বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০
জাতীয়
অগ্নিঝরা মার্চ
মোহাম্মদ হাকিম
Published : Monday, 16 March, 2020 at 6:23 AM
অগ্নিঝরা মার্চএকাত্তরের অগ্নিঝরা মার্চের আজ ষোলোতম দিন। একাত্তরের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল আগা মোহাম্মদ ইয়াহিয়া খানের বৈঠক হয়। বৈঠকে পাকি প্রেসিডেন্টের সামনে বাঙালির ওপর নির্বিচারে গুলিবর্ষণ এবং হত্যাকান্ডে ক্ষোভে ফেটে পড়েন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। বঙ্গবন্ধু দ্রুত সামরিক আইন প্রত্যাহার এবং সকল হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।  
সকাল পৌনে ১১টার দিকে ধানমন্ডির বাসভবন থেকে বঙ্গবন্ধু যখন রাষ্ট্রপতি ভবনের উদ্দেশে রওনা হন, তখন পুরো রাস্তায় মুক্তিপাগল বাঙালির সেøাগানে সেøাগানে প্রকম্পিত রাজপথ। পুরো পথেই বাঙালি ‘জয় বাংলা’ সেøাগানে মুখরিত রাখে। মাঝে মাঝে থেকে বঙ্গবন্ধুও জয় বাংলা বলে তাঁর কর্মী, সমর্থক ও ভক্তদের অনুপ্রেরণ দেন। তখন বঙ্গবন্ধুর গাড়িতে উড়ছিল কালো পতাকা। বাঙালি হত্যার প্রতীকী প্রতিবাদ হিসাবে সাদা মোটর গাড়িতেহ কালো পতাকা উড়িয়েই প্রেসিডেন্ট ভবনে যান বঙ্গবন্ধু। পাকি প্রেসিডেন্ট নিজেই বঙ্গবন্ধুকে স্বাগত জানান।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আগেই পূর্বশর্তারোপ করে বলেছিলেন, বৈঠক হবে ‘ওয়ান টু ওয়ান’। পাক প্রেসিডেন্ট বঙ্গবন্ধুর সেই শর্ত মেনে নিয়ে তাঁর সঙ্গে সকাল ১১টায় একাকী রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন। সংসদীয় ক্ষমতার অধিকার এবং পূর্ব বাংলার অবিসংবাদিত নেতা, যাঁর অঙ্গুলি হেলনে পুরো দেশটি চলছে, সেই বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে প্রায় আড়াই ঘণ্টা বৈঠক করেন পাকি প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া। বৈঠক শেষ হলেও দু’পক্ষই ছিলেন নিশ্চুপ।
তখন বাইরে অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় দেশী-বিদেশী প্রচুর সাংবাদিক। রাস্তায় দাঁড়িয়ে মিছিল করছে বীর বাঙালি। বঙ্গবন্ধু প্রেসিডেন্ট ভবন থেকে বেরিয়ে প্রধান ফটকের সামনে পৌঁছলে সেখানে আগে থেকেই অপেক্ষায় থাকা দেশী-বিদেশী সাংবাদিক ও আলোকচিত্রিরা তাঁর গাড়ি ঘিরে ধরেন। প্রথমে কিছুই বলতে চাননি বঙ্গবন্ধু। পরে বঙ্গবন্ধু স্বেচ্ছায় গাড়ি থেকে নেমে এসে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। বঙ্গবন্ধু বলেন, আলোচনা দু’এক মিনিটের ব্যাপার নয়। এজন্য সময়ের দরকার। আলোচনা চলছে, কাল সকালেও আবার বৈঠকে বসব। এর চেয়ে বেশি আমার বলার নেই। নানা প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধু শুধু এটুকু বলেন, ‘রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আমি রাজনৈতিক ও অন্যান্য সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেছি এবং বাস্তবতা তুলে ধরেছি।’
প্রায় আড়াই ঘণ্টার বৈঠকে কী হলো? পাকি প্রেসিডেন্ট বঙ্গবন্ধুর সব দাবি মেনে নেবেন, নাকি রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ করেই আদায় করতে হবে সব দাবি? এসব প্রশ্নের কোন কুল-কিনারা পাচ্ছিলেন না রাজপথে নেমে আসা মুক্তিপাগল বীর বাঙালি। কিন্তু সবাই এটুকু নিশ্চিত বুঝে গেছেন, স্বাধীনতার প্রশ্নে বঙ্গবন্ধু একচুলও নড়বেন না। বৈঠক শেষে প্রেসিডেন্ট ভবন থেকে সরাসরি ধানম-ির বাসভবনে ফিরে যান বঙ্গবন্ধু।
ধানমন্ডির বাসভবনে সকাল থেকেই অপেক্ষায় ছিলেন আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং বঙ্গবন্ধুর সহকর্মীরা। বাসায় ফিরেই বঙ্গবন্ধু নেতাদের সঙ্গে নিয়ে দীর্ঘ আলোচনায় বসেন। গভীর রাত পর্যন্ত বৈঠকটি চলে। দু’দফা বৈঠকে বঙ্গবন্ধু তাঁর সহকর্মীদের পাকি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়বস্তু, অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করার পাশাপাশি পরের দিনের বৈঠকের কৌশল নিয়ে আলোচনা করেন।
সারাদেশের অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজ বন্ধ। সব সরকারি ভবন, হাটবাজার এমনকি পাড়া-মহল্লায়ও উড়ছে প্রতিবাদের কালো পতাকা। কোথাও কোথাও বাংলাদেশের নতুন পতাকাও উড়তে থাকে। মহল্লায় মহল্লায় গড়ে উঠতে থাকে সংগ্রাম কমিটি। সব বয়স সব পেশা ও শ্রেণীর মানুষ বেরিয়ে আসতে থাকে রাজপথে। স্বাধীনতার অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষিত বঙ্গবন্ধুকে আরও উজ্জীবিত করতে রাস্তায়, মাঠে-ময়দানে তখন গণসঙ্গীত, নাটক, পথনাটক ও পথসভা করে চলছে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, বেতার-টেলিভিশন শিল্পী সংসদ, মহিলা পরিষদ প্রভৃতি সংগঠন। হাইকোর্টের আইনজীবী, বেসামরিক কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন বঙ্গবন্ধুর অসহযোগ আন্দোলনে একাত্মতা ঘোষণা করতে থাকেন। 



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft