সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
জাতীয়
একাধিক ব্যাংকে খেলাপির তালিকায় সাহেদ
কাগজ ডেস্ক :
Published : Thursday, 16 July, 2020 at 2:57 PM
একাধিক ব্যাংকে খেলাপির তালিকায় সাহেদকরোনা চিকিৎসা নিয়ে প্রতারণার খবর ফাঁস হওয়ার পর রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মো. সাহেদের আরও অনেক অপকর্মের খবর বেরিয়ে আসছে। প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে হাসপাতাল, গাড়ি ও ক্রেডিট কার্ডের বিপরীতে ঋণ নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। কিন্তু টাকা শোধ করার কোনো খবর নেই। ফলে একাধিক ব্যাংকে খেলাপির তালিকায় রয়েছে সাহেদ ও তার মালিকানাধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।
জানা গেছে, সাহেদ প্রথমে ব্যাংকে কিছু টাকা আমানত রাখতেন। কিছুদিন পরই ক্ষমতাসীনদের নাম ভাঙিয়ে ঋণ নিতেন। একবার ঋণ হাতে পেলে আর খবর থাকত না। খেলাপির টাকা চাইলে বিভিন্নভাবে চাপে ফেলতেন ব্যাংকারদের।
ব্যাংকগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০১৪ সালে রিজেন্ট হাসপাতালের নামে এনআরবি ব্যাংক থেকে দুই কোটি টাকা ঋণ নেন সাহেদ। পাশাপাশি সাহেদ করিম নামে ক্রেডিট কার্ড গ্রহণ করেন। এখন ঋণের টাকা ও খেলাপি ক্রেডিট কার্ডের বিল শোধ করছেন না। টাকা আদায়ে ব্যাংকটি দুটি মামলা করেছে। এর মধ্যে একটি সুদসহ তিন কোটি ৫২ লাখ টাকার মামলা। অন্যটি ক্রেডিট কার্ডের চার লাখ ৭৭ হাজার কোটি টাকার।
অন্যদিকে হাসপাতালের যন্ত্রাংশ কেনার নামে পদ্মা ব্যাংকের (সাবেক ফারমার্স ব্যাংক) গুলশান করপোরেট শাখা থেকে ২০১৫ সালে দুই কোটি টাকা ঋণ নেন সাহেদ। কিন্তু সেই টাকা আর পরিশোধ হয়নি। এছাড়া পূবালী ব্যাংক থেকে ১৭ লাখ টাকা নিয়ে গাড়ি কেনেন সাহেদ করিম। এর বিপরীতে পাঁচ লাখ টাকার গ্যারান্টিও দেন তিনি। কয়েকটি কিস্তি শোধ করার পর আর কোনো খবর নেই। সুদে-আসলে তার পাওনা ২০ লাখ টাকা ছাড়িয়েছে।
খোঁজ নিয়ে আরও জানা যায়, রিজেন্ট কেসিএস, রিজেন্ট হাসপাতাল, আলবার্ট গ্লোবাল লিমিটেড, রিজেন্ট আর্কিটেক্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টসহ প্রিমিয়ার ব্যাংকে আটটি হিসাব রয়েছে সাহেদের। এই হিসাবগুলোতে জমা আছে ১৭ লাখ টাকা। এর বিপরীতে বড় অংকের ঋণ প্রস্তাব করা হয়েছিল ব্যাংকটিতে। কিন্তু সেই প্রস্তাব নাকচ করে দেয়া হয়। সাহেদ করিম ব্যাংকটি থেকে ক্রেডিট কার্ড নিয়েছিলেন যার বিপরীতে খেলাপির পরিমাণ ৮০ হাজার টাকা।
এছাড়া ইউসিবি ব্যাংকের দুই লাখ টাকা, ন্যাশনাল ব্যাংকে এক লাখ টাকা, ঢাকা ব্যাংকের ৪৪ হাজার টাকা, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকে ২৪ হাজার টাকা ঋণখেলাপি রয়েছে সাহেদের। পাশাপাশি মার্কেন্টাইল ব্যাংকে এক লাখ টাকার মেয়াদি ঋণ রয়েছে বলে জানা গেছে।



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft