রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
স্টেডিয়ামপাড়ার মামুন গং বেপরোয়া
মাদক সিন্ডিকেট পরিচালনাসহ সন্ত্রাসী তৎপরতার অভিযোগ
কাগজ সংবাদ :
Published : Friday, 19 July, 2019 at 6:03 AM
মাদক সিন্ডিকেট পরিচালনাসহ সন্ত্রাসী তৎপরতার অভিযোগমাদক ও বিষ্ফোরকসহ একাধিক মামলার আসামি যশোরের স্টেডিয়ামপাড়ার আলোচিত মামুন সিন্ডিকেট এখন বেপরোয়া স্টাইলে মাদক কারবার চালিয়ে যাচ্ছে। অমিত নামে আরও এক সহযোগী ওই কারবারে শামিল। চক্রটি দীর্ঘদিন স্টেডিয়ামপাড়ার মানুষকে জিম্মি করে চাঁদাবাজি চালিয়ে আসছে বলেও অভিযোগকারীদের দাবি।
স্থানীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছে, স্টেডিয়ামপাড়া এলাকার আব্দুল হকের ছেলে মামুনের নেতৃত্বে চলা একটি সন্ত্রাসী চক্র এলাকায় অবাধে চাঁদাবাজি, মাদকের কারাবার চালাচ্ছে। এলাকার বিভিন্ন মেস থেকে চাঁদা আদায় করে চক্রটি। তাদের দখলে আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে বলেও অভিযোগ। সম্প্রতি মামুন স্থানীয় সোহলদের মেসে হামলা চালিয়ে রাজু নামে এক ছাত্রকে তুলে নিয়ে যায়। তার কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা আদায় করে বলেও সূত্রের দাবি।
এলাকাবাসীর অভিযোগে জানা যায়, স্টেডিয়াম ও তার আশপাশে ভ্রাম্যমাণ ডেরা খুলে চলছে মামুন সিন্ডিকেটের ইয়াবা কারবার। বেনাপোল সীমান্তের একটি মাদক সিন্ডিকেটের সাথে সখ্য করে মাদক আনছে চক্রটি। তার এক ভাই পুলিশের খুবই কাছের লোক বলে প্রচার করে মামুন। যদিও ওই ভাইয়ের নামেও থানায় রয়েছে আরও দুটি মামলা। সেই সুবাদে পুলিশের সাথে সখ্য রয়েছে প্রচার করে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে। তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়না।
এলাকার অপর একটি সূত্রের দাবি, এর আগে এলাকার ডাক্তার আহামেদুল্লা তোহার বাড়ি জোর করে দখল করে সেখানে নানা অপকর্ম চালিয়েছে মামুন গং। ওই সময় এলাকাবাসী পুলিশ সুপারের কাছে আবদেন করে মামুন ও তার সহযোগী সোহাগ ও ছোটকে দ্রুত আটক দাবি জানিয়ে। তাদের বিরুদ্ধে ২৫টি সুনিদিষ্ট অভিযোগ দিয়েছিল এলাকাবাসী। অভিযোগগুলোর মধ্যে ছিল এলাকায় অস্ত্র ও মাদকের ব্যবসা, এলাকার ভাড়াটিয়াদের কাছ থেকে চাঁদা আদায়, স্টেডিয়ামপাড়ার মাহতাবের কাছ থেকে প্রতি মাসে চাঁদা আদায়, জর্জ কোর্টের মহুরী রেজাউলের কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকা চাঁদা আদায়, ব্যব্যবসায়ী আতিয়ার রহমানের কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকা আদায়, স্কুল শিক্ষিকা রিমির কাছ থেকে ২৮ হাজার টাকা চাঁদা আদায়।
মামুনের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ সে একবার এলাকার ব্যবসায়ী মাসুমকে হত্যার জন্য পিস্তল নিয়ে তাড়া করে। স্টেডিয়ামের নাইটগার্ড খোকনের কাছ থেকে চাঁদা আদায়, মৎস্য ব্যবসায়ী ফেরদৌস আহমেদ বাবুর কাছ থেকে দু’লাখ টাকা চাঁদা আদায়, বই বিক্রেতা রাজুর কাছ থেকে আট হাজার টাকা চাঁদা আদায়, কৃষি ব্যাংক কর্মকর্তা শেখ শফিউরের কাছ থেকে চাঁদা না পেয়ে তার জমিতে মাটি ফেলতে বাধা দেয়াসহ ছিল নানা অভিযোগ।
আবারও সমূর্তিতে ফিরে মাদক ব্যবসা করছে অভিযোগ তুলে এলাকাবাসী দ্রুত আটক দাবি করেছেন একাধিক মামলার আসামি মামুনসহ তার লোকজনকে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft