বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
ক্রীড়া সংবাদ
আজ বাংলাদেশের বাঁচা মরার লড়াই
টাইগারদের প্রতিপক্ষ ভারত
আবুল বাসার মুকুল :
Published : Tuesday, 2 July, 2019 at 6:10 AM
আজ বাংলাদেশের বাঁচা মরার লড়াই ভারতের বিপক্ষে আজ বাংলাদেশের অতি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। সেমিফাইনালের দৌড়ে টিকে থাকতে হলে জিততেই হবে। জয় ছাড়া পথ নেই টাইগারদের। পুরো দেশ তাকিয়ে এখন বার্মিংহামের এজবাস্টনের দিকে। বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় ম্যাচটি শুরু হবে।   
ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত সামর্থ, মেধা, যোগ্যতা, অর্জন, কৃতিত্ব ও পারফরমেন্সের আলোকে ব্যাখ্যা করলে ভারত এগিয়ে। এ মুহূর্তে বিশ্ব ক্রিকেটেরও অন্যতম দুই সেরা ও সফল টপ অর্ডার। রয়েছে ধারালো বোলিং লাইন আপ। এমন শক্তিকে হারানো সহজ কাজ নয়। কিন্তু না হারালেও চলবে না টাইগার বাহিনীকে। কারণ হারলেই নিজেদের বিদায়।
বিশ্বকাপের শেষ দিকে এসে অনেক কিন্তুর সমীকরণে পড়ে গেছে বাংলাদেশ। অথচ এত কিছুই করার প্রয়োজন হতো না, কেননা মাশরাফিরা নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতলে বা সহজ প্রতিপক্ষ পেয়েও ভাগ্য খারাপ হওয়ায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেসে না যেত। ভারত অনেকটা ইচ্ছাকৃত ভাবে ইংল্যান্ডের কাছে হেরে যাওয়ায় বাংলাদেশের জন্য সমীকরণটা আরো জটিল হয়ে পড়েছে। ফলে পরের দুটি ম্যাচ জিতলেই হবে না, নেট রান রেটও বাড়াতে হবে সাকিব-মুশফিকদের।
আসরে টাইগারদের এখনো বাকি রয়েছে দুটি ম্যাচ। যেখানে প্রতিবেশী দেশ ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে লড়বে দলটি। আজ মঙ্গলবার এজবাস্টনে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় ভারতে মুখোমুখি হবে টাইগাররা। আর ৫ জুলাই পাকিস্তানের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশ।
বর্তমানে ৭ ম্যাচে সমান ৭ পয়েন্ট পাওয়া বাংলাদেশ পরের দুটি ম্যাচ জিতলে ১১ পয়েন্ট হবে। তালিকায় লাল-সবুজদের বর্তমান অবস্থান ৬ নম্বরে। কিন্তু ইংল্যান্ডের এক ম্যাচ হাতে রেখে পয়েন্ট ১০। তাদের অবস্থান চারে। সুতরাং বাংলাদেশের শেষ দুটি ম্যাচে জিতলেই চলবে না প্রার্থনা করতে হবে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ইংলিশদের হার। বাংলাদেশকে সেমিতে উঠতে ভারত ও পাকিস্তানকে হারানোর পাশাপাশি নেট রান রেটের দিকে নজর রাখতে হবে।
মজার একটি বিষয় রয়েছে। তা হলো বিরাট কোহলিরা নিজেদের শেষ দুটি ম্যাচে হেরে গেলে আসর থেকে বাদ পড়তে পারে তারাও।
মাশরাফি বলেন, চেষ্টা থাকবে বিশ্বকাপে শেষ বার ভারতের বিপক্ষে ম্যাচকে স্মরণীয় সাফল্যে গেঁথে রাখতে। প্রেস কনফারেন্স শেষে বেরিয়ে যাবার সময় হল ভর্তি দেশি-বিদেশি সাংবাদিকের সামনেও খানিক আবেগতাড়িত মাশরাফি বললেন, আই ওয়াজ ওয়েটিং ফর দ্যাট কোশ্চেন ফ্রম ইউ।
কন্ঠে একটু আবেগ থাকলেও কথা ও ব্যাখ্যায় কোনই আবেগ টাবেগ নেই। একদম অন্যরকম এক অনুভূতি।  আমি নিজের ব্যক্তিগত মাইলফলক বা সাফল্যের কথা ভাবতে চাই না। অনেক হিসেব নিকেশের ম্যাচেও আমাকেই জয়ের নায়ক হতে হবে, এমন ভাবতে চাই না। আমি চাই আমার দল জিতুক। আমরা সফল হই। দল জিতলে যে কেউ ম্যাচ জয়ের নায়ক হলেই আমি খুশি। তবে এখন সে যেমন ফর্মের চূড়ায় আছে, তাতে সাকিবই হতে পারে আমাদের জয়ের নায়ক। সাকিব যদি আজ জয়ের নায়ক হয়, সেটাই হবে অনেক বেশি ভাললাগার ও আনন্দের।
১৯৯৯ সাল থেকে বিশ্বকাপ খেলছে বাংলাদেশ। কিন্তু ২০১১ থেকে ২০১৫ বিশ্বকাপ পর্যন্ত সবশেষ তিন আসরের তিনটিতেই ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের দেখা হয়েছে।
২০০৭ বিশ্বকাপে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রথম দেখা হয় গ্রুপ পর্বে। ওয়েস্ট ইন্ডিজে আয়োজিত এই বিশ্বকাপের ‘বি’ গ্রুপে ভারত, শ্রীলঙ্কা ও বারমুডার সঙ্গে পড়েছিল বাংলাদেশ। টাইগাররা তাদের প্রথম ম্যাচেই ১৭ মার্চ ভারতের মুখোমুখি হয়। প্রথম দেখাতেই ভারতকে চমকে দেয় বাংলাদেশ। তারুণ্যদীপ্ত মাশরাফি, তামিম, সাকিব, মুশফিকের দৃঢ়তায় তুলে নেয় এক মহাকাব্যিক জয়। ম্যাচ সেরা হয়েছিলেন মাশরাফি।
২০১১ বিশ্বকাপের সহ-আয়োজক ছিল বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচেই মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ-ভারত। আগের বিশ্বকাপে টাইগারদের কাছে হার মানায় এই বিশ্বকাপে ভারত ছিল বেশ সতর্ক। এ ম্যাচে ভারত জয় পেয়েছিলো ৮৭ রানে। ম্যাচ সেরা হয়েছিলেন বীরেন্দ্র শেবাগ।
২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের সঙ্গে দেখা হয় বাংলাদেশের। এ ম্যাচেও ১০৯ রানে জয় পায় প্রতিবেশী রাষ্ট্রটি। ম্যাচসেরা হয়েছিলেন রোহিত শর্মা।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft