শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
জাতীয়
আজ বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস
অবহেলায় প্রতিবন্ধীরা
স্বপ্না দেবনাথ :
Published : Tuesday, 3 December, 2019 at 6:16 AM
অবহেলায় প্রতিবন্ধীরা আজ বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস। সাংবিধানিকভাবে দেশের প্রতিটি মানুষের সমান অধিকার হলেও সমাজে অবহেলিত হচ্ছে প্রতিবন্ধীরা। স্বাভাবিক মানুষের চেয়ে বেশি সুযোগ সুবিধা পাওয়ার কথা থাকলেও অবহেলায় বেশি পাচ্ছেন শারীরিক, মানসিক কিংবা শ্রবণ প্রতিবন্ধীরা। সরকার বিশেষ এ শ্রেণির জন্যে আইন প্রণয়ন ও প্রশংসনীয় উদ্যোগ নিলেও তা যথাযথ লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে। শুধমুাত্র ব্যাপক প্রচারের অভাব এবং সকল শ্রেণির নাগরিকদের অসচেতনতা ও সহযোগিতার অভাবে প্রতিবন্ধীরা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলে মনে করছেন তাদের নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিরা।
যশোরের চৌগাছা উপজেলার পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের ঋষিপাড়ার বাসিন্দা সরলা বালা। পাঁচ প্রতিবন্ধী সন্তান আর পক্ষাঘাতগ্রস্ত স্বামীকে নিয়ে অতি কষ্টে কাটে তার দিন। উপজেলা সমাজসেবা অফিস থেকে প্রতিবন্ধী হিসেবে আইডি কার্ড পেলেও পরিবারের কেউই এখনো কোনো সুবিধা পাননি। ‘বাপু কত লোক আসে। বলে এ দেব, ও দেব। শুনে চলে যায়। কিছুই তো পাইনে।’ নিজের অবস্থা জানাতে সাংবাদিকদের এভাবে বলেন সরলা বালা। শুধু সরলা নন, এমন পরিস্থিতির শিকার আরও অনেকেই। তবে, তাদের দুর্ভোগ নিয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণকারীর সংখ্যা নিতান্তই কম। পাশাপাশি সময়ের প্রয়োজনে স্বাভাবিক মানুষের মতো  প্রতিবন্ধীদের জীবনযাত্রা নির্বিঘœ করতে পাসকৃত আইনও মানা হচ্ছে না।
যশোরে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের এককভাবে রাস্তায় চলাচলের কোনো সুন্দর পরিবেশ নেই। এমনকি শহরের প্রায় শতভাগ স্কুল কলেজেই প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্যে সুব্যবস্থা নেই। নানা প্রতিকুলতা অতিক্রম করে কিছু শারীরিক প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী প্রাথমিকের গ-ি পেরিয়ে মাধ্যমিক স্কুল এবং কলেজে প্রবেশের সুযোগ করে নেয়। কিন্তু বিশেষ চাহিদার এ শিক্ষার্থীদের জন্যে  শিক্ষার যথাযথ পরিবেশ এবং সুব্যবস্থার অভাব থেকে যাচ্ছে। সরকারি নির্দেশ অনুযাযী সড়ক,মহাসড়ক,ফুটপাত, ফুটওভারব্রিজসহ গণপরিবহন প্রতিবন্ধীবান্ধব হিসেবে গড়ে তোলার কথা থাকলেও যশোরে এ নির্দেশনা বাস্তবায়নের দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি নেই। অথচ ২০০৭ সালে জাতিসংঘ প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার সনদ (সিআরপিডি) সমর্থনকারী দেশ হিসেবে এ সনদ পূরণে বাংলাদেশ অঙ্গীকারাবদ্ধ।
প্রতিবন্ধীদের অধিকার এবং বর্তমান প্রেক্ষাপট নিয়ে স্বপ্ন দেখোর চেয়ারম্যান জহির ইকবাল নান্নু বলেন, ব্যক্তির প্রতিবন্ধিতা নয়, সামাজিক এবং অবকাঠামোগত প্রতিবন্ধকতাই প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নের জন্যে অনেক ক্ষেত্রে বাধা। অনেকেই প্রতিবন্ধীদের সমাজের অভিশাপ বলে মনে করেন। অথচ তারা আমাদের সমাজেরই লোক। তাদেরও রয়েছে এ দেশে সবার মতো সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার অধিকার। রাষ্ট্র ও দেশের সংবিধান তাই বলে। তাদের প্রতি সকলকে সমানুভূতি প্রকাশ করতে হবে।
যশোর সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক অসিত কুমার সাহা বলেন, বাংলাদেশে সকল স্তরে প্রতিবন্ধীদের অধিকার সুরক্ষার জন্যে এ সরকারই প্রথম উদ্যোগ গ্রহণ করেন।  বর্তমানে সরকার তাদের অধিকার ও সুরক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা পালনে সচেষ্ট রয়েছে।
বর্তমান সরকার ১৯৯৯ সালে প্রতিবন্ধীদের সুবিধা ও বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসুবিধার কথা চিন্তা করে দেশে প্রথমবারের মতো প্রতিবন্ধী কল্যাণ ফান্ড গঠন করে। এরপর প্রতিবন্ধীদের সুবিধার জন্যে সরকারি-বেসরকারি সকল পর্যায়ে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে ২০০১ সালে প্রতিবন্ধী অধিকার আইন প্রণয়ন করে। এরপর ২০১৩ সালে আবার প্রতিবন্ধী ব্যক্তির অধিকার পূর্ণরূপে প্রতিষ্ঠা করতে ও একইসঙ্গে তাদের সুরক্ষা করতে যুগোপযোগী নতুন একটি আইন প্রণয়ন করে। এছাড়াও বুদ্ধি প্রতিবন্ধীসহ চার ধরনের প্রতিবন্ধীকে সুরক্ষায় ট্রস্ট আইন-২০১৩ প্রণয়ন করা হয়েছে। প্রতিবন্ধীদের শিক্ষার পথও সুগম করা হচ্ছে। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft