রবিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯
জাতীয়
নির্বাচনের ওপর নিয়ন্ত্রণ গণতন্ত্রের জন্য বিপজ্জনক
কাগজ ডেস্ক :
Published : Wednesday, 19 June, 2019 at 7:45 PM
নির্বাচনের ওপর নিয়ন্ত্রণ গণতন্ত্রের জন্য বিপজ্জনকবাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ‘রাষ্ট্রযন্ত্রের বিভিন্ন অংশ যদি নির্বাচনের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করে, তাহলে রাজনৈতিক দল কেবল নির্বাচন নয়, রাষ্ট্র পরিচালনায়ও প্রাসঙ্গিকতা হারিয়ে ফেলবে। এটা সবার জন্য যেমন আওয়ামী লীগের জন্যও প্রযোজ্য। এটা গণতন্ত্রের জন্য বিপদজনক।’
জাতীয় সংসদে বুধবার ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেন তিনি।
মেনন বলেন, ‘নির্বাচনকে যথাযথ মর্যাদায় ফিরিয়ে আনার কাজটি আমাদের করতে হবে। কারণ রোগ এখন উপজেলা নির্বাচন পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। পাঁচ দফা উপজেলা নির্বাচনে আমাদের দলের অভিজ্ঞতা, এমনকি আওয়ামী লীগ নিজ দলের প্রার্থীদের অভিজ্ঞতাও করুণ। নির্বাচন কমিশন, প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের বলেও কোনো লাভ হচ্ছে না। বরং তাদের যোগসাজশ রয়েছে। ফলে নির্বাচন ও সামগ্রিক নির্বাচনী ব্যবস্থা সম্পর্কে জনমনে অনাস্থা সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচনে ভোট দেয়ার ব্যাপারে জনগণ আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। এটা নির্বাচনের জন্য কেবল নয়, গণতন্ত্রের জন্য বিপদজনক।’
তিনি বলেন, ‘সেই ১৯৬৩ সাল থেকে ভোটাধিকারের জন্য লড়াই করেছি। সর্বশেষ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিএনপি-জামাতের ভুয়া ভোটার তালিকা আর নীল-নকশার নির্বাচনের বিরুদ্ধে ১৪ দল অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন ও জনগণের ভোট প্রয়োগের আন্দোলনে সফলতা অর্জন করেছিলাম।’
সরকারের বিদ্যুৎ, মাথাপিছু আয়, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে উন্নয়মূলক কর্মকাণ্ডের বর্ণানা করে মেনন বলেন, ‘আমাদের আর্থিক খাতের দুর্গতি এ পথে কাঁটা হয়ে রয়েছে। ব্যাংক খাতে লুটপাট, নৈরাজ্য ও বিশৃঙ্খলা কারও অবিদিত নয়। ঋণখেলাপীর দায়ে ব্যাংকগুলো ন্যুব্জ। চলছে তারল্য সঙ্কট। করের টাকা দিয়ে ব্যাংকের ঘাটতি মূলধন পূরণ করার জন্য বরাদ্দ এবারেও রাখা হয়েছে বাজেটে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বাধীন ভূমিকা দূরে থাক, ব্যাংকগুলোকে কার্যকর নজরদারি করতেও অক্ষমতার পরিচয় দিচ্ছে। নিজের অর্থই তারা সামাল দিতে পারেনি এবং তার কোনো জবাবদিহিতা দেশবাসী পায়নি।’
তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক বিবেচনায় ব্যাংক প্রদান, ব্যাংক মালিকদের আবদারে ব্যাংক আইন সংশোধন করে ব্যাংকগুলোকে পারিবারিক মালিকানার হাতে তুলে দেয়া, একই ব্যক্তি একাধিক ব্যাংকের মালিক বনে ব্যাংক খাতকে নিয়ন্ত্রণ করা, ব্যাংক মালিক অ্যাসোসিয়েশন কর্তৃক সিআরআর নির্ধারণ করা, এ সবই ব্যাংক খাতে এ পরিস্থিতির জন্য দায়ী। এমনকি ব্যাংক ঋণের ওপর সুদের হার এক অঙ্কের ওপর না রাখার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে কথা দিয়েও সে কথা রাখেনি। কেবল ঔদ্ধত্যভাবে বলেছে ‘হুকুম দিয়ে সুদের হার ঠিক করা যায় না।’



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft