সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০১৯
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
তালার শত বছরের সরকারি পুকুরটি অস্তিত্ব হারাতে বসেছে
মীর জাকির হোসেন, তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি :
Published : Thursday, 12 September, 2019 at 6:18 AM
তালার শত বছরের সরকারি পুকুরটি অস্তিত্ব হারাতে বসেছে তালায় জেলা পরিষদের সরকারি পুকুর পাড়ের খাস সম্পত্তি দখল করে গড়ে উঠেছে অবৈধ স্থাপনা। ফলে অবৈধ দখলদারদের কবলে পড়ে আজ অস্তিত্ব হারাতে বসেছে শত বছরের পুরানো জেলা পরিষদের পুকুরটি। এককালে স্থানীয় মানুষের নিরাপদ খাবার পানির চাহিদা মেটাতে তালা বাজারের একেবারেই প্রানকেন্দ্রে ১ একর ৪০ শতক জমির উপরে পুকুরটি খনন করেন কোন এক ধার্মিক ব্যক্তি। পরবর্তীতে ডিষ্ট্রিক বোর্ড এই পুকুরটি রক্ষণা-বেক্ষনের দায়িত্ব নেন। বর্তমানে একটি স্বার্থন্বেষী মহল পুকুর পাড়ে পাকা দোকানসহ বহুতল ভবন নির্মাণ করে জবর দখল করে সংকীর্ণ করে ফেলেছে পুকুরটি। এ ছাড়া  ময়লা-আবর্জনা সহ গরু-ছাগল ও মানুষের মল-মূত্র পুকুরে ফেলার কারণে পানি সংকট দুর করার পরিবর্তে আজ দুর্গন্ধের কারখানায় পরিনত হয়েছে সরকারি পুকুরটি। অথচ বিষয়টি দেখার কেউ নেই !
জেলা পরিষদের অন্তর্ভুক্ত দাগ নং ১২৯, খতিয়ান- ২, তালা মৌজার ১ একর ৪০ শতক জমির উপর অবস্থিত এই পুকুরটি কত সালে খনন করা হয় তার সঠিক তথ্য এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।  তালার প্রবীন রাজনীতিক পানি কমিটির উপজেলা সম্পাদক মীর জিল্লুর রহমান জানান, এককালে ধর্ম প্রচার করতে এসে কোন এক ধার্মিক ব্যক্তি স্থানীয় মানুষের খাবার পানির সংকট নিরসনে পুকুরটি খনন করেন। কিন্তু জবর দখল ও বর্জ্য-ময়লা ফেলার কারণে আজ চরম অস্তিত্ব সংকটের মুখে পড়েছে পুকুরটি।  
অস্তিত্ব সংকটের মুখে পড়ে থাকা সরকারী পুকুর টি সীমানা নির্ধারণ, অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে দখল মুক্ত করার জন্য ইতিমধ্যে  জেলা পরিষদের প্রধান কর্মকর্তা, প্রশাসনিক কর্তকর্তা, জেলা পরিষদের সার্ভেয়ার, জেলা পরিষদের সদস্যবৃন্দ সরেজমিনে পুকুর এলাকা পরিদর্শন করে অতিদ্রুত সময়ের মধ্যে জনস্বার্থে পরিকল্পিতভাবে একটি মার্কেট নির্মাণ করার ঘোষনা দেন। এর কিছুদিন পরে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের নির্দেশে সার্ভেয়ার ও  দাপ্তরিক লোকজন নিয়ে সীমানা নির্ধারণের কাজ সপন্ন করেন। এরপরই গাত্র দাহ শুরু হয়েছে স্থানীয় দখলদারদের। অবৈধ দখলদারিত্ব টিকিয়ে রাখতে একটি মহল মোটা অংকের টাকা নিয়ে দৌঁড়ঝাঁপ শুরু করেছে উচ্চ মহলে। তালাবাসীর প্রানের দাবি দ্রুত সময়ের মধ্যে পুকুর পাড়ের অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করে পরিকল্পিতভাবে একটি মার্কেট  নির্মাণ করা হোক।
সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের মহিলা সদস্য মাহফুজা সুলতানা রুবি জানান, অবৈধভাবে দখলের ফলে একদিকে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, অপরদিকে পচা দুর্গন্ধে আশপাশের পরিবেশ দুষিত হচ্ছে। জেলা পরিষদের জায়গায় অবৈধ ভাবে ৪৮টি পাকা দোকান ও  ১২টি পাকা বাড়ি নির্মাণ করেছে দখলদাররা। অনেকেই তা আবার  ভাড়া দিয়ে খাচ্ছে। কেউ কেউ আবার অবৈধ দখলীয় ঘর বিক্রি করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। আমি চাই, তালাবাসীর মার্কেট নির্মাণের দাবীটি গুরুত্ব দিয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
তালা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার জানান, ইতিপূর্বে জেলা পরিষদের অধীনে তালায় আরও দুটি মার্কেট নির্মিত হয়েছে। এতে করে স্থানীয় ক্রেতা-বিক্রেতারা উপকৃত সহ সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। জেলা পরিষদের জায়গাটিতে পরিকল্পিত আরও একটি মার্কেট নির্মান করা হলে তালা বাজারের  ব্যবসা বান্ধব দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ তৈরি হবে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft