মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
দু’পরিবারে শোকের মাতম
ঝিকরগাছায় কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় নিহত দু’বন্ধুর দাফন সম্পন্ন
কাগজ সংবাদ
Published : Thursday, 13 August, 2020 at 12:45 AM
ঝিকরগাছায় কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায়
নিহত দু’বন্ধুর দাফন সম্পন্নযশোরে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় নিহত দু’ কলেজ ছাত্র কাজী মুশফিক মাহামুদ প্রিয় ও শ্যামল কাব্য দাস। বুধবার দুপুরে জানাটা শেষে কাজী মুশফিককে কারবালা কবরস্থানে দাফন করা হয়। একইদিন দুপুর একটায় শ্যামল কাব্য দাসকে শায়িত করা হয় মিশনপাড়া কবরস্থানে। এ ঘটনায় দু’ পরিবারে চলছে শোকের মাতম।
মঙ্গলবার বিকেলে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের ঝিকরগাছার বেনেয়ালী গির্জার সামনে বেপরোয়া কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় নিহত হন দু’ বন্ধু। কাজী মুশফিক যশোর শহরের সার্কিট হাউজপাড়ার মাহমুদুল হাসানের ছেলে ও মাগুরা সরকারি কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র। শ্যামল কাব্য দাসের বাড়ি শহরের মিশনপাড়ায়। তিনি উদীচী যশোরের সহসভাপতি দিলীপ দাসের ছেলে। কাব্য ঢাকা কমার্স কলেজে প্রথম বর্ষে অধ্যয়নরত ছিলেন। শ্যামল কাব্যের ২০ তম জন্মবার্ষিকীতে মঙ্গলবার মোটরসাইকেলযোগে বেনাপোলে ঘুরতে যাচ্ছিলেন তারা দু’ বন্ধু। তাদের সাথে আরেকটি মোটরসাইকেলে আরও দু’ বন্ধুও ছিলেন। পথিমধ্যে বেনেয়ালী গির্জার সামনে পৌঁছালে কাভার্ডভ্যান চাপা দেয় দু’ বন্ধুকে। ঘটনাস্থলেই নিহত হন তারা।
তাদের সাথে থাকা অপর দু’ বন্ধু আব্দুল্লাহ আল আমান ও সাম্ভি খান সঞ্জু জানান, শ্যামল কাব্যের জন্মদিনে তারা ঘুরতে বেরিয়েছিলেন। পথে বেনেয়ালী গির্জার সামনে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় শ্যামল ও মুশফিক ছিটকে পড়েন। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়দের সহযোগিতায় ঝিকরগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।  
আনন্দের দিনে এভাবে পৃথিবীতে থেকে চিরতরে চলে যাওয়াকে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছে না শ্যামল কাব্যের পরিবার ও তার বন্ধুরা। ২১ বছরে পা দেওয়া শ্যামল কাব্যের পরিবারে শোক বিরাজ করছে। তার ছোট ভাই কল্প দাস বলেন, ‘করোনার কারণে ভাইয়ের জন্মদিন ঘরোয়াভাবে উদযাপনের কথা ছিল। বাসায় সব ধরনের প্রস্তুতি চলছিল। এরমধ্যে দুপুরে বন্ধুদের সাথে বেনাপোলে ঘুরতে যাওয়ার বায়না ধরেন কাব্য। দ্রুত বাড়ি ফেরার কথা বলে বাইরে বের হন তিনি। ভাই বাড়ি ফিরলেন ঠিকই, কিন্তু লাশ হয়ে।’ একইভাবে কাজী মুশফিকের মারা যাওয়ার শোকে বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন তার পিতা-মাতা। দু’বন্ধুর একসাথে চলে যাওয়াকে মেনে নিতে পারছেন না তাদের সহপাঠীরা।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft