মঙ্গলবার, ১৮ জুন, ২০১৯
সারাদেশ
গৃহবধূ লিপি হত্যাকান্ড নিয়ে সংবাদ সম্মেলন :
মামলা তুলে নিতে টাকার প্রলোভন দেখাচ্ছে মেম্বার
মুহাম্মদ দিদারুল আলম,চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধি :
Published : Thursday, 13 June, 2019 at 3:40 PM
মামলা তুলে নিতে টাকার প্রলোভন দেখাচ্ছে মেম্বারচট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে গৃহবধু হোসনে আরা আক্তার লিপি হত্যাকান্ড ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় মেম্বারের (ইউপি সদস্য) সহযোগিতায় একটি প্রভাবশালী মহল প্রতিনিয়ত বাদীকে মামলা তুলে নিতে নানা প্রলোভন দেখাচ্ছে বলেও জানিয়েছে লিপির পরিবারের লোকজন।
বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকাল ১১টায় মিরসরাই প্রেসক্লাবে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ করেন, গৃহবধূ লিপির চাচা  মফিজুর রহমান, মোহাম্মদ ইকবাল ও চাচাতো ভাই সিরাজদৌলা। এসময় লিপির বাবা শেখ আলমও তাদের সঙ্গে ছিলেন।
গৃহবধূ লিপির চাচা মফিজুর রহমান অভিযোগ করেন, স্থানীয় ২নং হিঙ্গুলী ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যম আজমনগর ওয়ার্ডের সদস্য দ্বীন মোহাম্মদ গত দুইদিন যাবৎ মামলা তুলে নিতে লিপির পরিবারকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। এছাড়া মামলা তুলে নেয়া শর্তে মোটা অংকের টাকা দেয়ারও প্রস্তাব করছেন তিনি।
অবশ্য এ বিষয়ে কথা বলতে হিঙ্গুলী ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যম আজমনগর ওয়ার্ডের সদস্য দ্বীন মোহাম্মদের ব্যক্তিগত মোবাইলফোন নম্বরে একাধিকবার কল দিলে তিনি তা রিসির্ভ করেননি।
লিপির আরেক চাচা মোহাম্মদ ইকবাল অভিযোগ করেন, ‘ঘটনার রাতে লিপির মরদেহ উদ্ধারের পর ঘটনার আলামত সংগ্রহ করে ওই ঘর তালাবদ্ধ করে দেয় পুলিশ। অথচ গত বুধবার মেম্বার দ্বীন মোহাম্মদ তালা খুলে ঘরে ঢুকে ধোয়ামোছা করিয়ে খুনের সবরকম চিহ্ন নষ্ট করে ফেলে।’ এসময় তিনি যোগ মামলা তুলে নিতে টাকার প্রলোভন দেখাচ্ছে মেম্বারকরেন, ঘটনার পর থেকে আমরা লিপির নীকট আত্মীয় হয়েও ওই ঘরে ঢুকতে পারিনি। ঘটনার রাতে আমাদের পরিবারের লোকজন পৌছানোর আগেই পুুলিশ ঝুলন্ত অবস্থা থেকে মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।
প্রসঙ্গত, গত সোমবার (১০ জুন) দিবাগত রাতে মিরসরাইয়ের হিঙ্গুলী ইউনিয়নের মধ্যম আজমনগর গ্রামে শশুর বাড়ির শোবার ঘর থেকে পুলিশ ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধূ লিপির মরদেহ উদ্ধার করে। পরে তা ময়নাতদন্তের জন্যে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। পরদিন মঙ্গলবার ১১ জুন মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ থানায় স্বামী মো. কামাল উদ্দিন, শাশুড়ি হোসনেয়ারা বেগম ও শশুর নূর মোহাম্মদকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন গৃহবধূ লিপির বাবা শেখ আলম। ঘটনার পরপর আসামীদের সকলেই আত্মগোপন করে আছেন। লিপির বাড়ি একই ইউনিয়নের মেহেদী নগর গ্রামে। প্রবাসী কামালের সঙ্গে লিপির দাম্পত্য জীবনের শুরু হয় মাত্র ৪ বছর পূর্বে। ইতোমধ্যে তাদের ঘরে আসে ফুটফুটে একটি কন্যা সন্তান। যার বয়স বর্তমানে মাত্র ৪ মাস।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft