বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
সারাদেশ
পাবনায় ছাত্রদল সভাপতির সম্পত্তি নিলামে
পাবনা প্রতিনিধি :
Published : Thursday, 20 June, 2019 at 4:43 PM
পাবনায় ছাত্রদল সভাপতির সম্পত্তি নিলামেপাবনার ঈশ্বরদী উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ইমরুল কায়েস সুমনের জমি, বাড়ি ও ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান নিলামে উঠছে। সাউথইস্ট ব্যাংকের ঈশ্বরদী শাখা থেকে প্রায় আট কোটি টাকা ঋণ এবং আরো ব্যাংক ও বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে আরও ৪ কোটি টাকাসহ মোট ১২ কোটি টাকা নিয়ে উধাও হওয়ার ঘটনায় তার বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।
সুমন ঈশ্বরদী উপজেলার রহিমপুর গ্রামের আব্দুল মুহিত বিশ্বাস এর ছেলে। তিনি দেশের অন্যতম বৃহত্তম মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানী ইউনিলভার লিঃ, বিকাশ লিঃ, গ্রামীণ ফোন, রবি'র ঈশ্বরদীর পরিবেশক।
সক্রিয়ভাবে বিএনপির রাজনীতি করার পাশাপাশি সুমন স’মিলসহ একাধিক ব্যবসা পরিচালনা করতেন। সাউথ ইষ্ট ব্যাংক ছাড়াও সুমনের লঙ্কা বাংলা ব্যাংকে এক কোটি টাকা ও মিউচুয়্যাল ট্রাষ্ট ব্যাংকে ৩০ লক্ষ টাকার সিসি লোন রয়েছে। এ ছাড়া আরো বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে সুমনের দেনা রয়েছে। সে টাকার পরিমাণ আরও প্রায় ৪ কোটি টাকা বলে সংশ্লিষ্টরা পুলিশকে জানিয়েছেন।
চলতি বছরের ১১ এপ্রিল সাউথ ইস্ট ব্যাংকের ঈশ্বরদী শাখা থেকে ক্যাশ ক্রেডিট লোন (সিসি) লিমিটের অতিরিক্ত ২ কোটি ২৩ লাখ টাকা উঠিয়ে নেয়ার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন সুমন। এ ঘটনায় ১১ এপ্রিল রাতেই সাউথ ইস্ট ব্যাংক ঈশ্বরদী শাখার ম্যানেজার মোস্তাক আহমেদ বাদী হয়ে অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারনার একটি মামলা করেছিলেন।
সাউথইস্ট ব্যাংক ঈশ্বরদী শাখার ম্যানেজার মনসুর আহমেদ বলেন, ব্যাংকের কাছে জামানত রাখা সুমনের ১২৮ দশমিক ৯৭ শতক জমিসহ তার বাড়ি, স’মিল, ভিটা, বাণিজ্যিক ভবনসহ যাবতীয় সমস্ত সম্পতি নিলামে বিক্রির প্রাথমিক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। চলতি সপ্তাহের মধ্যেই নিয়ম অনুযায়ী চূড়ান্ত কার্যক্রমে যাবে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।
তিনি বলেন, সুমন ব্যবসা পরিচালনার জন্য সাউথইস্ট ব্যাংকের ঈশ্বরদী শাখা থেকে করাতকল, বিকাশ ও ইউনিলিভারের ব্যবসা, পৌরসভার ঠিকাদারি কাজ পরিচালনাসহ নানা প্রয়োজনে বিভিন্ন সময়ে প্রায় আট কোটি টাকা ঋণ নেন। এছাড়া গত ১১ এপ্রিল সাউথইস্ট ব্যাংক ঈশ্বরদী শাখার তৎকালীন ম্যানেজার মোস্তাক আহমেদের কাছ থেকে দুই কোটি ১৫ লাখ টাকা নগদ গ্রহণ করেন সুমন।
এসব টাকা ওই দিন বিকেলেই ফেরত দিয়ে ঋণ সমন্বয়ের কথা ছিল। তবে সন্ধ্যা পর্যন্ত টাকা জমা না হওয়ায় সুমনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। তার দুটি মোবাইল ফোন নম্বরই বন্ধ পাওয়ায় ম্যানেজার মোস্তাক আহমেদের সন্দেহ হয়। তিনি তার বাড়িসহ সম্ভাব্য সব স্থানে খোঁজ করেও সুমনের কোনো হদিস পাননি। পরে তিনি বাদী হয়ে ঈশ্বরদী থানায় ওই দিন রাতেই সুমনকে আসামি করে একটি মামলা করেন।
তিনি আরও জানান, ইতিামধ্যে ব্যাংকের টাকা খোয়া যাওয়ায় সাউথইস্ট ব্যাংকের ঈশ্বরদী শাখার তৎকালীন ম্যানেজার মোস্তাক আহমেদসহ চার কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন।
ঈশ্বরদীর ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ‘ড্যাফোডিলস’র মালিক আবদুল মান্নান টিপু বলেন, উধাও হওয়ার আগে আমাকে চেক দিয়ে নগদ ২০ লাখ টাকা ধার নিয়েছিলেন সুমন। এ ব্যাপারে ডিড ডকুমেন্ট আছে। এ ঘটনায় আদালতের মাধ্যমে তাকে উকিল নোটিশ পাঠিয়েছি আমি।
স্থানীয় সূত্র জানায়, ঈশ্বরদী উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি ব্যবসায়ী ইমরুল কায়েস সুমনকে (৪০) গত ১১ এপ্রিল থেকে এখন পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া যায়নি। তিনি কোথায় আছেন জানে না তার পরিবার।
বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে সাউথইস্ট ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানায়, ব্যাংক থেকে টাকা নেয়ার পর সুমন প্রথমে ভারতে এবং পরে মালয়েশিয়া অথবা অন্য কোনো দেশে পালিয়ে গেছেন।
সুমনের বাবা ঈশ্বরদী উপজেলার রহিমপুর গ্রামের আব্দুল মুহিত বিশ্বাস বলেন, তার ছেলে অনেক বড় ব্যবসায়ী। এ টাকা নিয়ে সে কেন পালাবে? এর পেছনে অন্য কোনো কারণ থাকতে পারে।
পাবনা জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান প্রিন্স বলেন, ব্যবসায়িক কারণে এই ঘটনা। এর সঙ্গে ছাত্রদলের কোন সম্পর্ক নেই।
ঈশ্বরদী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দিন ফারুকী বলেন, ব্যাংক থেকে বিভিন্ন সময় নেয়া ঋণ এবং নগদ টাকা নিয়ে নিরুদ্দেশ হওয়ার ঘটনায় সুমনের নামে দুটি মামলা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে প্রায় ১২ কোটি টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ রয়েছে।




আরও খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft