শুক্রবার, ০৫ জুন, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
শার্শার গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার ডিএনএ টেস্ট
দারোগা খায়রুল নয়, জড়িত আর এক ব্যক্তি
অভিজিৎ ব্যানার্জী :
Published : Wednesday, 22 January, 2020 at 6:32 AM
দারোগা খায়রুল নয়, জড়িত আর এক ব্যক্তি যশোরের শার্শায় গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার ডিএনএ টেস্টে এক জনের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ মিলেছে। অভিযোগ ছিল, পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর খায়রুল আলম ও তিন সোর্সের বিরুদ্ধে। তবে খায়রুলের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি।
অভিযোগ তদন্তে পিবিআই পরিস্কার হয়েছে, ভিকটিম একজনকে ফোন করে ডেকে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হন। ২১ জানুয়ারি পিবিআই যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম কে এইচ জাহাঙ্গীর হোসেন তার কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য দিয়েছেন।
গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ২ টার দিকে শার্শার গোড়পাড়া পুলিশ ফাঁড়ির আইসি এসআই খায়রুল আলমের নেতৃত্বে মাদক মামলার আসামির স্ত্রীকে গণধর্ষণ করা হয় বলে ৩ সেপ্টেম্বর সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করা হয়। বলা হয় খায়রুল ছাড়াও ওই এলাকার সোর্স নামধারী চটকাপোতা গ্রামের কামারুল, লক্ষণপুরের আব্দুল লতিফ ও আব্দুল কাদের ধর্ষণ ঘটনায় জড়িত। কিন্তু আসামি করেন ৩ জনকে। আর অজ্ঞাত করেন এক জনকে। মামলাটি পুলিশ হেড কোয়ার্টারের নির্দেশে ৬ সেপ্টেম্বর তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় পিবিআই যশোরকে। তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত হন ইন্সপেক্টর শেখ মোনায়েম হোসেন।
৬ সেপ্টেম্বর তিনি গৃহবধূর বাড়ি পরিদর্শন ও জবানবন্দি গ্রহণ করেন। মামলায় নাম না থাকলেও পিবিআইকে দেয়া ভিকটিমের বক্তব্য ও পুলিশের হেফাজতে যাওয়ার আগে সাংবাদিকদের সামনে এসআই খায়রুলকে ধর্ষণকারী হিসেবে অভিযুক্ত করার বিষয়টি নিয়েও তদন্ত শুরু করেন তিনি। তদন্ত কর্মকর্তা ভিকটিমের সোয়াপ কালেকশন করে আসামিদের ডিএনএ প্রোফাইলের জন্যে সিআইডি হেড কোয়ার্টারে পাঠান। তদন্তের অংশ হিসেবে ডাক্তারি পরীক্ষায় পাওয়া ধর্ষণের আলামতের সাথে ৩ অভিযুক্তের ডিএনএ টেস্ট করাতে আদালতের অনুমতিও নেয়া হয়। এরপর তিন আসামি ও দারোগা খায়রুলের ডিএনএ টেস্ট করানো হয়। ডিএনএ ও সোয়াপ টেস্ট রিপোর্ট ল্যাব থেকে ৮ জানুয়ারি পিবিআই যশোরের হাতে পৌঁছায়। টেস্ট ছাড়াও ঘটনার দিন অভিযুক্তদের অবস্থান, মোবইল ফোনের কল রেকর্ড নিয়ে তদন্ত করা হয়। এক পর্যায়ে গৃহবধূ ধর্ষণের রহস্য উদঘাটনে পিবিআই সন্তোষজনক অবস্থানে পৌঁছায়।
প্রেস ব্রিপিংয়ে পিবিআই যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান,  ভুক্তভোগীর অভিযোগে আটককৃত ৩ আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতে সোপর্দ করা হয়। তাদের মধ্যে ১ জন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এছাড়া আটককৃত ৩ জনের ডিএনএ পরীক্ষা করা হয়। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি পর্যালোচনায় দেখা যায়, স্বীকারোক্তি প্রদানকারী আসামি ভিকটিমের পূর্ব পরিচিত এবং পারিবারিকভাবে তাদের মধ্যে সম্পর্ক ছিল। সে সূত্রে তাদের মধ্যে অনৈতিক সম্পর্ক হয় এবং ওই ঘটনার আগে তাদের মাঝে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক হয় মর্মে জবানবন্দিতে জানা যায়। ডিএনএ পরীক্ষায় স্বীকারোক্তি দেয়া অভিযুক্ত ব্যক্তির সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। অন্য ২ জনও ভুক্তভোগীর পূর্ব পরিচিত। উভয়ের সাথেই তার একাধিক বিষয় নিয়ে শত্রুতার সৃষ্টি হয়। স্বীকারোক্তি প্রদানকারী আসামির সাথে ভিকটিমের সুসম্পর্ক থাকায় তার স্বামীকে মাদক মামলায় অব্যাহতি পাওয়ার প্রলোভন দেয়। ঘটনার একদিন আগে ভুক্তভোগী জেলখানায় স্বামীর সাথে দেখা করেন। জবানবন্দির তথ্যানুযায়ী তদন্তে দেখা যায়, ঘটনার দিন ১ আসামিকে ফোন করে পূর্ব পরিকল্পনানুযায়ী উভয়ে শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হন। নিজ মোবাইল দিয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে ফোন করেন যা সিডিআর পর্যালোচনায় সত্যতা পাওয়া যায়। তদন্তকালে আরো জানা যায়, ঘটনার রাত্রে বাদীর সাথে একই ঘরে তার বড় ভাইয়ের মেয়ে অবস্থান করছিলেন।
তাছাড়া ঘটনার দিন এসআই খায়রুল আলমের অবস্থান বাদীর উল্লেখিত ঘটনাস্থলে ছিলনা। তদন্তকালে তার মোবাইল কললিস্ট পর্যালোচনা, সন্দেহভাজন অন্যান্য ব্যক্তিদের সাথে ফোনের যোগাযোগ এবং অফিসিয়াল অন্যান্য নথি পর্যালোচনায় এসব তথ্য মেলে। এসআই খায়রুল আলমের ও কথিত ২ জন সোর্সের ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া যায় ঘটনার সাথে গোড়পাড়া ক্যাম্পের আইসি এসআই খায়রুল আলমের জড়িত থাকার বিষয়টি প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়নি। ঘটনায় প্রাথমিকভাবে যে ব্যক্তির সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে তার বিরুদ্ধে পুলিশ রিপোর্ট দাখিলের প্রক্রিয়া চলছে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft