শুক্রবার, ০৫ জুন, ২০২০
অর্থকড়ি
যশোরে পেঁয়াজের বাজারে আগুন
এম. আইউব :
Published : Sunday, 15 September, 2019 at 6:12 AM
যশোরে পেঁয়াজের বাজারে আগুনযশোরে পেঁয়াজের বাজারে আগুন লেগেছে। মাত্র একদিনের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ১৫ থেকে ২০ টাকা। খুচরা বাজারে এ বৃদ্ধির পরিমাণ আরও বেশি। ব্যবসায়ীরা সুনির্দিষ্ট কারণ বলতে না পারলেও ভারত তাদের পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য বৃদ্ধি করার কারণে এ অবস্থার তৈরি হয়েছে। সামনে আরও দাম বাড়তে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন বিক্রেতারা।
গত ১২ আগস্ট ছিল ঈদুল আজহা। সাধারণত এ সময়ে পেঁয়াজের দাম খানিকটা বৃদ্ধি পায়। ওই সময় যশোরের বাজারে পেঁয়াজ ৪৫-৫০ টাকার মধ্যে বিক্রি হয়। তার আগে দাম আরও কম ছিল। ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঈদুল আজহার সপ্তাহ খানিক আগেও পেঁয়াজ ২৫ থেকে ৩০ টাকার মধ্যে বিক্রি হয়েছিল। ঈদুল আজহা পার হওয়ার ঠিক এক মাসের মাথায় পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১৫ থেকে ২০ টাকা বৃদ্ধি পাওয়ায় ক্রেতারা কিছুটা হতভম্ব হয়েছেন। গতকাল শনিবার যশোরের বিভিন্ন আড়ৎ ও দোকান ঘুরে এ দৃশ্য দেখা গেছে।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, যশোরে ১৫ টির মতো পেঁয়াজের আড়ৎ রয়েছে। এসব আড়ৎ থেকে প্রতিদিন আনুমানিক ১শ’ ৩০ বস্তা পেঁয়াজ বিক্রি হয়। খুচরা বিক্রেতারা আড়ৎ থেকে এ পেঁয়াজ কিনে থাকেন। যশোরে দেশি পেঁয়াজ আসে ফরিদপুর ও কুষ্টিয়ার বিভিন্ন মোকাম থেকে। বিশেষ করে ফরিদপুরের পেঁয়াজ আসে বেশি। এর বাইরে ভারতীয় পেঁয়াজ আসে ভোমরা বন্দর দিয়ে। তারপরও কোনো কোনো ব্যবসায়ী অন্যান্য জায়গা থেকে পেঁয়াজ সংগ্রহ করে থাকেন।
যশোরের সবচেয়ে বড় পেঁয়াজের আড়ৎ নিউ আমিন এন্ড সন্সের অন্যতম স্বত্ত্বাধিকারী বাদশা মিয়া জানান, মোকামে আজ (শনিবার) প্রতি মণ পেঁয়াজ পাইকারি বিক্রি হয়েছে ২৪শ’ টাকা করে। গতকালের চেয়ে যা মণে পাঁচশ’ টাকা বেশি। এ কারণে একদিনের ব্যবধানে ৪৫ টাকার পেঁয়াজ তাদেরকে ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। মোহাম্মদ আলী নামে আরেকজন ব্যবসায়ী বলেন, পেঁয়াজের দাম মোকামে যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে করে স্থানীয় বাজারে আরও বাড়বে। তার দাবি, নতুন পেঁয়াজ ওঠা পর্যন্ত ৮০ টাকায় ঠেকতে পারে।
হঠাৎ করে দাম বৃদ্ধির কারণ অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানাগেছে, বাংলাদেশে পেঁয়াজের রপ্তানিমূল্য দ্বিগুণ করেছে ভারত। সেখানকার বাজারে দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাদেশে  পেঁয়াজ রপ্তানি নিরুৎসাহিত করতে ভারত এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে কয়েকজন আমদানিকারক জানিয়েছেন।
আমদানিকারকরা বলছেন, কয়েকদিন আগেও ভারত প্রতি টন পেঁয়াজ ২শ’৫০ থেকে ৩শ’ মার্কিন ডলারে রপ্তানি করলেও বর্তমানে তা বাড়িয়ে ৮শ’ ৫২ ডলার নির্ধারণ করে দিয়েছে ভারতের কাঁচা পণ্য নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা ন্যাপিড। এ সংক্রান্ত নির্দেশনা ইতোমধ্যে ভারতীয় রপ্তানিকারকদের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। সেখান থেকে এই নির্দেশনা বাংলাদেশের আমদানিকারকদের জানিয়ে দিয়েছেন সেখানকার রপ্তারিকারকরা। আর এই ঘোষণার প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশের বাজারে। একদিনের মধ্যে দেশীয় বাজারে পেঁয়াজের দাম এক লাফে ১৫ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে। খুচরা বাজারে এই বৃদ্ধির পরিমাণ আরও বেশি। আমদানিকারকরা বলছেন, সম্প্রতি ভারতের কিছু এলাকায় বন্যা হয়েছে, যেসব এলাকায় অনেক বেশি পরিমাণে পেঁয়াজ উৎপাদিত হয়ে থাকে। বন্যায় পেঁয়াজের ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। এ কারণে সরবরাহ কমেছে এবং সেখানে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।
তারা বলেন, বর্তমানে কলকাতার বাজারেই প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৫০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে। এ অবস্থায় পেঁয়াজ রপ্তানিকে নিরুৎসাহিত ও নিত্য প্রয়োজনীয় এ পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি রুখতে এর ন্যূনতম রপ্তানিমূল্য ৮শ’৫২ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করে দিয়েছে ন্যাপিড। গতকাল শনিবার সকাল থেকেই এ নির্দেশনা কার্যকর হয়েছে বলে আমদানিকারকদের দাবি।
মোবারক হোসেন ও মামুনুর রশীদ নামে দু’জন আমদানিকারক জানান, এতদিন পেঁয়াজ আমদানিতে ন্যূনতম কোনো রপ্তানিমূল্য নির্ধারণ করা ছিল না। তারা যে দামে কিনতেন সেই দামেই আমদানি করা হতো। প্রতিটন পেঁয়াজ প্রকারভেদে ২শ’৫০ থেকে ৩শ’ মার্কিন ডলারে আমদানি করতেন। তারা আরও জানান, দেশের বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ ঠিক রাখতে এবং মূল্য যাতে ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকে এ কারণে বাড়তি মূল্যেই পেঁয়াজ আমদানি করা হবে। শনিবার ব্যাংক বন্ধ থাকার কারণে পুরনো এলসিগুলো অ্যামান্ডমেন্ট করা যায়নি এবং আমদানিকারকরা পেঁয়াজ আমদানিও করতে পারেননি। ফলে, আমদানির পরিমাণ কমেছে। এর প্রভাবে পেঁয়াজের দাম বাড়তে পারে।
একদিনের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১৫ থেকে ২০ টাকা বৃদ্ধি পাওয়ায় ক্ষুব্ধ ক্রেতারা। শনিবার যশোরের বাজারে বিক্রেতাদের সাথে ক্রেতাদের এ নিয়ে বাকবিতন্ডা করতে দেখা গেছে। বিক্রেতাদের বক্তব্য, তাদের কিছুই করার নেই। তারা যে দামে কিনছেন সেই দামে বিক্রি করছেন। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft