সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯
সারাদেশ
হঠাৎ তিস্তার পানি বৃদ্ধি, লালমনিরহাটের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত
লালমনিরহাট সংবাদদাতা :
Published : Wednesday, 19 June, 2019 at 7:52 PM
হঠাৎ তিস্তার পানি বৃদ্ধি, লালমনিরহাটের নিম্নাঞ্চল প্লাবিতলালমনিরহাটে তিস্তার হঠাৎ পানি বেড়ে যাওয়া প্লাবিত হয়েছে জেলার নিম্নাঞ্চল। উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীতে আকস্মিকভাবে পানিবৃদ্ধি হয়েছে। এতে জেলার আদিতমারী উপজেলার ফলে মহিষখোচা ইউনিয়নের তিস্তার চরাঞ্চলসহ ৫টি গ্রামের প্রায় ৫ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন।
গ্রামগুলো হচ্ছে- দ্বীপচর, দক্ষিণবালাপাড়া, গোবরধন, চন্ডিমারী ও কুটিরপাড়। সেই সঙ্গে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও।
সরেজমিন উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের তিস্তা বেষ্টিত এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, তিস্তা নদীতে আকস্মিকভাবে পানিবৃদ্ধি পেয়েছে।
এলাকাবাসী জানান, মঙ্গলবার রাত থেকে হঠাৎ করে তিস্তা নদীতে পানি বাড়তে থাকে। আর সকাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অনেকের বাড়ি-ঘরে পানি উঠতে থাকে।
উজান থেকে নেমে আসা ঢলে তিস্তা নদীতে পানি বেড়ে যাওয়ায় লালমনিরহাটে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।
মঙ্গলবার বিকালে হাতীবান্ধার দোয়ানিতে অবস্থিত ‘তিস্তা ব্যারাজ’ এলাকায় বিপদসীমার ৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়। পানি নিয়ন্ত্রণে তিস্তা ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে দেয়া হয়েছে।
এদিকে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, তিস্তায় হঠাৎ পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ভারতের সিকিমসহ পশ্চিমবঙ্গের কিছু অঞ্চলে বন্যার সতর্কতা জারি করেছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ। পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় খুলে দেয়া হয়েছে বাঁধের বেশ কয়েকটি গেট।
তিস্তায় হঠাৎ করে পানি বেড়ে যাওয়ায় পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম, হাতীবান্ধা উপজেলার সানিয়াজান, গড্ডিমারী ও সিন্দুর্ণা ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল ইতোমধ্যে প্লাবিত হয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, ব্যারাজ এলাকায় পানির বিপদসীমা মাত্রা ধরা হয়েছে ৫২ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার। সেখানে গত সোমবার তিস্তায় ৫২ দশমিক ৩৫ সেন্টিমিটার উচ্চতায় পানি প্রবাহিত হতে থাকে। মঙ্গলবার বিকালে তা আরও বেড়ে ৫২ দশমিক ৫২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।
এ বিষয়ে পাটগ্রাম উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা (পিআইও) উত্তম কুমার নন্দি গণমাধ্যমকে বলেন, আমি খবর পেয়ে দহগ্রামে গিয়েছিলাম। সেখানে কিছু লোকের উঠানে বৃষ্টির পানি উঠেছিল। তবে মঙ্গলবার দুপুরের পরেই তা নেমে গেছে।
পাটগ্রামের ইউএনও আবদুল করিম বলেন, নদীর পানি একটু বেড়েছিল। তবে তা লোকজনের বাড়ি পর্যন্ত আসেনি। ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, উজানের ঢলে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।
আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আসাদুজ্জামান বলেন, পানিবন্দি পরিবারের খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft