মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই, ২০২০
আন্তর্জাতিক সংবাদ
এবার প্রাণঘাতী ভীমরুলের হানা যুক্তরাষ্ট্রে
আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
Published : Thursday, 7 May, 2020 at 11:17 AM
এবার প্রাণঘাতী ভীমরুলের হানা যুক্তরাষ্ট্রেকরোনা সংক্রমণে সাংঘাতিক অবস্থা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। গোটা দেশ যেন মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। এই অবস্থা থেকে নিস্তার কবে, তা কারোর জানা নেই। এরই মধ্যে নতুন এক আতঙ্কের আবির্ভাব হল ওয়াশিংটনে। তার নাম মার্ডার হর্নেট (প্রাণঘাতী ভীমরুল)। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের
সম্প্রতি এই জায়ান্ট হর্নেট পাওয়া গিয়েছে ওয়াশিংটনে। ২ ইঞ্চি লম্বা এই এশিয়ান পোকা পাওয়ার পর থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। কারণ এর একাধিক ধারালো হুল রয়েছে যা মানুষকে কামড়ালে সাংঘাতিক পরিণতি হতে পারে। ছোট অবস্থায় এদের খাদ্য হল মৌমাছি।
বিজ্ঞানীরা এই মুহূর্তে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই প্রাণঘাতী বিষাক্ত ভীমরুল খুঁজছেন। এই প্রাণঘাতী পোকা ছড়িয়ে পড়ার আগেই তাদের ধ্বংস করতে চাইছেন বিজ্ঞানীরা।
নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, মানব সমাজ থেকে দূরে থাকলেও এশিয়া প্রতি বছর ৫০ জন করে মানুষের মৃত্যু হয় এই মার্ডার হর্নেটের কামড়ে। এটি সাধারণত এশিয়ার দেশগুলিতেই দেখা যায়।
উত্তর আমেরিকায় প্রথম এই পোকার খোঁজ পাওয়া যায় ২০১৯ এর আগস্টে। এর পরে ব্রিটিশ কলাম্বিয়া, কানাডায় ছড়ায়। কয়েক মাস পরে ওয়াশিংটনে এই পোকার খোঁজ মেলে। ওয়াশিংটন স্টেট ইউনিভার্সিটি এখনও ধরতে পারেনি, ঠিক কোথা থেকে এবং কীভাবে এই মার্ডার হর্নেট উত্তর আমেরিকায় এল। তবে এই মাসে বেশ কয়েকজন মৌমাছি খামারের কর্মীদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তাই এখন থেকেই এই প্রজাতির ভীমরুলকে ধ্বংস করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।
বিজ্ঞানী টোড মুরে বলছেন, এই পোকাগুলি আকারে বেশ বড়। প্রায় দেশলাই বাক্সের মতো সাইজ এই প্রাণঘাতী ভীমরুলের। এদের বিরাট মাথা হলুদ ও কমলার মিশেলে। চোখের রং কালো। পেটের কাছে কালো ও হলুদের ডোরাকাটা। এশিয়ায়ে এপ্রিলে এই পোকাগুলি বিস্তার শুরু করে। স্ত্রী ভীমরুল হাইবারনেশন থেকে ফিরে নিজের বংশ বিস্তার করে। এরপরে শ্রমিক ভীমরুলগুলি খাবারের সন্ধানে বেরিয়ে পড়ে। এই শ্রমিক ভীমরুলগুলি মৌমাছি মেরে নিয়ে আসে এবং তার পরে বাচ্চা ভীমরুলগুলিকে খাওয়ায়। কয়েকঘণ্টায় এই মার্ডার হর্নেট মৌমাছির একটি বাসা নষ্ট করে ফেলতে পারে।
বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, একাধিক বিষাক্ত হুল দিয়ে মানুষকে যদি এরা কামড়ায় তাহলে তার মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। যারা অ্যালার্জিক নয় তাদেরও মৃত্যু হতে পারে এর কামড়ে। জাপানে এই পোকাগুলি সবচেয়ে বেশি দেখা যায়।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft