বুধবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৯
জাতীয়
স্বাস্থ্য খাতে ভারত থেকে এগিয়ে বাংলাদেশ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
কাগজ ডেস্ক :
Published : Monday, 4 November, 2019 at 8:40 PM
স্বাস্থ্য খাতে ভারত থেকে এগিয়ে বাংলাদেশ: স্বাস্থ্যমন্ত্রীস্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, 'বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সেক্টর অন্যান্য দেশ থেকে ভালো অবস্থানে আছে। বিশেষ করে স্বাস্থ্য খাতে ভারত থেকে অনেক বিষয়ে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ।'
বাংলাদেশে উন্নয়নের সুবাতাস বইছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, 'স্বাস্থ্য সেবায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। আমরা নিজেদের প্রশংসা করতে জানিনা। কিন্তু বিশ্ববাসী আমাদের প্রশংসা করে। তার অবদান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভ্যাকসিন হিরো পুরস্কারসহ বহির্বিশ্বে নানা পুরস্কার অর্জন করেছেন।'
সোমবার (৪ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।এ সময় স্বাস্থ্য অধিদফতরের উদ্যোগে বাংলাদেশ জাতীয় মাতৃস্বাস্থ্য কৌশলপত্র ২০১৯-২০৩০ ও মাতৃস্বাস্থ্যের পরিচালনার এসওপি প্রচারণা ও মোড়ক উন্মোচন এবং মাতৃস্বাস্থ্যের বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।
এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, 'আমাদের কিছু চ্যালেঞ্জও আছে। সকলে মিলে কাজ করলে এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা যাবে। মাতৃমৃত্যুর হার ৭০ নামিয়ে আনতে হবে। শিশু মৃত্যুর হার ১২ তে নিয়ে আসতে হবে। বাল্যবিবাহ নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। এসব চ্যালেঞ্জ এমডিজি অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তাই এসব অর্জন করার জন্য শুধু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নয় সংশ্লিষ্ট অন্যান্য মন্ত্রণালয়কেও এগিয়ে আসতে হবে।'
স্বাস্থ্য খাতে বাজেট প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে সবসময় ভাবেন। স্বাস্থ্য সেবায় আমরা উন্নতি করেছি। তবে ভারত, শ্রীলংকা সহ অন্যান্য দেশে পার ক্যাপিটাল বাজেট ১০০ এর বেশি। তবে বাংলাদেশ পার ক্যাপিটালে বাজেট হলো ৩৭ ডলার। যা অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক কম। তবে সবচেয়ে কম টাকায় বেশি কাজ আমরাই করে থাকি।'
মাতৃমৃত্যু ও শিশু মৃত্যুর হার কমানোর প্রসঙ্গে জাহিদ মালেক বলেন, 'মা ও শিশু মৃত্যুর হার কমাতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে মহিলা ও শিশু বান্ধব চিকিৎসা দেওয়ার চেষ্টা করছি যাতে এর মাত্রা কমে আসে। এই সেক্টরে দক্ষ জনবলের অভাব রয়েছে। দক্ষ জনবল বাড়ালে এর মাত্রা কমে আসবে। স্বাস্থ্যখাতে নিয়োগের কিছু বাধা ছিল সেগুলো আমরা অতিক্রম করতে পেরেছি।'
আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে, 'মাতৃস্বাস্থ্যে বিশেষ অবদানের রাখার জন্য দেশের ৬২ টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার প্রদান করা হয়। তার মধ্যে রয়েছে ,মেডিকেল কলেজ, সদর হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচাল ডা. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রাক্তন উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা.সয়দ মোদাচ্ছের আলী,বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ডা.মো. এহতেশামুল হক চৌধুরী, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী এ কে এম মহিউল ইসলাম, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপ্রেজেন্টিটিভ ডা. বর্ধন জাং রানা সহ আরো অনেকে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft