রবিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৯
শিক্ষা বার্তা
শরীয়তপুরের সখিপুরে কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের পায়তারার অভিযোগ
ভেদরগঞ্জ (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি :
Published : Friday, 21 June, 2019 at 8:16 PM
শরীয়তপুরের সখিপুরে কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের পায়তারার অভিযোগ শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন করে প্রভাবশালীরা নূতন নামকরনের পায়তার করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে। এছাড়া পরিচালনা কমিটির সদস্য ও প্রধান শিক্ষককে নানা রকম চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়টি ১৯৯৭ সালে সাবেক এমপি, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী, ব্যবসায়ী, শরীয়তপুর জেলা বিএনপি’র সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সদস্য আলহাজ্ব মোঃ শফিকুর রহমান কিরন প্রতিষ্ঠা করেছেন। তিনি এ স্কুলের নামে দেড় একর জমি দান করেছেন। ২০০৪ সালে বিদ্যালয়টি এমপিও ভুক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে বিদ্যালয়ে মোট ৮৫০ জন ছাত্র/ছাত্রী রয়েছে। এ বিশাল শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে ১৫জন শিক্ষক। বিদ্যালয়টি পরিচালন পর্ষদে রয়েছে ১২জন সদস্য। বর্তমানে বিদ্যালয়ের লেখা পড়ার মান খুবই ভালো। এমতবস্থায় বিদ্যালয়ের নাম কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের পরিবর্তে দক্ষিন তারাবুনিয়া উচ্চবিদ্যালয় নামকরনের জন্য দক্ষিন তারাবুনিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা শাহজালাল মাল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ঢাকাতে আবেদন করেছেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে গত ১৫ জুন ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থেকে সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন পরিদর্শনে আসেন। বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনে সহায়তা করার জন্য বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদসহ প্রধান শিক্ষককে চাপ প্রয়োগ করছেন বলে পরিচালনা কমিটির সদস্য ও  প্রধান শিক্ষকসহ অন্যান্য শিক্ষকগণ অভিযোগ করেন। তারা আরো অভিযোগ করেন প্রভাবশালীরা পরিচালনা বোর্ডের সদস্যদের বাড়ি-বাড়ি গিয়ে তাদেরকে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। তাদেরকে বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের রেজুলেশন করে স্বাক্ষর দেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে।
একইভাবে গত জানুয়ারী মাসে বিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন করার জন্য ভেদরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ৫৮তম সাধারন সভায় আওয়ামীলীগ নেতা, কাচিকাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হাসেম দেওয়ান ও সখিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান মানিক সরদারের এক প্রস্তাবের আলোকে উপজেলা পরিষদ ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলীকে আহবায়ক করে ৭ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটির সদস্যগন বিদ্যালয়ের যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করে নীতিমালা অনুযায়ী উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের সিদ্ধান্তের জন্য সুপারিশ করেন। এ বিদ্যালয়টিও প্রতিষ্ঠা করেছেন সফিকুর রহমান কিরন। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠাকালীন সরকারের সকল নিয়ম নীতি মেনে বেসরকারী বিদ্যালয় নীতিমালা অনুসরন করেই এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এমতবস্থায় বিদ্যালয়টির নাম পরিবর্তন করা অনিয়ম ও বিধি বর্হিভুত। প্রধান শিক্ষক মোঃ আবুল ফজল এ বিষয়ে ভেদরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ভেদরগঞ্জকে অবহিত করেছেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুরো বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রী ও শিক্ষকসহ পরিচালনা বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে চরম আতংক বিরাজ করছে। ২২ জুন বিদ্যালয়ের প্রথম সাময়িক পরীক্ষার সিডিউল পর্যন্ত তাদেরকে জানতে দেয়া হচ্ছেনা। ছাত্র/ছাত্রীরা দ্বিধাদ্বন্দে আছে আদৌ পরীক্ষা হবে কিনা। পরীক্ষা হলেই বা বিদ্যালয়ের কোন নামে পরীক্ষা হবে। আরও জানা যায়, একই ক্যম্পাসে ১৩১ নং কিরন নগর আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।
উল্লেখ, এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় সদস্য ও জেলার সভাপতি আলহাজ্ব শফিকুর রহমান কিরন বিএনপি’র প্রার্থী হিসেবে শরীয়তপুর-২ (নড়িয়া-সখিপুর) আসনে নির্বাচন করেছেন। আর উক্ত আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি একেএম এনামুল হক শামীম বিজয়ী হয়েছেন। তিনি এখন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী।
এ ব্যাপারে নামপ্রকাশ না করার শেের্ত স্থানীয় অনেকেই বলেন, সখিপুরের দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নে বিএনপি’র লোক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয় ও ১৩১ নং কিরন নগর আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়) প্রতিষ্ঠা করায়; নাম পরিবর্তন করতে চায় আওয়ামীলীগের লোকেরা। এর চেয়ে বেশী কিছু আমরা বলতে পারবো না।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের অভিভাবক সদস্য মোঃ হানিফ চোকদার বলেন, আমাদের বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের জন্য আমাদেরকে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। আমরা স্বাক্ষর না দেয়াতে আমাদেরকে হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে। আমরা চাই কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের নাম অপরবর্র্তিত থাকুক।  
এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক আবুল ফজল বলেন, বিধি বর্হিভুত আমাদের বিদ্যালয়ের নাম কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের পরিবর্তে দক্ষিন তরাবুনিয়া উচ্চবিদ্যালয় নামকরন করার জন্য প্রভাবশালীরা পায়তারা করছেন। আমরা রাজি হইনি। এ কারনে আমাদেরকে চাপ প্রযোগ করা হচ্ছে। আমি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ভেদরগঞ্জকে অবহিত করছি। বিদ্যালয়ের সাথে জড়িত নয় এমন লোকের আবেদনের কারণে ঢাকা বোর্ড থেকে নাম পরিবর্তনের বিষয়ে পরিদর্শন করা হয়েছে। আমরা সবাই আতংকে আছি।
এ ব্যাপারে দক্ষিন তারাবুনিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শাহজালাল মালকে তার মুঠো ফোনে ফোন করা হলে তিনি প্রথমে ধরে একটু পরে কথা বলছি বলে আর ২য় বার ফোন রিসিভ করেন নি।  
কিরন নগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান কিরন বলেন, এলাকার মানুষের দাবীতে আমি ১৯৯৭ সালে একটি প্রাথমিক ও একটি মাধ্যমিক দ্যিালয় প্রতিষ্ঠা করেছি। প্রাথমিক বিদ্যালয়টি সরকারী করন করা হয়েছে। মাধ্যমিক দ্যিালয়টি এমপিও ভুক্ত করা হয়েছে। এমতবস্থায় প্রভাবশালীরা বিদ্যালয়ের নাম বিধি বর্হিভুতভাবে পরিবর্তন করতে পায়তারা করছে। অমি এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই।
এ ব্যাপারে ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আকতার হোসেন বলেন ভেদরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ৫৮তম সাধারন সভায় দুইজন চেয়ারম্যানের প্রস্তাবের কারণে কিরণনগর আদর্শ উচ্চবিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের জন্য তদন্ত কমিটিতে আমাকে আহবায়ক করা হয়। আমি সদস্যদের নিয়ে বিদ্যালয়ের তথ্য সংগ্রহ করে নীতিমালার আলোকে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের জন্য প্রতিবেদন দাখিল করেছি।
ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সাব্বির হোসেন বলেন, বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন করার জন্য স্থানীয় লোকজন আমাকে জানিয়েছে। যার জন্য আমি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। তবে শিক্ষকরা আতংকে বা চাপের মুখে আছে তা আমাকে জানায় নি। আমি যতদুর শুনেছি ঢাকা বোর্ড থেকে বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের ব্যাপারে তদন্ত করতে লোক আস ছিলেন। তদন্ত কর্মকর্তা আমার সাথে কোন যোগাযোগ করেন নি। নাম পরিবর্তন করার বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের ব্যাপার।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft