বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
সারাদেশ
জমে উঠেছে কালুখালী উপজেলা নির্বাচন
ভোটারদের মধ্যে বাড়ছে শঙ্কা
রাজবাড়ী প্রতিনিধি :
Published : Saturday, 15 June, 2019 at 7:49 PM
ভোটারদের মধ্যে বাড়ছে শঙ্কা আগামী ১৮জুন অনুষ্ঠিত হবে রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ ধাপের এ নির্বাচনে দলীয় ও বিদ্রোহ প্রার্থীসহ  আওয়ামী লীগেরই ৩জন প্রার্থী রয়েছে। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে অশান্ত হয়ে উঠছে কালুখালী উপজেলা। যে কারনেই নেতাকর্মীরা ৩ টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। জাতীয় পার্টির রয়েছে এজন প্রার্থী। এ অবস্থায় দ্বিধাদন্দে ভুগছে দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারন ভোটাররা।
এক প্রাথী আরেক প্রার্থীর বিরুদ্ধে নানা ধরনের অভিযোগ। তবে কোন অভিযোগ নেই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের।
ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে হুমকি, হামলা, মামলা, প্রার্থীদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ প্রতিদিনই বাড়ছে। এ নির্বাচনে ভোট কাটার হুমকী, কর্মী সমর্থকদের উপর হামলা, প্রকাশ্যে অস্ত্র প্রদর্শন করে প্রতিপক্ষের কর্মীদের ভয়ভিতি দেখানোর অভিযোগ উঠেছে।
আনারস মার্কার স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটোর বিরুদ্ধে ভোট কাটার হুমকির অভিযোগ তুলেছেন নৌকার প্রার্থী। ভোটারদের মধ্যে বাড়ছে শঙ্কা
এ দিকে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী কাজী সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্গণের অভিযোগ তুলেছেন সতন্ত্র প্রার্থী টিটো চৌধুরী। মোটর সাইকেল মার্কার প্রার্থী নুরে আলম সিদ্দিকী হকের অভিযোগ তার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, হামলা ও ভয়ভীতি দেখিয়ে নির্বাচনের মাঠ থেকে সরানোর চেষ্টা করছে অন্যপ্রার্থীর সন্ত্রাসী  বাহীনি।
উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে চার প্রার্থীর মনোনয়ন প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। আওমীলীগ মনোনীত ও বর্তমান কালুখালী উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম, আওয়ামীলীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী নুরে আলম সিদ্দিকী হক, আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো ও জাতীয় পার্টির প্রাথী আনিসুর জামান। আওয়ামী লীগের ৩প্রার্থীই তাকিয়ে আছে বিএনপির সমর্থক ও ভোটারদের প্রাণে। অনেকই মনে করছে যে হেতু ৩জনই হেবি ওয়েড আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী তাই বিএনপির ভোট যে দিকে যাবে সে দিকইে জয়ের মালা ঝুলবে।  ফলে কপাল খুলবে কার? তা ভোটারদের মধ্যে বাড়ছে শঙ্কা নিয়েও জল্পনা-কল্পনা  চলছে  সাধরণ ভোটারদের মধ্যে।
শুক্রবার সরেজমিনে সকাল ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত কালুখালী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখাগেছে, সন্ধ্যার পর থেকেই মোটর সাইকেলে ও বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে ভোট পাহাড়া দেওয়া হচ্ছে। হাতে রয়েছে লোহার রড, লাঠিসহ বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জামাদি। অনেক স্থানে কার সমর্থক তা দেখে নিয়ে যেতে দেওয়া হচ্ছে। কোন মোটর সাইকেল গেলে তাকে দাড় করানো হচ্ছে। এ ধরনের বাধার সম্মুখিন হতে হয় বোয়ালিয়া মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে। বাড়ীর দেওয়াল, টিনের বেড়া, দোকান, গাছসহ বিভিন্ন স্থাপনায় আচরণ বিধি লঙ্গন করে সার্টানো হয়েছে পোষ্টার।
স্থানীয় ভোটারদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, ভোটের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে কালুখালী উপজেলার নির্বাচনী হাওয়া। ৩জন প্রার্থীই নিজ নিজ এলাকায় প্রভাব বিস্তাারের জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। এতে এলাকায় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে ঘটছে ছোট-বড় ধরনের হামলা, মারপিটের ঘটনা। ভোট সৃষ্টি হচ্ছে ভীতির পরিবেশ। তারা প্রশাসনের নিকট অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের আশাবাদী।
আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজী সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো ও তার সমর্থকরা আমার কর্মী সমর্থকদের মারপিট করে হাত-পা ভেঙ্গে দিচ্ছে। তাদের নামে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করছে। এরা বিভিন্ন জায়গায় অপপ্রচার করছে এ নৌকা সেই নৌকা নয়। নির্বাচনের দিন ভোট কেটে নেওয়া হবে। তাদের এহেন কর্মকান্ডে এলাকার সাধারন মানুষ চরম ভীতির মধ্যে আছে। নির্বাচন কমিশনকে এ ব্যাপারে নজর দিতে হবে। তাদেরকে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো আমার জনপ্রিয়তায় দিশেহারা হয়ে এমন কান্ড করছে। কিন্তু তাতে লাভ হচ্ছে না। দিন দিন আমার জনপ্রিয়তা বাড়ছেই।ভোটারদের মধ্যে বাড়ছে শঙ্কা
এ দিকে আনারস মার্কার সতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো অভিযোগ করেছেন, নৌকা মার্কার প্রার্থী কাজী সাইফুল ইসলাম, তার ভাই এবং সমর্থকরা নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্গণ করে মোটর সাইকেল শোডাউন, হামলা ও মারপিট করছে। প্রকাশ্যে অস্ত্র প্রদর্শন করছে। বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে তার লাইন্সেসকৃত অস্ত্র বহন করাচ্ছে।
বাড়ীর দেওয়াল, টিনের বেড়া, দোকান, গাছসহ বিভিন্ন স্থাপনায় আচরণ বিধি লঙ্গন করে সার্টানো হয়েছে পোষ্টার। স্থানীয় ভোটারদের সাথে কথা বলে জানাগেছে, ভোটের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে কালুখালী উপজেলার নির্বাচনী হাওয়া। ৩জন প্রার্থীই নিজ নিজ এলাকায় প্রভাব বিস্তারের জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। এতে এলাকায় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে ঘটছে ছোট-বড় ধরনের হামলা, মারপিটের ঘটনা। ভোটের মাঠে সৃষ্টি হচ্ছে ভীতির পরিবেশ। তারা প্রশাসনের নিকট অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের আশাবাদী।
রাজবাড়ী জেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ হাবিবুর রাহমান জানান, কালুখালী উপজেরা পরিষদ নির্বাচন এখন পর্যন্ত পরিবশে ভালো আছে। এখানে মোট ভোটারদের মধ্যে বাড়ছে শঙ্কা চেয়ারম্যান পদে ৩জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭জন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জন প্রার্থী প্রতিদন্দীতা করছেন। নির্বচনের জন্য ৩জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আচরণ বিধি প্রতিপালন দেখবাল করছেন এবং একাধীক প্রার্থীকে আচরণ বিধি ভঙ্গের দায়ে তাদের জরিমানাও করা হয়েছে। এবং এখন পর্যন্ত প্রাথীরা নির্বচনী আচরণ বিধি মেনেই  প্রাথীরা প্রাচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। আমরা আশা করি রাজবাড়ীতে যে ৪টি উপজেলা পরিষদ নির্বচন করেছে শান্তিপূর্ণভাবে, তার চাইতেও আরো ভালো নির্বচন কালুখালীতে অনুষ্ঠিত হবে। এখানে সুষ্ট নির্বচন করতে জেরা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন সবাই বদ্ধপরিকর। স্মমিলিত ভাবে সবার সহযোগিতায় কালুখালী নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠিত হবে।
রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী এক গণ বিজ্ঞপ্তিতে নির্বাচন অবাধ, সুষ্টু ও নিরপেক্ষ করতে নির্বাচনের ৭দিন পুর্ব থেকে নির্বাচন পরবর্তী ৭দিন পর্যন্ত লাইন্সেকৃত অস্ত্র বহন ও প্রদর্শন বৈআইনী ঘোষনা করা হয়েছে। এ আদেশ লঙ্গন করলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
উল্লেখ্য, রাজবাড়ীর ৫টি উপজেলার ৪টি উপজেলায় ৩য় ধাপে ২৪ মার্চ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবং ১৮ জুন ৫ম ও শেষ ধাপে অনুষ্ঠিত হতে হচ্ছে কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। ২০১০ সালে ৭টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত হয় কালুখালী উপজেলা। এবারের নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে ২য় বারের মত অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।
এ উপজেলায় ভোটার রয়েছে ১লক্ষ ১৭হাজার ৭৬৭ জন। মোট ৪৬টি কেন্দ্রে-বুথ সংখ্যা-২৯৮টি।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft