রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
জাতীয়
‘সিগারেটে ‍সুবিধা দিয়ে বিড়িকে বঞ্চিত করা ঠিক না’
কাগজ ডেস্ক :
Published : Tuesday, 25 June, 2019 at 7:11 PM
‘সিগারেটে ‍সুবিধা দিয়ে বিড়িকে বঞ্চিত করা ঠিক না’সিগারেটকে ‍সুবিধা দিয়ে বিড়িকে বঞ্চিত করা ঠিক হবে না মন্তব্য করে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, আমি জানি বিড়ি-তামাক খাওয়া মানুষের মৃত্যুর কারণ। কিন্তু সিগারেটকে ট্যাক্স সুবিধা দিয়ে বিড়িকে বঞ্চিত করা ঠিক হবে না।
মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে একথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী।
এদিন বিকেল ৩টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে দিনের কার্যসূচি শুরু হয়।
টিপু মুনশি বলেন, আমার এলাকাতেই (রংপুরে) প্রায় ৫০-৬০ হাজার বিড়ি শ্রমিক কাজ করে। তাদের বিকল্প চাকরির একটা ব্যবস্থা না করে তাদের সরিয়ে দিলে তারা বাঁচবে কী করে? পাশাপাশি সিগারেটে ট্যাক্স সুবিধা দিয়ে বিড়িকে বঞ্চিত করা ঠিক হবে না।
বাজেটে পোশাক খাতে ভর্তুকি ১ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২ শতাংশ করার প্রস্তাব দিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা সঠিক পথেই এগুচ্ছি। সবক্ষেত্রে আমরা এগিয়েছি। আগামী ৫ বছর পর এই সংসদে ১০ লাখ কোটি টাকার বাজেট করতে পারব বলে মনে করি।
তিনি বলেন, বিনিয়োগ ২০০৫-০৬ সালে যে অবস্থা ছিল সেটার প্রায় সাড়ে ৩ গুণ অর্থাৎ ৩৫০ শতাংশ বৃদ্ধি হয়েছে। চলতি অর্থবছরে রফতানি আয় ৩৩ বিলিয়ন, এবার হয়তো ৪০ বিলিয়ন ডলার রফতানি করতে পারব। আমাদের টার্গেট ২০২১ সালে ৬০ বিলিয়ন ডলার রফতানি।
বর্তমান সরকারের আমলে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যেই রয়েছে জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, গত রমজান মাসে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকায় অনেকে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।
টিপু মুনশি বলেন, প্রধানমন্ত্রী সাহসী মানুষ। তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ধারণ করে দেশটাকে স্বপ্নের সোনার বাংলা করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। সেই লক্ষ্যে আমাদের কাজ করতে হবে। উন্নয়ন দৃশ্যমান।
কালো টাকা সাদা করার বিষয়ে তিনি বলেন, কালোটাকা কথাটা ঠিক না। এটা অপ্রদর্শিত অর্থ বলা সঠিক। আমরা মনে করি অপ্রদর্শিত অর্থকে সুযোগ দিলে নতুন করে বিনিয়োগ বাড়বে। কালো টাকা ব্যবসায় বিনিয়োগের সুযোগ না দিলে যেকোন উপায়ে ওই টাকা দেশ থেকে বের হয়ে যাবে।
পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেন, বাজেটে বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যাপারে টিন (টিআইএন) নম্বর বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব করা হয়েছে। এটা পুনর্বিবেচনায় আনার দাবি জানাচ্ছি।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft