শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত হলো ডুমুরিয়ায় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ
সাব্বির খান ডালিম, ডুমুরিয়া (খুলনা)
Published : Friday, 29 May, 2020 at 11:01 PM
স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত হলো ডুমুরিয়ায় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ ডুমুরিয়ায় আম্পান ও জলোচ্ছ¡াসে ক্ষতিগ্রস্ত পাউবোর বেড়িবাঁধটি অবশেষে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে নির্মাণ করা হয়েছে। শুক্রবার স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে শ’শ’ মানুষের স্বেচ্ছাশ্রমের মধ্য দিয়ে বাঁধের ক্ষতিগ্রস্ত স্থান নির্মাণ করা হয়। এদিন বাঁধটি পরিদর্শন করেন খুলনা-৫ আসনের সাবেক মন্ত্রী ও সংসদ সদস্য নারায়ন চন্দ্র চন্দ।    
ঘুর্ণিঝড় আম্পান গত ২০ মে রাতে খুলনার ডুমুরিয়ায় আঘাত হানে। এর ফলে প্রচন্ড জলোচ্ছ¡াসে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ১৭/১ পোল্ডারের আওতাধীন কোরাকাটা ও হেতালবুনিয়ার বেড়িবাঁধ উপচে পানি ভেতরে প্রবেশ করে। এতে বাঁধের প্রায় পাঁচশ’ গজ পর্যন্ত ব্যাপক ক্ষতি হয়। ওই পোল্ডারের আওতায় মাগুরখালী, শোভনা ও আটলিয়া ইউনিয়ন। এলাকাটি উপক‚ল ও অতি নি¤œাঞ্চল হওয়ায় বাঁধ অধিকাংশ সময় ক্ষতি হতে দেখা যায়। ফলে বছরে কয়েকবার এসব অঞ্চল বাঁধভাঙা পানিতে প্লাবিত হয়। অবিলম্বে বাঁধ স্থায়ীভাবে সংস্কারের প্রয়োজন বলে মনে করেন এলাকাবাসী।
মাগুরখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ সানা বলেন, ঘুর্ণিঝড় আম্পান ও জলোচ্ছ¡াসে ওয়াপদার বাঁধ উপচে সালতা নদীর পানি ভেতরে প্রবেশ করে বাঁধ ও এলাকার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। শুক্রবার দিনব্যাপী ২০ গ্রামের প্রায় দু’হাজার মানুষের স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে বাঁধটি মেরামত করা হয়েছে। তবে স্থায়ীভাবে বাঁধ মেরামত না হলে আবারও ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
এপ্রসঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পলাশ ব্যানার্জী বলেন, ওই অঞ্চলের বেড়ি বাঁধ একেবারই বেহাল অবস্থা হয়ে গেছে। যে কারণে নদীতে পানি বৃদ্ধি পেলেই বাঁধ উপচে ভেতরে পানি ঢোকে। এখানে টেকসই বেড়িবাঁধের একান্ত প্রয়োজন। ইতোমধ্যে আমরা এক হাজার সাতশ’ ৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি মেগা প্রকল্পের প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। সেটি শুধু অনুমোদনের অপেক্ষায়। অনুমোদন হয়ে আসলে ডুমুরিয়ার সকল বেড়িবাঁধের স্থায়ী সমাধান হবে।
নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি বলেন, ‘আমার সংসদীয় আসনের মধ্যে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ১৭/১ পোল্ডারের আওতাধীন বেড়িবাঁধের আওতায় মাগুরখালী, সাহস ও আটলিয়া তিনটি ইউনিয়ন রয়েছে। এ অঞ্চলটি প্রত্যন্ত এবং নি¤œাঞ্চলের মধ্যে অবস্থিত। আমি সরেজমিনে গিয়ে দেখলাম, বেশ কিছু বাঁধের ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধটি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সমবেত হয়ে সাধারণ জনগণকে নিয়ে মেরামত করেছেন। কিন্তু বাঁধটি স্থায়ীভাবে সংস্কারের দরকার। আমি বিষয়টি পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করবো। যাতে আরও মজবুত করে বেড়িবাঁধটি নির্মাণ হয়।’
তিনি আরও বলেন, ‘বার বার সংস্কার করতে যে অর্থ ব্যয় হচ্ছে, সেটা যদি এককালীন ব্যয় হয়, তাহলে বাঁধের স্থায়ী একটা সমাধান আসবে বলে আমি মনে করি।’




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft