মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯
অর্থকড়ি
নওগাঁয় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে চামড়া কম দামে কেনার অভিযোগ
মোফাজ্জল হোসেন, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি :
Published : Thursday, 15 August, 2019 at 7:34 PM
নওগাঁয় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে চামড়া কম দামে কেনার অভিযোগনওগাঁয় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কুরবানির পশুর চামড়া কম দামে কেনার অভিযোগ উঠেছে। ফলে চামড়া থেকে বছরের আয় হওয়ায় অনেক ক্ষুদ্র প্রতিষ্ঠানের মাথায় হাত পড়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলো কি ভাবে চলবে তা নিয়ে দুঃচিন্তায় পড়েছেন তারা। গত কয়েক বছরের মধ্যে এত কম দাম কখনও হয় নাই। গরুর চামড়া ১০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৪০০ টাকা এবং ছাগলের ১০ থেকে ২০টাকায় এবং ভেড়ার চামড়া বিক্রি হয়েছে ৫ টাকা থেকে ১০ টাকা দরে। এই মূল্য অবনতির বড় শিকার হয়েছে দুঃস্থ মানুষ এবং ধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানগুলো।
চামড়ার চাহিদা না থাকার অজুহাতে এবার ন্যায্য মূল্য দেননি নওগাঁর ব্যবসায়ীরা। ফলে কুরবানির পশুর চামড়া নিয়ে বিপাকে পড়েন জেলাবাসী। এ কারণে চামড়া বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে পানির দরে। ভুক্তোভোগীদের অভিযোগ, চামড়া ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে চামড়ার দাম কমিয়ে ফেলা হয়েছে।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, বেশি দরে চামড়া কিনে প্রতিবছরই তাদের লোকসান গুণতে হয়। এ জন্য এবার তারা বেশ ‘সতর্ক’ হয়েই চামড়া কিনেছেন। গতবছর ঢাকার বাইরে গরুর প্রতি বর্গফুট চামড়া ৪০ টাকা ও খাসির চামড়া সারা দেশেই ২২ টাকা দরে কিনেছেন ব্যবসায়ীরা। এবারও তারা একই দর চূড়ান্ত করে নিয়েছিলেন সরকারের কাছ থেকে। অন্য বছর সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দরে চামড়া বিক্রি হলেও এবার তা হয়নি।
জেলা জুড়ে মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য ছিল অনেক কম। ফলে চামড়া কেনার সময় ব্যবসায়ীরা এবার বেমালুম চেপে গিয়েছেন সরকার নির্ধারিত দাম। কোথাও কোথাও চামড়া বিক্রি হয়েছে নির্ধারিত দামের চেয়েও কম টাকায়। গত কয়েকটি কুরবানির ঈদে চামড়া এতো কম মূল্যে বিক্রি হতে দেখা যায়নি। অন্য বছরগুলোর তুলনায় এবার মৌসুমি ব্যবসায়ীর দাপটও ছিল কম। ফলে চামড়ার বাজারে ‘রাজত্ব’ করেছেন প্রকৃত ব্যবসায়ীরাই। তারা চামড়া বিক্রেতাদের বলেছেন, গত বছরের চামড়ার প্রায় অর্ধেক এখনো রয়ে গেছে ঢাকার ট্যানারিগুলোতে। তাছাড়া ট্যানারিগুলো স্থানান্তর করতে গিয়েও টালমাটাল ব্যবসায়ীরা। ফলে নতুন করে চামড়া কেনার আগ্রহ ছিলো না তাদের। তারা চামড়া কিনছেন ঝুঁকি নিয়ে। ট্যানারি মালিকরা চামড়া না নিলে তারা লোকসান গুণবেন। এ জন্য তারা চামড়া বেশি দামে কিনতে পারছেন না।
জেলার একাধিক মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত কয়েক বছর চামড়া ব্যবসা করে মহাজনের কাছে তাদের লাখ লাখ টাকা বকেয়া পড়েছে। তাই এবার সতর্কতার সঙ্গে চামড়া কিনেছেন। তারা আরো বলেন গরুর চামড়া ১০০ থেকে ৪০০ টাকার মধ্যে কিনেছেন।
ভরমাধাইমুড়ি সিদ্দিকিয়া দারুল উলুম কাওমি মাদ্রার শিক্ষক মতিউর রহমান জানান, এবার চামড়ার দাম হওয়ার কারণে অনেক গ্রামে ছাগল-ভেড়ার চামড়া কেউ কিনতেও পর্যন্ত যায়নি। অনেক কুরবানিদাতা পশুর চামড়া মাটিতে পুঁতে ফেলেছে। আবার কেউ কেউ নদীর পানিতে ভাসিয়ে দিয়েছে।
এদিকে চামড়ার দাম কম হওয়ায় কোরবানি দাতারা হতাশ হন। তারা বলেন, মাত্র কয়েক বছর আগে একটি গরুর চামড়া দুই হাজার থেকে আড়াই হাজারে এবং ছাগলের চামড়া ২০০ থেকে ৫০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। পশুর মূল্য অনেক বেড়ে গেলেও চামড়ার দাম কমে যায়। অথচ চামড়ার সামগ্রী কিনতে গেলে অনেক দাম দিয়ে কিনতে হয়। চামড়ার দাম কম হওয়ায় জেলার বিভিন্ন মাদ্রাসার এতিম শিশুদের হক নষ্ট করা হয়েছে। তারা এ জন্য চামড়া ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটকে দায়ী করেছেন। তারা বলছেন, গরিবের হক নষ্ট করে ধনীরা আরও ধনী হচ্ছেন।
নওগাঁ জেলা চামড়া ব্যবসায়ী মালিক গ্রুপের সভাপতি মোমতাজ হোসেন জানান, জেলায় ২০০ জন চামড়া ব্যবসায়ী ছিল এখন সেখানে দাড়িয়েছে মাত্র ৫/৬ জন। ট্যানারী মালিকদের কাছে গত কয়েক বছরে পাওনা টাকা প্রায় ২০ কোটি টাকা। কোরিবানীর সময় টাকা দিয়েছে ১০ থেকে ১৫ ভাগ টাকা আবার কাউকে কোন টাকা দেয় নাই। তবুও তারা বাপ দাদার পেশা টিকিয়ে রাখতে দাদনের উপর ঋণ করে মাত্র কয়েকজন ব্যবসায়ী চামড়া কিনছেন। তারা কোন প্রকার সিন্ডিকেট করে চামড়া কিনছেন না। ট্যানারী মালিকরা যে হিসাবে চাড়মা কিনছেন আমরা সেই হিসাবে চামড়া কিনছি। খোলা বাজারে সরকারের বেধে দেয়া ৩৫-৪০ টাকা বর্গফুট দামে চামড়া কিনছেন।
তিনি বলেন, চামড়ার দাম বাড়বে যদি সরকার ব্লু চামড়া রপ্তানী করার অনুমোদন দেন তাহলে গরুর চামড়া ৮০ টাকা ফিচ লাগবে। তিনি সরকারের নিকট ব্লু চামড়া রপ্তানী করার দাবী জানান। তিনি ট্যানারী মালিকদের কাছে অনুরোধ যদি তারা সপ্তাহ খানিকের মধ্যে দেশের প্রতিটি জেলায় যদি চামড়া না কিনে তাহলে পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে চামড়ার দাম তিনগুণ বেশী হওয়ায় চামড়া পাচার হয়ে যাবার আশংকা করছেন তিনি। তিনি আরও জানান, মাঠ পর্যায়ে যদি তদন্ত করে মনিটরিং টিম গঠন করে চামড়ার নীতিমালা গ্রহন করা উচিত। আর ব্লু চামড়া রপ্তানী করার অনুমোদন সরকার দেয় তাহলে চামড়ার বাজার আবার ফিরে আসবে নইলে এই শিল্প ধ্বংশ হয়ে যাবে বলে জানান তিনি।
পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন পিপিএম জানান, ভারতে যেন চামড়া পাচার না হয়, সেজন্য সীমান্তবর্তী এলাকায় পুলিশের কঠোর নজরদারী বাড়ানো হয়েছে। চামড়াবাহী গাড়ীগুলিকে সীমান্তের দিকে যেতে দেয়া হচ্ছে না। সীমান্তের দিকে কোন চামড়াবাহী গাড়ী যেতে না পারে সেজন্য চামড়া ব্যবসায়ী, পরিবহন নেতাদের নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে। এই জেলার ৪টি থানা সীমান্তবর্তী হওয়ায় দেশের সম্পদ এই চামড়া অন্যদেশে পাচার যেন না হতে পারে সেজন্য নিশ্চিত করবে বলে জানান তিনি।
বিজিবি-১৬ (নওগাঁ) অধিনায়ক লে: কর্ণেল তুহিন মাহমুদ মাসুদ জানান, চামড়া পাচার যেন না হয় সেজন্য সীমান্তে কঠোর নজরদারী বাড়ানো হয়েছে। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft