শনিবার, ০৪ জুলাই, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
নতুন একজনসহ ১০ জনের মৃত্যু
যশোরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পাচশ’ ছাড়াল
কাগজ সংবাদ :
Published : Sunday, 28 June, 2020 at 12:41 AM

যশোরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পাচশ’ ছাড়ালঅর্ধ সহস্রাধিক ছাড়াল যশোরে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। এক সেনা কর্মকর্তা, চার ব্যাংকার ও দু’স্বাস্থ্যসেবী, ব্যবসায়ী, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীসহ নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন আরও ৪২ জন। করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণকারী একজনের নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে। ফলে করোনার ছোবলে জেলায় মৃত্যুবরণকারীর সংখ্যা দাঁড়াল ১০ জনে।
২৪ ঘণ্টায় (২৬ জুন সকাল ৮টা থেকে ২৭ জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত) নতুন শনাক্ত হওয়া রোগীদের মধ্যে ২৬ জনের বাড়ি অভয়নগর উপজেলায়। এর মধ্যে নওয়াপাড়া পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা রয়েছেন ২১ জন। এছাড়াও আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন সদর উপজেলার সাতজন, শার্শার ছয়জন, ঝিকরগাছা, বাঘারপাড়া ও কেশবপুর উপজেলার একজন করে বাসিন্দা।
স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেব মতে ২৭ জুন নতুন শনাক্ত হওয়া ৪২ জনসহ জেলায় করোনায় আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা পাঁচশ’ আটজন। আক্রান্তদের মধ্যে হাসপাতাল আইসোলেশনে ৩৪ জন এবং হোম আইসোলেশনে তিনশ’ জন মোট তিনশ’ ৩৪ জন চিকিৎসাধীন আছেন। দীর্ঘ লড়াইয়ের পর নতুন সাতজনসহ করোনা জয়ী হয়েছেন একশ’ ৬৪ জন। সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টারের ল্যাব থেকে একশ’ ১৫টি নমুনা পরীক্ষা করে নতুন ৪২টিতে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে মর্মে ২৭ জুন শনিবার সকালে রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ৭৩টি নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছে। নতুন আক্রান্তদের সুচিকিৎসা নিশ্চিতকরণ, তাদের সংস্পর্শে আসাদের কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থাসহ প্রশাসনের সহযোগিতায় বসবাসের বাড়ি লকডাউন করার জন্যে সংশ্লিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার আদনান ইমতিয়াজ জানিয়েছেন, ২৭ জুন নতুন শনাক্ত হওয়া করোনা রোগীর মধ্যে রয়েছেন সেনাবাহিনীর একজন সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পদের একজন কর্মকর্তা (২২)। চট্টগ্রাম থেকে ১৯ জুন তিনি যশোর শহরের আরবপুরে নিজ বাড়িতে এসেছেন। করোনার উপসর্গ দেখা দেয়ায় তিনি নমুনা দেন পরীক্ষার জন্যে। রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে। তিনি হোম আইসোলেশনে আছেন। উন্নত চিকিৎসার জন্যে আজ তিনি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল যশোরে ভর্তি হবেন বলে জানিয়েছেন।
আক্রান্ত অন্যদের মধ্যে রয়েছেন সোনালী ব্যাংক ঝিকরগাছা শাখার ম্যানেজার জহির রায়হান (৪৩) ও সিনিয়র অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান (৩১)। এদের মধ্যে জহির রায়হার শহরতলীর পালবাড়ি ও মোস্তাফিজুর রহমান চাঁচড়া এলাকায় বসবাস করেন। ইসলামী ব্যাংক জীবননগর শাখার একজন পুরুষ কর্মকর্তা (৪৫) করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি শহরের ভোলাট্যাঙ্ক রোড এলাকায় বসবাস করেন। নতুন খয়েরতলা এলাকায় বসবাসকারী এক নারী স্বাস্থ্য কর্মী (৪৮), পশ্চিম বারান্দীপাড়ার ব্যবসায়ী পুরুষ (৬৭) ও শেখহাটি বাবলাতলার এক শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাকির হোসেনের নেতৃত্বে আক্রান্তদের সন্ধান করে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা করাসহ তাদের সংস্পর্শে আসা সহকর্মী ও পরিবারের স্বজনদের চিহ্নিত করে কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। একইসাথে আক্রান্তদের বসবাসের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।
অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার এস এম মাহমুদুর রহমান রিজভী বলেন, উপজেলায় নতুন করে ২৬ জন করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। তাদের মধ্যে করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণকারী বিমলেন্দু চক্রবর্তী নামে অবসরপ্রাপ্ত এক শিক্ষকের নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে। মৃত বিমলেন্দুর বয়স ৬৫ বছর। তিনি সিদ্দিপাশা ইউনিয়নের ধুলগ্রামের বাসিন্দা। গত ২১ জুন রাতে তিনি জ্বর ও তীব্র শ্বাসকষ্ট সমস্যা নিয়ে নিজ বাড়িতেই মারা যান। উপসর্গ থাকায় তার নমুনা সংগ্রহ করে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্যোগে শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন গুয়াখোলা এলাকার একই পরিবারের পাঁচজন। তাদের মধ্যে তিনজন নারীর বয়স যথাক্রমে ৫৫, ২৫ ও ২৬ বছর। দু’জন পুরুষের বয়স যথাক্রমে ৩৮ ও ৩২ বছর। গুয়াখোলা গ্রামের আরও যারা সংক্রমিত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৭৫, ৬২, ৬৫ ও ৬৭ বছর বয়সী চারজন বৃদ্ধ। এছাড়াও রয়েছেন ৪৮ ও ৪৫ বছর বয়সী দু’জন নারী এবং ১৬ বছর বয়সী এক কিশোরী। অন্যান্যদের মধ্যে রয়েছেন মডেল কলেজ পাড়ার এক নারী (২৩), বর্ণি গ্রামের একজন পুরুষ (৪৮), চেঙ্গুটিয়া গ্রামের ৪২ ও ৬০ বছর বয়সী দু’জন পুরুষ এবং ৫০ বছর বয়সী এক নারী, কাপাসহাটি গ্রামের একজন পুরুষ (৫০), শ্রীধরপুর গ্রামের একজন বৃদ্ধ (৮৫), রাজঘাট এলাকার একজন পুরুষ (৪৩), জাফরপুর গ্রামের এক নারী (৪০), বনগ্রামের এক নারী (৫০), বাঘুটিয়ার একজন পুরুষ (৫০), দুর্গাপুর গ্রামের একজন পুরুষ (৪৫) ও পালপাড়ার একজন পুরুষ (৩৮)।
ডাক্তার রিজভী আরও বলেন, নওয়াপড়া গ্রুপের এক পুরুষ কর্মীর (৩৬) নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে। তিনি খুলনার বয়রাতে বসবাস করেন। মণিরামপুরের গাবুখালী গ্রামের ৪৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তি অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে নমুনা দিয়ে যান পরীক্ষার জন্যে। তিনিও করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন মর্মে রেজাল্ট এসেছে। তাদের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। অভয়নগর উপজেলায় বসবাসকারী করোনায় সংক্রমিত প্রত্যেকেই হোম আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার রাশিদুল আলম বলেন, কৃষ্ণনগর খলিফাপাড়ার বাসিন্দা ও কৃষি ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম (৬৯) করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। নিজ বাড়িতেই তিনি চিকিৎসাধীন আছেন। স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে তার চিকিৎসার বিষয়ে সার্বিক খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।
কেশবপুর উপজেলার বড়েঙ্গা গ্রামের এক যুবক (৩০) করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি ঢাকায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। সম্প্রতি তিনি বাড়িতে আসার পর তার করোনা উপসর্গ দেখা দেয়। স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন তার নমুনা সংগ্রহ করে। পরীক্ষার রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলমগীর হোসেন বলেন, করোনা আক্রান্ত যুবককে নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার ইউসুফ আলী বলেন, উপজেলায় নতুন করে আরও ছয়জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন আগে সংক্রমিত শার্শা থানায় কর্মরত এক পুলিশ সদস্যের স্ত্রী (২৯) ও ১৭ মাস বয়সী ছেলে সন্তান। ওই পুলিশ সদস্য করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন তা শনাক্ত হয় গত ২৩ জুন। তারা সরকারি কোয়ার্টারে বসবাস করেন। আক্রান্ত অন্য চারজনের মধ্যে রয়েছেন রঘুনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা ও নারী স্বাস্থ্যসেবী (৩১), বড়আঁচড়া গ্রামের বাসিন্দা ব্যবসায়ী (৪৬), গাতিপাড়ার এক নারী (৪০) ও বেনাপোলের বাসিন্দা একজন পুরুষ শিক্ষক (৫৮)। আক্রান্তরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন আছেন।
সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ও মিডিয়া ফোকাল পার্সন ডাক্তার রেহেনেওয়াজ রনি জানিয়েছেন, গত ১০ মার্চ থেকে ২৭ জুন পর্যন্ত যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ জেলার আটটি উপজেলা থেকে করোনা সংক্রমিত সন্দেহভাজন চার হাজার দু’শ’ ৬৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। নমুনাগুলো পরীক্ষার জন্যে ঢাকার আইইডিসিআর, খুলনা মেডিকেল কলেজ ও যবিপ্রবি’র ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। এরমধ্যে তিন হাজার আটশ’ ৪৫টি নমুনার রিপোর্ট এসেছে।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft