শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৯
অর্থকড়ি
বাজারের আগুন নেভানোর চেষ্টায় খুলনা টিসিবি!
১০ জেলায় বিক্রয়কৃত পেঁয়াজের মান নিয়ে প্রশ্ন
এম. আইউব :
Published : Tuesday, 3 December, 2019 at 6:16 AM
১০ জেলায় বিক্রয়কৃত পেঁয়াজের মান নিয়ে প্রশ্নঅবশেষে হুঁশ ফিরেছে খুলনা টিসিবির। বাজারে আগুন লাগার তিন মাস পর ভর্তুকি মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি। যশোরসহ খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় টিসিবি ৩০ হাজার কেজি পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে। সোমবার থেকে ১০ জেলায় একযোগে শুরু হয়েছে এ পেঁয়াজ বিক্রি। তবে, টিসিবির পেঁয়াজের মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ক্রেতারা বলছেন, তুলনামূলক নিম্নমানের পেঁয়াজ এটি।
গত সেপ্টেম্বরের শুরুতে সারাদেশে পেঁয়াজের বাজারে আগুন লাগে। ভারত তাদের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ার সাথে সাথে তিন থেকে চারগুণ দাম বেড়ে যায়। এরপর পর্যায়ক্রমে দাম বাড়তে থাকে। কোনোভাবে লাগাম টানতে পারেনি প্রশাসন। এনিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এরমধ্যে টিসিবি ঢাকা বিভাগে সরকার নির্ধারিত মূল্যে পেঁয়াজ বিক্রি করলেও খুলনা বিভাগে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। টিসিবির খুলনার কর্মকর্তারা শুরু থেকে তারা প্রস্তুত রয়েছে বলে জানিয়ে আসছিলেন। কিন্তু ভোক্তা পর্যায়ে কোনো পেঁয়াজ বিক্রি করছিল না। দীর্ঘ তিনমাস ধরে যখন দাম কমছে না তখন পেঁয়াজ বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছে খুলনা টিসিবি।
টিসিবির একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় একযোগে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয়েছে সোমবার থেকে। প্রত্যেক জেলার জন্যে তিন হাজার কেজি পেঁয়াজ বরাদ্ধ করা হয়েছে। তিনদিনে এই পেঁয়াজ বিক্রি করা হবে। প্রতিদিন বিক্রি করা হবে এক হাজার কেজি করে। একজন ক্রেতা একদিনে সর্বোচ্চ এক কেজি করে পেঁয়াজ কিনতে পারবেন। তিনি চাইলে তিনদিনে তিন কেজি পেঁয়াজ কিনতে পারবেন বলে জানিয়েছেন।
সোমবার যশোরের দড়াটানা মোড় থেকে টিসিবির পেঁয়াজ কিনেছেন এমন কয়েকজন ক্রেতা জানান, পেঁয়াজ তুলনামূলক নি¤œমানের। এই পেঁয়াজ বেশি দিন রাখা যাবে না। কারণ ভিজে ভিজে। চাপ দিলে পানি বের হচ্ছে। তারপরও ৪৫ টাকা কেজি হওয়ায় শ’ শ’ লোক ভিড় করে পেঁয়াজ কেনার জন্যে। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে এই পেঁয়াজ কেনেন ক্রেতারা। অনেকেই দীর্ঘ লাইন দেখে ফিরে যান। তুরস্ক থেকে আমদানি করা এই পেঁয়াজে সন্তুষ্ট না ক্রেতারা। অনেকের বক্তব্য টিসিবি পেঁয়াজ বিক্রির নামে দায়সারা কাজ করছে। তাদের উচিত মানসম্মত পণ্য বিক্রি করা। যশোরে টিসিবির ডিলার মাহফুজুর রহমান জানান, তারা পেঁয়াজ পাওয়ার সাথে সাথে বিক্রি শুরু করেছেন। মান নিয়ে তিনি কোনো রকম মন্তব্য করতে রাজি হননি। কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের বাজার কর্মকর্তা সুজাত হোসেন খান সাংবাদিকদের বলেন, সুষ্ঠুভাবে পেঁয়াজ বিক্রি করতে তারা তদারকি করছেন।
এ ব্যাপারে টিসিবি খুলনার সিনিয়র এক্সিকিউটিভ রবিউল মোর্শেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তুরস্ক থেকে আনা পেঁয়াজ প্রথম পর্যায়ে প্রতি জেলায় তিন হাজার কেজি করে বিক্রি করা হচ্ছে। এরপর মজুত থাকা সাপেক্ষে আরও বরাদ্ধ করা হবে। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft