বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯
জাতীয়
বাজেট প্রত্যাখ্যান করেছে পোশাক শ্রমিক সংগঠন টিইউসি
কাগজ ডেস্ক :
Published : Friday, 14 June, 2019 at 9:01 PM
বাজেট প্রত্যাখ্যান করেছে পোশাক শ্রমিক সংগঠন টিইউসি২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখ্যান করে করেছে গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র (টিইউসি)। এরই প্রেক্ষিতে শুক্রবার (১৪ জুন) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সংগঠনটির পক্ষ থেকে বিক্ষোভ করা হয়েছে।
বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে প্রস্তাবিত বাজেটকে শ্রমিকও গণবিরোধী বলে আখ্যায়িত করা হয়। সমাবেশে গার্মেন্টস শ্রমিকদের রেশনিং ও আবাসনের জন্য বাজেট বরাদ্দের দাবি জানানো হয়।
টিইউসির সভাপতি অ্যাড. মন্টু ঘোষের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, কার্যকরী সভাপতি কাজী রুহুল আমীন, কেন্দ্রীয় নেতা দুলাল সাহা, এমএ শাহীন, মঞ্জুর মঈন, জয়নাল আবেদীন, ইমদাদুল ইসলাম, মাসুদ রানা, রুজিনা আক্তার সহ অনেকে।
বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে মন্টু ঘোষ বলেন, 'প্রস্তাবিত বাজেট হলো ধনীদের। এই বাজেটে ধনীদের জন্য অনেক কিছু থাকলেও বরাবরই শ্রমিক শ্রেণিদের জন্য কিছুই নেই। শ্রমিকদের রেশনিং ও বাসস্থানের জন্য বরাদ্দের দাবি অনেক পুরাতন। এই দাবির পক্ষে এবারও অনেক আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু সরকারের কাছে শ্রমিক-কৃষক-ক্ষেতমজুর ও মেহনতি মানুষের জন্য কোনো স্থান নেই।'
সমাবেশে গার্মেন্টস টিইউসির সাধারণ সম্পাদক শ্রমিকনেতা জলি তালুকদার তার বক্তব্যে বলেন, 'অন্যরা ৩৫ শতাংশ হারে করপোরেট ট্যাক্স দিলেও গার্মেন্টস মালিকরা দেন ১২ শতাংশ। এ বছর এই কর অবকাশ সুবিধার মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ছিল। বাজেটে সেটা অব্যাহত রাখার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। চার ধরনের রফতানিতে এক কোটি টাকা রফতানি করে মালিকরা চার লাখ টাকা নগদ পুরস্কার পান। এবার বাজেটের প্রস্তাবে সকল ধরনের পোশাক রফতানি ক্ষেত্রেই মালিকরা এক কোটি টাকা রফতানি করে সরকারের কাছ থেকে এক লাখ টাকা করে পুরস্কার পাবে। এতসব পেয়ে মালিকরা খুশিতে প্রস্তাবিত বাজেটকে জনকল্যাণমুখী বলে ঘোষণা করছে।'
তিনি বলেন, 'বাস্তবে মালিকরা জনগণের এক শতাংশও নন। প্রস্তাবিত বাজেটে শ্রমিকের জন্য কোন বরাদ্দ নেই। বাজেটে শ্রমিক-কৃষক-ক্ষেতমজুরদের বিষয়ে যথাযথ কোনো উল্লেখ নেই। এই বাজেট জনগণের কল্যাণের বাজেট কী করে হয়।'
সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার বলেন, 'ব্যাংক ডাকাত ও ঋণখেলাপিদের মাফ করে দিতে দেশের শ্রমিক মেহনতি মানুষের কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয় হবে। আর শ্রমিকরা রেশনিং, চিকিৎসা ও বাসস্থানের জন্য বরাদ্দ চেয়ে হয়রান হবে, এই অবস্থা চলতে দেয়া যায় না। সরকারের গণবিরোধী ও শ্রমিকবিরোধী পদক্ষেপ রুখে দিতে শ্রমিক-কৃষক-মেহনতি জনতার ঐক্যবদ্ধ সংগ্রাম গড়ে তুলতে হবে।'




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft