সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
জাতীয়
জেগে উঠতে হবে, লুটপাটের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করতে হবে : আলাল
কাগজ ডেস্ক :
Published : Saturday, 7 September, 2019 at 8:17 PM
জেগে উঠতে হবে, লুটপাটের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করতে হবে : আলালদেশে যে অন্যায়, দুর্নীতি, লুটপাট, অবিচার চলছে তার বিরুদ্ধে আন্দোলন করার জন্য বাঙালি জাতিকে জেগে ওঠার আহবান জানিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। তিনি বলেছেন, ‘বাঙালি জাতি এখনও ঘুমিয়ে আছে তাদেরকে জেগে উঠতে হবে এসব দুর্নীতি-লুটপাটের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ করতে হবে।’
শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের আব্দুস সালাম হলে খেলাফত মজলিসের উদ্যোগে চামড়াশিল্প সর্বব্যাপী অর্থ সামাজিক অস্থিরতা ও করণীয় শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, ‘এই সরকার ১০ টাকায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলে দেয়ার কথা বলেছে। এর আগে দশ টাকার চাউল খাওয়ানোর কথা বলেছে। তারপরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ১০ টাকা দিয়ে সমুচা সিঙ্গারা খাওনের কথা বলেছে। সর্বশেষ এসেছে ১০ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে ডাক্তার দেখানো। এই যে দশ টাকার প্রতারণা এটা কতদিন চলবে? এই প্রতারণাটা এই সরকার এতো ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে যে যতবার আমাকে কারাগারে নিয়ে রিমান্ডে নিয়েছে তার চেয়ে এই প্রতারণার যন্ত্রনা বেশি পেয়েছি।’
তিনি বলেন, ‘আমরা ধর্ম নিয়ে কথা বলতে গেলে, ধর্মের পোশাক পড়লে তখন আমরা চেতনাবিরোধী, মুক্তিযুদ্ধবিরোধী, জঙ্গি হয়ে যাই। আর পহেলা বৈশাখে সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ যখন বিভিন্ন প্রকার পশু-বাঘ-প্যাঁচার মুখোশ পরে উদযাপন করে তাতে কোন দোষ নেই। অথচ ধর্ম নিয়ে কথা বললেই সব দোষ, তখন মুক্তিযুদ্ধবিরোধী হয়ে যাবো, চেতনাবিরোধী হয়ে যাই।’
যুবদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, ‘খুব করে বর্তমান সরকার ও তার চেলারা বলেন- এতিমের টাকা বেগম খালেদা জিয়া মেরে খেয়েছে এটা সত্য নয়। আমরা তো সবাই জানি বেগম খালেদা জিয়ার নামে দুদুক যে অভিযোগে করেছে তা হলো জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুর্নীতি কিন্তু এতিমের টাকা আত্মসাতের তার সাজা হয়নি আদালতে তা প্রমাণ করতে পারেনি। তার সাজা হয়েছে বাংলাদেশ পেনাল কোড বিধি ৪০৯ ধারা কিন্তু ৪০৯ ধারায় বলা আছে ক্ষমতার যথাযথ ব্যবহার তিনি করতে পারেননি। এই অপরাধে বেগম খালেদা জিয়ার সাজা হয়েছে কিন্তু তারা গলাবাজি করে বলছে এতিমের টাকা আত্মসাৎ করেছে। কিন্তু এতিমের টাকা মেরে খাচ্ছে এই সরকার যা সর্বশেষ চামড়া দিয়ে বোঝা যাচ্ছে। হাজার হাজার লিল্লা বোডিং যেখানে এতিমরা থাকে তাদের হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে খেয়েছে এই সরকার। চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে ফেলেছে।’
তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে ৬ হাজার জনশক্তি ইরাকে প্রথম রফতানি করেছিলেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। পরবর্তীতে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় তৈরি করেছিলেন বেগম খালেদা জিয়া। দেশ উন্নয়নের জন্য বিদেশ থেকে রফতানির যে আয়ের সম্ভাবনা তা প্রথম সৃষ্টি করেছিল বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল। আজ সেই অবস্থায়ও নাই। এখন অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে শুধু লুটপাটের, দেশ উন্নয়নের নয়।’
শিক্ষা ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থায় এমন হয়েছে যে ইসরাইলি সেনাবাহিনীতে যেমন গাজা খাওয়া বৈধ, কানাডায় যেমন প্রকাশ্যে গাঁজা খাওয়া বৈধ, তেমনি সেই গাঁজাখোরদের মতো আমাদের বইপুস্তক করেছে। এই বইতে লিখেছেন শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান থেকে ১৯৭১ সালের ১০ জানুয়ারি স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন কিন্তু আমরা জানি তিনি ১৯৭২ সালে দেশে আসেন। বইতে আরো লিখেছেন শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২৩ সালে সেই সময়ের নেতৃবৃন্দের সাথে বেঙ্গল প্যাক্ট এ স্বাক্ষর করেছেন কিন্তু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মগ্রহণ করেছে ১৯২০ সালে। তাহলে তিন বছর বয়সে তিনি বেঙ্গল প্যাক্টের স্বাক্ষর করেছেন!, এই আহাম্মকরা এখন দেশ চালায়। আমি দুর্নীতির কথা বাদই দিলাম এই আহাম্মকরা এখন দেশ চালায়।’
তিনি আরও বলেন, ‘শিক্ষা ব্যবস্থার কথা আর কি বলব ছাত্রলীগের ছেলেপেলে দিয়ে রাস্তায় বোতল ফেলে, ময়লা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আখতারুজ্জামান তা পরিষ্কার করে ফটোসেশন করে। রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি যার জন্য বাংলো করা হয়েছে তিনি বাংলোতে থাকেন না। ঢাকায় বসে বসে অফিস করেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ঠিকাদারের কাছ থেকে পাঁচ কোটি টাকা নিয়ে তোলাবাজি করে। সেই টাকার কিছু অংশ ছাত্রলীগের মাঝে ভাগ-বাটোয়ারা করে দিচ্ছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি নতুন কমিটি হওয়া ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ফুল দিয়ে তাদের সাথে মিছিল করছে, এই হলো শিক্ষা ব্যবস্থা! এভাবে কি একটি দেশ চলতে পারে? পারে না। এর থেকে পরিত্রাণ পেতে বাঙালিদের জেগে উঠতে হবে । জেগে উঠুন, আপনারা আমাদের সাথে থাকুন, আমরা আপনাদের সাথে আছি।’
তিনি আরও বলেন, ‘শেরে বাংলা এ কে এম ফজলুল হক যখন অবিভক্ত বাংলার মন্ত্রী তখন এক লোক তার কাছে গিয়ে দু টাকা চেয়েছে বলেছেন এই টাকা দিয়ে আমি গরু কিনব তখন শেরেবাংলা বলেছেন দু টাকা দিয়ে তো তুই গরু পাবি না, কারণ সব গরুগুলো তো মন্ত্রিসভায় নিয়ে এসেছে! এই অবস্থা হয়েছে বর্তমান বাংলাদেশের।’
আলাল বলেন, ‘ফ্রান্সের প্যারিসে বোমা হামলা হয়। লন্ডনে বোমা হামলা হয়। আর বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন- এইগুলো সাথে বিএনপি-জামায়াত জড়িত কিনা তদন্ত করে দেখা উচিত। দেশের কোথাও বজ্রপাত হলেও তারা বলবে এই বোমাবাজ করেছে বিএনপি-জামায়াত ও ইসলামী দলগুলো। দেখা যাবে জামায়াত-বিএনপি ও ইসলামী দলগুলোর নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এই করেই তো দেশ চলছে।’
খেলাফত মজলিসের আমির অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাকের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর অবসরপ্রাপ্ত ইব্রাহিম, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব অধ্যাপক মোহাম্মদ আহমেদ আবদুল কাদের, এলডিপির মহাসচিব শাহাদাত হোসেন প্রমুখ।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft