হন্যে হয়ে খোঁজা হচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রযুক্তি নিয়ে মাঠে নেমেছে পুলিশ। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft