শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০
শিক্ষা বার্তা
জেএসসির উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়ন
পরীক্ষকদের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলো ৮৭৬৪ পরীক্ষার্থী
এম. আইউব :
Published : Friday, 10 January, 2020 at 6:21 AM
পরীক্ষকদের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলো ৮৭৬৪ পরীক্ষার্থীজুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট-জেএসসি পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়নের সাথে জড়িত পরীক্ষকদের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে প্রায় নয় হাজার পরীক্ষার্থী। পরীক্ষায় কাঙ্খিত নম্বর না পাওয়ায় পরীক্ষার্থীরা এ চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে। পরীক্ষার্থীদের দাবি, পরীক্ষকরা যেভাবে উত্তরপত্র মূল্যায়ন করেছেন তাতে ভুল থাকতে পারে। এ কারণে তারা পুনর্মূল্যায়নের আবেদন জানিয়েছে।
২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত জেএসসি পরীক্ষায় যশোর শিক্ষাবোর্ডের অধীন ১০ জেলা থেকে আট হাজার সাতশ’ ৬৪ জন পরীক্ষার্থী উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়নের আবেদন করেছে। পহেলা জানুয়ারি থেকে শুরু হয় এ আবেদন গ্রহণ। শেষ হয়েছে ৭ জানুয়ারি।
উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়নের জন্যে যে আবেদন জমা হয়েছে তার মধ্যে বাংলায় নয়শ’ ৪৬, ইংরেজিতে তিন হাজার তিনশ’ ৯৬, গণিতে এক হাজার তিনশ’ ২৫, ইসলাম ধর্মে তিনশ’ ৭৪, হিন্দু ধর্মে ৫৮, খ্রিস্টান ধর্মে এক, বিজ্ঞানে এক হাজার ছয়শ’ ২৮, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়ে ছয়শ’ ৮০ ও আইসিটিতে তিনশ’ ৫৬ টি রয়েছে। আগামী ২৯ জানুয়ারি পুনর্মূল্যায়নের ফল প্রকাশ করা হবে।
শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যেসব উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়নের জন্যে আবেদন পড়েছে সেগুলো আগামী ১২ থেকে ১৪ জানুয়ারির মধ্যে জমা দেয়ার জন্যে প্রধান পরীক্ষকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জমা হওয়ার পরে ওইসব উত্তরপত্র নির্ধারিত পরীক্ষকদের কাছে পুনর্মূল্যায়নের জন্যে দেয়া হবে। গত বছর জেএসসিতে উত্তরপত্র পুনর্মূল্যায়নের জন্যে ১০ হাজার ৭শ’ ৮৬ টি আবেদন জমা পড়ে। পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল ২ লাখ ৩৫ হাজার আটশ’ ২২জন পরীক্ষার্থী।
২০১৯ সালে যশোর শিক্ষাবোর্ডের ২৫শ’ ৩২ টি স্কুল থেকে জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে দু’ লাখ ৩৩ হাজার আটশ’ ২৯ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে ছেলে শিক্ষার্থী ছিল এক লাখ ১২ হাজার একশ’ ৪১ ও মেয়ে এক লাখ ২১ হাজার ছয়শ’ ৮৮ জন। এদের মধ্যে পাস করে দু’ লাখ ১২ হাজার নয়শ’ ৭৬ জন। কৃতকার্যদের মধ্যে ছেলে ছিল এক লাখ ছয়শ’ ৯৬। আর মেয়ের সংখ্যা এক লাখ ১২ হাজার দুশ’ ৮০। এ বছর'মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে নয় হাজার সাতশ’ ৫৫ পরীক্ষার্থী। এরমধ্যে ছেলে চার হাজার দুশ’ ৩৫ জন। আর পাঁচ হাজার পাঁচশ’ ২০ জন মেয়ে। পাসের দিক থেকে ছেলেদের চেয়ে ১১ হাজার পাঁচশ’ ৮৪ জন বেশি মেয়ে রয়েছে। গত বছর পরীক্ষার্থী ছিল দু’ লাখ ৩৫ হাজার আটশ’ ২২ জন।
এ বছর যশোর বোর্ডে পাসের হার ৯১.০৮। যা সারাদেশে সাতটি শিক্ষাবোর্ডের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।
পাসের হারে জেলার দিক থেকে শীর্ষে রয়েছে সাতক্ষীরা। এ জেলায় পাসের হার ৯৪.৫০। এরপর অবস্থান খুলনার। খুলনায় পাসের হার ৯৩.৭২। এছাড়া, যশোরে ৯১.৬৫, বাগেরহাটে ৯১.৩৬, মাগুরায় ৯০.৭০, মেহেরপুরে ৯০.১৭, ঝিনাইদহে ৮৯.৮৩, চুয়াডাঙ্গায় ৮৯.০৯, নড়াইলে ৮৮.৭৯ ও কুষ্টিয়ায় ৮৮.৭৫ শতাংশ।
শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন, পুনর্মূল্যায়নের ক্ষেত্রে নতুন করে কোনো নম্বর দেয়া হয় না। কেবলমাত্র যোগ-বিয়োগে ভুল হয়েছে কিনা সেটি যাচাই করা হয়। একইসাথে কোনো প্রশ্নের উত্তরে একেবারেই নম্বর দেয়া না হলে কেবলমাত্র সেই নম্বর দেয়া হয়ে থাকে।
এসব বিষয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মাধব চন্দ্র রুদ্র বলেন, পুনর্মূল্যায়নে আবেদনের সংখ্যা কমেছে। গত বছরের তুলনায় এবার প্রায় দু’ হাজার আবেদন কম পড়েছে। যেসব আবেদন এসেছে সেগুলো যাতে নির্ভুলভাবে মূল্যায়ন হয় সেই নির্দেশনা দেয়া হবে। যাতে করে পরীক্ষার্থীরা কোনো রকম অবিচারের শিকার না হয়। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft