শিরোনাম: বিএনপি পাকিস্তানের আদর্শ বাস্তবায়নে এখনও চক্রান্তে লিপ্ত : হানিফ       ঢাকা শহরকে হংকং-সিঙ্গাপুর বানানো হবে : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী       পাকিস্তানের যে ৫ অস্ত্রে ভারতের ভয়       কাশ্মীরিদের পাশে মমতা       ভারতের ৫ রাজ্যে নিজস্ব পতাকা প্রদর্শন!       খালেদা জিয়ার জন্ম তারিখ ঠিক করার পরামর্শ তথ্যমন্ত্রীর       ইরানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ হলে গোটা মধ্যপ্রাচ্যে আগুন জ্বলবে : হিজবুল্লাহ       আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা হলেন আতাউর রহমান       কাশ্মীর সঙ্কট নিয়ে ট্রাম্পকে যা বললেন ইমরান       চামড়া নিয়ে ব্যবসায়ীদের ‘দুরভিসন্ধি’ দেখছেন রাঙ্গা      
পরিবেশ রক্ষার দিকে নজর দেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
কাগজ ডেস্ক :
Published : Thursday, 20 June, 2019 at 6:27 PM
পরিবেশ রক্ষার দিকে নজর দেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীরপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সভ্যতার বিকাশের পাশাপাশি পরিবেশ রক্ষার দিকেও নজর দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।
তিনি বলেছেন, প্রত্যেকেই নিজের কর্মস্থল ও বাসস্থানে গাছ লাগাবেন। বনজ, ফলজ, ভেষজ গাছ লাগাবেন। ছেলে-মেয়েদেরও বৃক্ষরোপণ শেখাতে হবে। শুধু গাছ লাগালেই হবে না, পরিচর্যাও করতে হবে। প্রত্যেকে নিজের এলাকায় যতো ইচ্ছে গাছ লাগাবেন। এতে কয়েকবছর পর টাকাও পাওয়া যায়, বছর বছর ফল পেলেও খুশি লাগে।
বৃহস্পতিবার (২০ জুন) সকালে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।
শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকার দেশের মোট ভূমির ৩০ ভাগ বনায়ন করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। সুন্দর রক্ষায় নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধিতেও পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।
এসময় পরিবেশ দূষণে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন, আমরা নিজেরা আর ক’দিন থাকবো। কিন্তু আমাদের বংশধররা যেন সুন্দরভাবে বাঁচতে পারে, টিকে থাকতে পারে, সেজন্য শতবর্ষব্যাপী ডেল্টা প্ল্যান নিয়ে কাজ করছি।
সরকার প্রধান সুন্দরবন রক্ষণাবেক্ষণে সরকারের কর্মসূচির কথা তুলে ধরেন। বলেন, সুন্দরবন পৃথিবীর সবচেয়ে বৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন। এই বন রক্ষণাবেক্ষণে ব্যাপক কর্মসূচি নিয়েছি। সুন্দরবনের পরিবেশ রক্ষায় রয়েল বেঙ্গল টাইগারের বড় ভূমিকা রয়েছে। কারণ বনে বেশি বাঘ থাকলে অনেকে ভেতরে গিয়ে বনের ক্ষতিকর কিছু করার সাহস পায় না।
শেখ হাসিনা বলেন, সুন্দরবনকে রক্ষায় নদীর লবণাক্ততা দূর করতে হবে। লবণাক্ততা দূর হলে হোগলা বন বেড়ে যায়। আর হোগলা বনে বাঘের বিচরণ বেড়ে যায়। নদীর নাব্যতা বাড়ানোরও কাজ করা হচ্ছে।
বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ার কারণে পাহাড়ি বনাঞ্চল আজ ধ্বংসের পথে।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft