শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯
শিক্ষা বার্তা
জাবিতে চলছে অবরোধ, আলোচনায় হয়নি সমাধান
কাগজ ডেস্ক :
Published : Thursday, 5 September, 2019 at 5:10 PM
জাবিতে চলছে অবরোধ, আলোচনায় হয়নি সমাধানজাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা দুর্নীতির অভিযোগের বিচার বিভাগীয় তদন্তসহ তিন দফা দাবিতে তৃতীয় দিনের মতো অবরোধ কর্মসূচি চলছে।
অবরোধ চলাকালে উপাচার্য, উপ-উপাচার্যদ্বয় সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য প্রশাসনিক কর্মকর্তারা আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনা করার জন্য পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে উপস্থিত হন। এ সময় সেখানে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এক ঘণ্টাধরে আলোচনা করেন তারা। এছাড়া অবরোধ কর্মসূচি থেকে সরে আসার আহ্বান জানান উপাচার্য। তবে আলোচনা কোনো সমাধান না হওয়ায় অবরোধ কর্মসূচি অব্যাহত রাখেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।
বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৭টায় 'দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর'র ব্যানারে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ও পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে অবরোধ শুরু করেন তারা। টানা তৃতীয় দিনের মতো অবরোধে বন্ধ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম।
এদিকে গতকাল অবরোধ চলাকালীন সময়ে দুই দফায় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েও ব্যর্থ হয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের তিনটি দাবির মধ্যে ছাত্র হলের জন্য বিকল্প স্থান নির্বাচন এবং অস্বচ্ছতা দূর করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশীজনদের মতামতের ভিত্তিতে প্রকল্প বাস্তবায়নের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চান তারা। তবে প্রকল্পে দুর্নীতির বিচার বিভাগীয় তদন্তের বিষয়ে বর্তমান উপাচার্যকে নির্বাহী প্রধান রেখে কোনো আলোচনা করতে রাজি নয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।
এছাড়া প্রকল্প সম্পর্কিত আলোচনা উপাচার্য, দুইজন উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষ ও রেজিস্ট্রারের উপস্থিতিতে করবেন বলে নির্ধারণ করে দেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।
আন্দোলনকারীরা ও জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আশিকুর রহমান বলেন, 'দুর্নীতির অভিযোগের বিষয় ছাড়া আমরা উপাচার্যের সঙ্গে বসতে রাজি, তবে সেটা হতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আন্তরিক আলোচনা। আর দুর্নীতির অভিযোগে যেহেতু উপাচার্য নিজেই অভিযুক্ত তাই তাকে নির্বাহী প্রধান করে আমরা কোনো আলোচনায় বসতে পারি না। রাষ্ট্রপক্ষের কোনো প্রতিনিধি আলোচনায় নির্বাহী প্রধান হলে আমরা আলোচনায় বসব। সেটা হতে পারে আচার্যের কোনো প্রতিনিধি, ইউজিসির সদস্য অথবা মন্ত্রণালয়ের কর্তাব্যক্তি।'
অবরোধ চলাকালীন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, 'আমরা তোমাদের সঙ্গে আলোচনা করতে চাই। তবে হলের স্থান সম্পূর্ণ পরিবর্তন করা সময় সাপেক্ষ। নির্ধারিত স্থান থেকে একটু এপাশ ওপাশ করা যেতে পারে।'
এছাড়া দুর্নীতির বিচার বিভাগীয় তদন্তের বিষয়ে উপাচার্য বলেন, 'প্রকল্পে যদি দুর্নীতি হয়ে থাকে। তাহলে আমি তৃতীয় কোনো পক্ষকে আহ্বান জানাচ্ছি, সম্পূর্ণ বিষয়ের তদন্ত হোক।'
বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়নের জন্য গত বছরের ২৩ অক্টোবর ১৪৪৫ কোটি টাকা অনুমোদন দেয় জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (একনেক)। এই প্রকল্পের প্রথম ধাপে ছয়টি আবাসিক হল নির্মাণের জন্য গত ১ মে টেন্ডার আহ্বান করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। হলগুলো নির্মাণে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় প্রায় সাড়ে ৪০০ কোটি টাকা।
সম্প্রতি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, নির্মাণকাজ বাধাহীনভাবে সম্পন্ন করতে গত ৯ আগস্ট উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম ও তার পরিবারের নেতৃত্বে শাখা ছাত্রলীগ ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগকে দুই কোটি টাকা বাটোয়ারা করে দেয়।
এর আগে গত ২৩ মে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে টেন্ডার শিডিউল ছিনতাইয়ের অভিযোগ ওঠে শাখা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে।
আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের দাবি, প্রকল্প বাস্তবায়নে যে মাস্টারপ্ল্যান অনুসরণ করা হচ্ছে তা অপরিকল্পিত-অস্বচ্ছ।
পরবর্তীতে মাস্টারপ্ল্যান সংশোধনসহ দুর্নীতির বিচার বিভাগীয় তদন্ত ও অংশীজনদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার দাবিতে আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft