বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল
যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়ন
নির্বাচন না হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন শ’শ’ সদস্য
উজ্জ্বল বিশ্বাস
Published : Thursday, 24 September, 2020 at 11:43 PM
নির্বাচন না হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত
হচ্ছেন শ’শ’ সদস্য যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন দীর্ঘদিন ধরে না হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সদস্যরা। বিপদে পড়ে সদস্যরা এখন কোনো সহযোগিতা পাচ্ছে না ইউনিয়ন থেকে। একইভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন যারা বিভিন্ন পদে প্রার্থী হয়েছেন। এমন বক্তব্য সদস্য ও নেতাদের। করোনা প্রকট আকার ধারণ করায় নির্বাচনের আগের দিন তা স্থগিত করা হয়। এরপর থেকে নির্বাচনে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার ও তারিখ নির্ধারণ করতে পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন। সর্বশেষ, ১৫ সেপ্টেম্বর সংগঠনের নেতারা জেলা প্রশাসকের সাথে বৈঠক করেন। বৈঠকে তারা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার ও নতুন দিন নির্ধারণের পাশাপাশি এবছরই নির্বাচন না হলে অর্ধ কোটি টাকার ক্ষতি হবে বলে জানান। পাশাপাশি অনেক প্রার্থী বলেছেন নির্বাচন না হলে কেবল প্রার্থী না, সাধারণ শ্রমিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। কারণ তারা অনেক ধরনের সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলে দাবি তাদের।
এ বছরের ২৭ মার্চ যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নির্র্বাচনের দিন ধার্য্য ছিল। এ উপলক্ষে দীর্ঘ তিন মাস ধরে প্রচার-প্রচারণা করেন বিভিন্ন পদের প্রার্থীরা। সর্বশেষ, করোনা প্রকট আকার ধারণ করায় বন্ধ হয়ে যায় এ নির্বাচন। নির্বাচনে ৬৩জন প্রার্থী নয় হাজার একশ’ ৪৪ জন ভোটারের কাছে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করেন। মাত্র ২২ ঘণ্টা আগে নির্বাচন বন্ধ ঘোষণা করে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি। যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ আবুল লাইছ স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে নির্বাচন স্থগিতের ঘোষণা দেন কমিটির সদস্য সচিব মাহবুবুর রহমান মজনু।
এর দু’দিন পরই ২৭ মার্চ নির্বাচনের দাবিতে স্মারকলিপি দেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। কিন্তু তাতে কোনো কাজ হয়নি বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন নেতৃবৃন্দ।
গত ১৫ সেপ্টেম্বর সংগঠনের নেতারা এক বৈঠকে জেলা প্রশাসকের কাছে উল্লেখ করেন, যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়ন সাংবিধানিকভাবে অনেক আগে থেকেই সংকটে রয়েছে। দ্রুত নির্বাচন না হলে এ সমস্যা আরও প্রকট হবে বলে দাবি করেন তারা।
নির্বাচন না হওয়ার জন্যে প্রার্থীদের চেয়ে সাধারণ শ্রমিকরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। কারণ তারা অনেক ধরনের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলে দাবি তাদের। সংগঠনের সকল কার্যক্রম যদি স্বাভাবিক থাকতো তাহলে কোনো সমস্যা হতো না। বিশেষ করে যারা মৃত্যু দাবির অর্থ এবং বিভিন্নভাবে দুর্ঘটনার জন্যে চিকিৎসাভাতা পান ওইসব পরিবারগুলো চরম বিপদে রয়েছে ।
নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রার্থী বলেন, ৬৩জন প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণায় ব্যয়, ব্যালট পেপার, নির্বাচন পরিচালনা কমিটি, প্রচার-প্রচারণাসহ অন্যান্য খরচ মিলে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। এ বছরের মধ্যে নির্বাচন না হলে প্রায় ১০ হাজার ব্যালট পেপার নষ্ট হয়ে যাবে। কারণ সকল ব্যালট পেপারের প্রতিটি কপিতে ২০২০ সাল লেখা রয়েছে। এই ব্যালটপেপার ২০২১ সালে ব্যবহার করা যাবে না।  
নির্বাচনের বিষয়ে যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোর্ত্তজা হোসেন বলেন, ১৫ সেপ্টেম্বর দু’ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের সাথে তাদের বৈঠক হয়েছে। এ সময় জেলা প্রশাসককে তারা জানিয়েছেন সদর উপজেলার উপনির্বাচন ২০ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। নির্ধারিত সময়ে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার পরপরই জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনের ব্যবস্থা যাতে করেন।
সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী সেলিম রেজা মিঠু বলেন, প্রার্থীদের ক্ষতির কথা অনেকেই চিন্তা করেন না, কারণ অনেক প্রার্থীই এখন প্রতিষ্ঠিত। তাদের এ নির্বাচন আরও দেরিতে হলে কোনো এসে যায় না। কিন্তু সাধারণ শ্রমিকরা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বলে মন্তব্য করেন তিনি। এ কারণে অতিদ্রুত নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানান এই প্রার্থী।
সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন-অর-রশিদ ফুলু বলেন,তারা অনেকবার প্রশাসনের সাথে বসেছেন। বোঝানোর চেষ্টা করেছেন সংগঠনের ব্যাপক ক্ষতির কথা। কিন্তু মহামারি করোনার কারণে নির্বাচন ঝুলে আছে। আগামী মাসে নির্বাচন দেওয়া যায় কি না এ ব্যাপারে প্রশাসন কাজ করছে বলে জানান তিনি।




আরও খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft