সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
আজ মহান স্বাধীনতা দিবস
বাঁচার লড়াইয়ে শপথ নেয়ার দিন
আসাদ আসাদুজ্জামান :
Published : Thursday, 26 March, 2020 at 6:12 AM
বাঁচার লড়াইয়ে শপথ নেয়ার দিন আজ ২৬ মার্চ, মহান স্বাধীনতা দিবস। আজ বাঙালি মাত্রই উৎসবে মেতে উঠবে এমনটিই ভেবেছিল সবাই। কিন্তু প্রাণের সে উৎসব এবার এসেছে ভিন্ন আঙ্গিকে। করোনাভাইরাসের করাল গ্রাসে এবারের সব উৎসব কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। আজ তাই মহান স্বাধীনতা দিবসে ১৬ কোটি বাঙালিকে নিতে হচ্ছে ভিন্ন শপথ। ঘোষণা করতে হচ্ছে নতুন লড়াই। এ লড়াই করোনার বিরুদ্ধে। এ লড়াই বাঁচার লড়াই।
এবারের উৎসব একটু বেশি করেই হওয়ার কথা ছিল। কেননা, এ বছরের ১৭ মার্চ ছিল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী। যা নিয়ে রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে শুরু করে বাঙালির প্রতিটি ঘরে ঘরে লেগে যায় উৎসবের ধুম। বাঙালীর হাতে আজ উন্নয়নের দলিল। আজ অনন্য উচ্চতায় বাংলাদেশ। কাজেই বাঙালি মেতে উঠবে উৎসবে, এটাই স্বাভাবিক! কিন্তু করোনাভাইরাসের করাল গ্রাসে স্থবির বাংলাদেশ। মহা আতঙ্কে গোটা বিশ্ব। তাইতো আজ মহান স্বাধীনতা দিবসের সব কর্মসূচি স্থগিত। এমনকী স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন কর্মসূচিও বাতিল করা হয়েছে।
১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের ভয়াল কালো রাতে রক্ত পিপাসু হায়েনার দল যে রক্ত গঙ্গা বইয়েছিল, যে গণহত্যা তারা শুরু করেছিল, তার জবাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সিদ্ধান্ত নিতে ভুল কিংবা দেরি করেননি। ২৫ মার্চের মধ্যরাতে, অর্থাৎ ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। আজ সেই দিন। আজ বাংলাদেশের জন্মদিন।
মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একাত্তরের প্রতিটি দিনই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিটি দিবসই রক্তের অক্ষরে লেখা। তারপরও কোনো কোনো তারিখ ত্যাগে, আত্মদানে ও গৌরবের মহিমায় হয়ে ওঠে সমুজ্জ্বল। একটি তারিখ পরিণত হয় সংগ্রামের প্রতীক, শ্রদ্ধা ও বিজয়ের অবিনাশী স্মারকে। এ দিনগুলো এরকম ১ মার্চ থেকে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সারাদেশে অসহযোগ আন্দোলন শুরু, ৩ মার্চ যশোরে পাকিস্তানী বাহিনীর গুলিতে চারুবালা করের মৃত্যু, ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদান, ২৫ মার্চ ভয়াল কালো রাত, ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা, ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠন, ১১ জুলাই সেক্টর কমান্ডারদের বৈঠক, ১ আগস্ট দ্যা কনসার্ট ফর বাংলাদেশ, ৩ ডিসেম্বর ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ, ৬ ডিসেম্বর যশোরের শত্রুমুক্ত দিবস ও বাংলাদেশকে ভারতের স্বীকৃতি, ৪-১৫ ডিসেম্বর জাতিসংঘে বাংলাদেশ-বিতর্ক, ১১ ডিসেম্বর যশোরের ঐতিহাসিক টাউন হল মাঠে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রবাসী সরকারের প্রথম জনসভা, ১৪ ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী হত্যা এবং ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানীদের আত্মসমর্পনের মধ্যদিয়ে বাঙালীর চূড়ান্ত বিজয়। একাত্তরে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ যে ভৌগোলিক সীমা ছাড়িয়ে বিশ্বজনীন রূপ নিয়েছিল, কোনো কোনো তারিখে তাও প্রতীকায়িত হয়েছে। শোক ও বীরত্বগাঁথায় ঋদ্ধ এ দিনগুলো বাঙালীর কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে কেবল ইতিহাসের সাক্ষ্য নয়, ভবিষ্যতের পথচলায় নিত্যপ্রেরণা হিসেবেও।
আশার কথা হল, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার নির্বাচনী অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করতে একাত্তরের মানবতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। সেই সাথে দেশকে আরও কয়েক ধাপ এগিয়ে নিতে নিরলস কাজ করে চলেছে দেশ প্রেমিক সরকার। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলেছে দ্রুত গতিতে। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশ। জাতি সমৃদ্ধ অর্থনীতি দেখতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষায়। ১৬ কোটি বাঙালি শুধু উন্নয়নই নয়, বঙ্গবন্ধুর বৈষম্যহীন-শোষণহীন স্বপ্নের সোনার বাংলা চায়।
তবে এসব শপথের পাশাপাশি আজ ১৬ কোটি বাঙালিকে ভয়াল করোনাভাইরাস রুখতে শপথ নিতে হবে। এসময় সরকারের নেয়া যাবতীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নে সবাইকে আন্তরিকতা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। নিতে হবে স্বাস্থ্য নিরাপত্তায় সচেতন থাকার শপথ।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft