রবিবার, ৩১ মে, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
কু‌ষ্টিয়ায় ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনি, আটক ৩৪
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি :
Published : Tuesday, 23 July, 2019 at 4:37 PM
কু‌ষ্টিয়ায় ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনি, আটক ৩৪ছেলেধরা সন্দেহে এক‌দি‌নে কুষ্টিয়ায় ৪ জন গণপিটুনির শিকার হয়েছেন। এদের মধ্যে তিনজন রয়েছে মানসিক ভারসাম্যহীন। সবাইকে পুলিশ গণপিটুনি দেওয়ার সময় উদ্ধার করেছে। সোমবার (২২ জুলাই) জেলার তিনস্থা‌নে এই গণ‌পিটু‌নির ঘটনা ঘ‌টে।
এসব ঘটনায় দৌলতপুর ও কু‌ষ্টিয়া ম‌ডেল থানায় পৃথক দু‌টি মামলা দা‌য়ের হ‌য়ে‌ছে। মামলায় আসামি করা হ‌য়ে‌ছে প্রায় ৪৫০ জন‌কে। এ ঘটনায় পু‌লিশ অ‌ভিযান চা‌লি‌য়ে ৩৪ জন‌কে আটক করেছে। মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) দুপু‌রে আটককৃত‌দের জেল হাজ‌তে পা‌ঠা‌নো হ‌য়ে‌ছে।
‌কু‌ষ্টিয়ার পু‌লিশ ক‌ন্ট্রোলরুম থে‌কে এই তথ্য নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছে।
এ‌দি‌কে গণ‌পিটু‌নি দি‌য়ে মানুষ হত্যা ফৌজদারী অপরাধ সতর্ক বার্তা দি‌য়ে ছে‌লেধরা গুজ‌বে কান না দি‌য়ে কাউ‌কে স‌ন্দেহ হ‌লে পু‌লিশ‌কে জানা‌তে অনুরোধ ক‌রে প্র‌ত্যেক‌টি থানায় আগে থে‌কেই গণ‌বিজ্ঞ‌প্তি দি‌য়ে‌ছেন পু‌লিশ সুপার এস,এম তানভীর আরাফাত। স্থানীয় সংবা‌দপত্রগু‌লো‌তেও জনস‌চেতনায় এ ব্যাপা‌রে গণ‌বিজ্ঞ‌প্তি ও প্রকাশ করা হয়। জানা গে‌ছে, সোমবার (২২ জুলাই) সকালে জেলার দৌলতপুরে শিতলাইপাড়া এলাকায় জামাই বাড়িতে চি‌কিৎসার জন্য আসা হাসিনা বেগম (৬০) নামে এক মানসিক ভারসাম্যহীন নারীকে ছেলেধরা সন্দেহে পেটায় এলাকাবাসী। ওই নারীর বাড়ি ময়মনসিংহ জেলায়। মারপিটের পর পুলিশ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে স্বজনদের কাছে তাকে হস্তান্তর করেছে।
‌দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত(ও‌সি) আযম খান ব‌লেন, এ ঘটনায় ওই নারীর জামাই র‌নি দৌলতপুর থানায় ২৫০ জন‌কে আসামি ক‌রে মামলা ক‌রে‌ছেন। রা‌তেই অভিযান চালিয়ে গণপিটুনির সাথে জড়িত ২০জনকে আটক করা হয়ে‌ছে। একই দিন সদর উপজেলার আলামপুর কাথুলিয়া এলাকার লালনভক্ত আনিছুর রহমানের পোশাক দেখে সন্দেহ হলে এলাকাবাসী গণপিটুনি দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাকে উদ্ধার করে।
কু‌ষ্টিয়া ম‌ডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ও‌সি) না‌সির উ‌দ্দিন জানান, এ ঘটনায় ২০০ জন‌কে আসামি ক‌রে ম‌ডেল থানায় মামলা দা‌য়ের হ‌য়ে‌ছে। পু‌লিশ অ‌ভিযান চা‌লি‌য়ে ১৪জন‌কে আটক ক‌রে‌ছে।
এ‌দি‌কে সোমবার দুপুরের দিকে মিরপুর উপজেলার সাহেবনগর বহলবাড়ীয়া এলাকা থেকে এক পাগল ও ধুবাইল ইউনিয়ন পরিষদের সামনে থেকে এক পাগলিকে উদ্ধার করে পুলিশ।
এর আগে সদর উপজেলার হাটশ-হরিপুর ইউনিয়নে কালা চাঁদ নামে এক মানসিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধকে ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনি দেয় স্থানীয়রা। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে যেয়ে তাকে উদ্ধার করে। গণপিটুনির শিকার কালা চাঁদের বাড়ি টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর উপজেলায়।
কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস,এম তানভীর আরাফাত বলেন, কু‌ষ্টিয়ার বি‌ভিন্ন স্থা‌নে গণপিটুনি দেওয়ার সময় পুলিশ ৬ জনকে উদ্ধার করেছে। গুজব রটিয়ে গণপিটুনি বন্ধ করতে আমরা সচেতনতামূলক পোস্টার করেছি। পত্রপত্রিকাসহ বিভিন্নভাবে প্রচারণা চালাচ্ছি। পাশাপাশি পুলিশ সদস্যদের টহল বাড়ানো হয়েছে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft