শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০
শিক্ষা বার্তা
এসএসসি’র চার বছরে মেধার মুকুট পরেছে ৪০ হাজার শিক্ষার্থী
জিপিএ-৫ এ ছেলেদের জয়জয়াকার
জাহিদ আহমেদ লিটন :
Published : Tuesday, 2 June, 2020 at 12:36 AM
জিপিএ-৫ এ ছেলেদের জয়জয়াকারএসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএ-৫ এ ছেলেদের জয়জয়াকার চলছে। গত চার বছর যাবৎ তারা এ জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে। এসময়ে তারা প্রায় দেড় হাজার মেয়েকে পিছনে ফেলেছে। এ পরীক্ষায় গত চার বছরে জিপিএ-৫ পেয়েছে প্রায় ৪০ হাজার ছাত্রছাত্রী। এরমধ্যে ছেলেরা পেয়েছে ২০ হাজার ৪৬১ ও মেয়েরা পেয়েছে ১৯ হাজার ১০৬ জন।
যশোর শিক্ষাবোর্ডের এসএসসির ফলাফলের পরিসংখ্যানে এ তথ্য মিলেছে।
যশোর শিক্ষাবোর্ডের অধীনে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় বরাবরই ছেলেরা মেধার স্বাক্ষর রেখে চলেছে। পাসের দিক থেকে তারা মেয়েদের থেকে পিছিয়ে থাকলেও মেধাবীদের তালিকায় এগিয়ে রয়েছে ছেলেরা। এসএসসিতে মেধার যুদ্ধে তাদের কাছে গত চার বছরে মেয়েরা ধরাশায়ী হয়েছে। মেধার তালিকায় ছেলেরা মেয়েদের পেছনে ফেলে সমানতালে এগিয়ে চলেছে। এ নিয়ে শিক্ষকরা বলেছেন, ছেলেরা তীক্ষè বুদ্ধি সম্পন্ন হয়, তাদের খুব বেশি পড়াশুনা করতে হয় না। অল্পতেই তারা সবকিছু বুঝে যায়। ইন্টারনেটে আধুনিক সব তথ্যের খোঁজ রাখে। এ কারণে স্বভাবিকভাবেই তারা মেধাবী হয় ও ফলাফলে ভালো করে।
যশোর শিক্ষাবোর্ড সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষায় এক লাখ ৬০ হাজার ৬৩৫ জন ছাত্রছাত্রী অংশ গ্রহণ করে। এরমধ্যে পাস করেছে এক লাখ ৪০ হাজার ২৪৩ জন। পাসের হার ৮৭ দশমিক ৩১ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৩ হাজার ৭৬৪ জন ছাত্রছাত্রী। এরমধ্যে ছেলেরা পেয়েছে ৬ হাজার ৯৫৬ ও মেয়েরা পেয়েছে ৬ হাজার ৮০৮ জন। এ হিসেবে ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা পিছিয়ে রয়েছে ১৪৮ জন।
২০১৯ সালের এসএসসিতে অংশ গ্রহণ করে এক লাখ ৮২ হাজার ৩১০ পরীক্ষার্থী। এরমধ্যে পাস করেছে এক লাখ ৬৫ হাজার ৬৮৮ জন। পাসের হার ছিল ৯০ দশমিক ৮৮ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯ হাজার ৯৪৮ জন ছাত্রছাত্রী। এরমধ্যে ছেলেরা পেয়েছে ৪ হাজার ৯৬৩ ও মেয়েরা পেয়েছে ৪ হাজার ৯৮৫ জন। এ হিসেবে ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা ২২ জন এগিয়ে রয়েছে।
২০১৮ সালের এসএসসিতে অংশ গ্রহণ করে এক লাখ ৮৩ হাজার ৫৮৫ পরীক্ষার্থী। এরমধ্যে পাস করেছে এক লাখ ৪০ হাজার ৬৯৯ জন। পাসের হার ছিল ৭৬ দশমিক ৬৪ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯ হাজার ৩৯৫ জন ছাত্রছাত্রী। এরমধ্যে ছেলেরা পেয়েছে ৫ হাজার ১৮ ও মেয়েরা পেয়েছে ৪ হাজার ৩৭৭ জন। এ হিসেবে ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা পিছিয়ে রয়েছে ৬৪১ জন।
২০১৭ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে এক লাখ ৫৩ হাজার ৬৭৩ পরীক্ষার্থী। এরমধ্যে পাস করেছে এক লাখ ২২ হাজার ৯৯৫ জন। পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ০৪ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬ হাজার ৪৬০ জন ছাত্রছাত্রী। এরমধ্যে ছেলেরা পেয়েছে ৩ হাজার ৫২৪ ও মেয়েরা পেয়েছে ২ হাজার ৯৩৬ জন। এ হিসেবে ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা পিছিয়ে রয়েছে ৫৮৮ জন।
যশোর বোর্ডে এসএসসির ফলাফলের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১৭ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত গত চার বছরে মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৯ হাজার ৫৬৭ জন ছাত্রছাত্রী। এরমধ্যে ছেলেরা জিপিএ-৫ পেয়েছে ২০ হাজার ৪৬১ জন ও মেয়েরা পেয়েছে ১৯ হাজার ১০৬ জন। এ হিসেবে জিপিএ-৫ এ ছেলেদের চাইতে মেয়েরা এক হাজার ৩৫৫ জন পিছিয়ে রয়েছে। পড়াশুনায় মেধাযুদ্ধে ছেলেরা ধারাবাহিকভাবে মেয়েদের পেছনে ফেলে এগিয়ে চলেছে। শুধুমাত্র ২০১৯ সালে ২২ জন মেয়ে জিপিএ-৫ বেশি পেয়েছিল।
এ বিষয়ে যশোর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক একেএম গোলাম আযম বলেন, পরিস্থিতিগত কারণে মেয়েরা শহরের বিভিন্ন এলাকায় সকল শিক্ষকদের কাছে যেতে পারে না। কিন্তু ছেলেরা অনায়াসে সব জায়গায় চলে যায়। এছাড়া ছেলেরা ইন্টারনেটে শিক্ষাসহ সকল বিষয়ের আপডেট তথ্য জানে। কিন্তু মেয়েদের ক্ষেত্রে এ কাজের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। অভিভাবকরা তাদের মেয়ের হাতে মোবাইল ফোন তুলে দিতে ভয় পান। এ জাতীয় কারণে মেয়েরা মেধা তালিকায় খানিকটা পিছিয়ে গেলেও পাসের হারে তারা এগিয়ে রয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে যশোর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র বলেন, ছেলেদের নিয়ে অভিভাবকরা বেশি চিন্তিত থাকে, এ কারণে তাদের দিকে বেশি নজর রাখে ও বিভিন্ন শিক্ষকদের কাছে পাঠায়। ফলে তারা নানাস্থানে পড়াশুনা করে সঠিক লক্ষ্যে পৌছে যায়। যে কারনে মেধা তালিকায় এগিয়ে রয়েছে।  




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft