বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সমাধি
ফখরে আলম :
Published : Tuesday, 6 August, 2019 at 6:17 AM
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সমাধি নিমতলা শ্মশানের বৈদ্যুতিক চিতার ছয়টি চিমনি থেকেই ধোঁয়া বের হচ্ছে। রাত দিন ২৪ ঘন্টাই ধোঁয়া বের হয়। নিমতলা রাতেও জেগে থাকে। ঘোলা জলের গঙ্গা এখানে অনেকটাই শান্ত। এই শ্মশানের পাশেই গঙ্গার কোলে ঘুমিয়ে আছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। একটি মার্বেল পাথরে খোঁদায় করে কবির সমাধি স্তম্ভে লেখা রয়েছে ‘সম্মুখে শান্তি পারাবার/ভাসাও তরণী হে কর্ণধার’।
ভারতের পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতার শত কোলাহলের মধ্যেও কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নিমতলার সমাধি প্রাঙ্গণ নিস্তব্দ। সাদা মার্বেল পাথরের এই সমাধি প্রাঙ্গণে ছোট্ট একটি সমাধি স্তম্ভ রয়েছে। এখানেই পোঁতা রয়েছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দেহস্মৃতি। এই স্মৃতির টানে কবির মহাপ্রয়াণের ৭৫ বছর পরও তাঁর ভক্ত, অনুরাগী সমাধি প্রাঙ্গণে এসে মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে থাকেন। রবীন্দ্রনাথের কাব্যডালা থেকে সেই ‘মৃত্যু’ কবিতার চরণ তাকেই উৎসর্গ করেন, ‘মৃত্যুও অজ্ঞাত মোর/আজি তার তরে/ক্ষণে ক্ষণে শিহরিয়া কাঁপিতেছি ডরে/এতো ভালবাসি/বলে হয়েছে প্রত্যয়/মৃত্যুরে আমি ভালবাসিব নিশ্চয়।’ কবি মৃত্যুকে ভালবেসে জীবনকে মেলে ধরেছেন। সমাধি প্রাঙ্গণ ছুঁয়ে যাওয়া গঙ্গা  নদীও মনে হয়  কবিকে প্রশান্তি দেওয়ার জন্য তাঁর কাছেই ছুটে এসেছে।
একটি কাঠগোলাপ গাছের ছায়াতলের খুবই পরিপাটি এই সমাধি প্রাঙ্গণে কবির জন্ম-মৃত্যুর তারিখ লেখা রয়েছে। প্রাঙ্গণটি নতুন করে সাজানো হয়েছে। ভারত সরকার, কলকাতা মিউনিসিপালিটি ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার যৌথভাবে সমাধি প্রাঙ্গণের সংস্করণ করে কবির প্রতি সম্মান দেখিয়েছে। ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারি পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী এর উদ্বোধন করেন।
কলকাতার ৬নং দ্বারকনাথ লেনে জোড়াসাঁকোর ঠাকুর বাড়িতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জন্ম গ্রহন করেছিলেন বাংলা ১২৬৮ সালের ২৫ বৈশাখ। এ বাড়িতেই তাঁর বিয়ে। এ বড়িতেই তাঁর প্রিয়তমা স্ত্রী মৃনালিনীর প্রয়াণ ঘটে। এখান থেকেই তিনি তাঁর ছেলে মেয়ে প্রিয়জনদের হারান। নিজের হাতে গড়া শান্তিনিকেতন আশ্রমে কবি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ১৩৪৮ সালের ৯ শ্রাবন এ বাড়িতে আনা হয়। ১৪ শ্রাবন দোতলার একটি কক্ষে চিকিৎসকরা তাঁর শরীরে অস্ত্রোপচার করেন। কিন্তু সবাইকে কাঁদিয়ে তিনি মৃত্যুসুধা পান করে ২২ শ্রাবন না ফেরার দেশে চলে যান। এরপর হাজার হাজার মানুষের শবযাত্রার পরিসমাপ্তি ঘঠে নিমতলা শ্মশাণে। সেই শ্মশানের সমাধি প্রাঙ্গণে রবীন্দ্রনাথ জেগে আছেন। তিনি জেগে থাকবেন। সাহিত্যের পৃথিবীকে বাঁচিয়ে রাখবেন।
# লেখক: কবি, সাংবাদিক
বিশেষ প্রতিনিধি, কালের কণ্ঠ, যশোর।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft