মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
আইনশৃংখলার অবনতিতে ডিসি-এসপিকে স্মারক
যশোরে জুয়েলারিতে চুরির ঘটনায় স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতংক
দেওয়ান মোর্শেদ আলম :
Published : Monday, 1 July, 2019 at 6:17 AM
  
যশোরে জুয়েলারিতে চুরির ঘটনায় স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতংকযশোর কোতোয়ালী থানা প্রাচীরের সাড়ে ৯ গজের মধ্যে অভিনব স্টাইলে প্রিয়াঙ্গণ জুয়েলার্সে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনায় আতংক বিরাজ করছে গোটা স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের মধ্যে। দিনে-দুপুরে ওই চুরির ঘটনায় আইন শৃংখলার চরম অবনতি দাবি করাসহ নিরাপত্তাহীন মনে করছেন যশোরের জুয়েলারী ব্যবসায়ীরা। কখন কার প্রতিষ্ঠান টার্গেটে পড়ে এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ।
নাগরিকের জানমালের নিরাপত্তার দাবিতে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি যশোর জেলা শাখা পরিস্থিতির ব্যাখ্যা দিয়ে যশোরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন ৩০ জুন। তারা প্রিয়াঙ্গণ জুয়েলার্সের চুরি যাওয়া সোনা উদ্ধার ও ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত আটক দাবি করেছেন।
২৭ জুন বিকেল ৩টা ৫২ মিনিটে ত্রিপল টাঙিয়ে যশোর কোতোয়ালী থানা মোড়ের প্রিয়াঙ্গণ জুয়েলার্সে বড় ধরনের চুরি হয়। সংঘবদ্ধ চোর চক্রটি ৩টা ৫২ মিনিটে ঢুকে ৮ মিনিট পর বিকেল ৪টা ১ মিনিটে বেরিয়ে আসে। আর বিনা বাধায় ব্যাগে করে স্বর্ণ ও স্বর্ণালংকার নিয়ে চলে যায়। চুরির ঘটনার দিন থেকেই বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি যশোরের নেতৃবৃন্দসহ সব জুয়েলারী দোকানী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে দ্রুত ঘটনায় জড়িতদের সনাক্ত করে আটক দাবি করে আসছেন। জুয়েলার্স থেকে চুরি যাওয়া ৪৭ ভরি ১২ আনা সোনার গহনা ও নগদ আড়াই লাখ টাকা উদ্ধারের ব্যাপারে তাদের একাট্টা দাবি পুলিশ প্রশাসনের কাছে।
এদিকে, থানার পাশে জনবহুল এলাকায় দুর্ধর্ষ এ চুরির ঘটনায় থানা পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে জানিয়েছেন আতংকের কথা। বাংলাদেশ জুয়েলারী সমিতি যশোরের সভাপতি রকিবুল ইসলাম চৌধুরী সঞ্জয়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মীর মোশররফ হোসেন বাবু ও সমিতির বর্ষীয়াণ নেতা কুমার সঞ্জয় চন্দ্র ভজন গ্রামের কাগজকে জানিয়েছেন, বিগত সময়ে আরও কয়েকটি জুয়েলারীতে চুরি হয়। বাণী জুয়েলারীতে ডাকাতি হয়। থানা এলাকায় জুয়েলারী প্রতিষ্ঠান হলেও বার বার দুস্কৃতকারীদের কবলে পড়ছে। আর থানার একেবারে গায়ে প্রিয়াঙ্গণ জুয়েলার্সে চুরির ঘটনা খুবই দুঃখজনক। গোটা স্বর্ণালংকার ব্যবসায়ীরা এখন আতংকের মধ্যে পড়ছে। ৩০ জুন যশোরের জুয়েলারী ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বললে কেউ কেউ জানান, থানা মোড়ের চুড়িপট্টির মুখে অনাকাঙ্খিতভাবে ফুটপাথে অস্থায়ী দোকান বসানো হয়েছে। একটি চক্র বিশেষ সুবিধা নিয়ে ফুটপাথে জনচলাচলে বিঘœ ঘটাচ্ছে। আবার ওই সব হঠাৎ ব্যবসায়ী ও ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীরা স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তা বিঘিœত করছে।
বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি যশোর জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলপি দিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন, বর্তমান প্রেক্ষিতে আইনশৃংখলার অবনতি পরিলক্ষিত হচ্ছে। স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা আতংকের মধ্যে সময় কাটাচ্ছেন। আইনশৃংখলার এই উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ব্যবসা করা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী মানুষের জানমালের নিরাপত্তার দায়িত্ব সরকারের উল্লেখ করে স্বর্ণ ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ পরিস্থিতি উত্তোরণের দাবি জানিয়েছেন। একইসাথে দ্রুততম সময়ের মধ্যে চোর আটক ও চুরি যাওয়া সোনা উদ্ধারের দাবি জানিয়েছেন।
প্রিয়াঙ্গণ জুয়েলার্সের মালিক ভুক্তভোগী অমিত রায় আনন্দ জানিয়েছেন, সোনা ব্যবসার সাথে জড়িত এবং তার দোকান সম্পর্কে জানে এমন লোক এই চুরিতে জড়িত রয়েছে। কেননা দোকান থেকে ব্রঞ্জ মিকচার বা গালা দিয়ে তৈরী কোনো গহনা চুরি যায়নি। পুরো সোনা দিয়ে তৈরী গহনাগুলোই নিয়ে গেছে। আর একটি ড্রয়ারে ২ হাজার টাকা ছিল, সে ড্রয়ারেও হাত দেয়া হয়নি। যে ড্রয়ারে আড়াই লাখ টাকা ছিল সেখান থেকে ওই নগদ টাকাগুলো নিয়েছে। তিনি এ ব্যাপারে বর্তমানের তদন্তকারী ইউনিট যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবির প্রতি আহবান জানিয়েছেন তার পাশে আন্তরিকভাবে দাঁড়াতে। তার সোনা উদ্ধারে সচেষ্ট থাকতে। তিনি পথে বসে গেছেন। যারা গহনা ওয়াডার দিয়েছিলেন তাদের চাপের মুখেও রয়েছেন তিনি।
যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ মারুফ আহমেদ গ্রামের কাগজকে জানিয়েছেন, মামলাটি সবেমাত্র হস্তান্তর হয়েছে গোয়েন্দা শাখায়। এরমধ্যে সন্তোষজনক অগ্রগতি হয়েছে। যশোরে সোনা ব্যবসার সাথে জড়িত কয়েকজন নজরদারিতে আছে। দোকান মালিক অমিত রায়ের দোকানে বেশি বেশি আসা যাওয়া করত এমন কয়েকজনের গতিবিধির উপর নজর রাখা হচ্ছে। সর্বোপরি চোরাই সোনা বিকিকিনি সিন্ডিকেট এবং দাগী সোনা চোরদের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা চলছে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft