শিরোনাম: বিএনপি-জামায়াত ভাসানীকে ব্যবহার করতে চেয়েছিল : মেনন       বর্তমান সরকার শিল্পবান্ধব : শিল্পমন্ত্রী       ‘ক্লিনিকগুলোতে সার্বক্ষণিক প্রসব সেবা চালু করা হবে’       নতুন আইনের উদ্দেশ্য সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো       মতপার্থক্য চরমে: রাজ্যসভায় বিজেপির বিরোধী শিবসেনা       বাবরি মসজিদ : রায় বাতিল চেয়ে রিভিউ করবে মুসলিম ল বোর্ড       পেঁয়াজের মৌসুমে আমদানি বন্ধের চিন্তা       পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছে সরকারের মদদপুষ্ট ব্যবসায়ীরা : ফখরুল       ‘বিএনপি পেঁয়াজে আশ্রয় নিয়েছে’        গোটাবায়া রাজাপাকসের জয়      
গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড
জয়পুরহাট সংবাদদাতা :
Published : Tuesday, 22 October, 2019 at 8:39 PM
গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় ৭ জনের মৃত্যুদণ্ডজয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার দেওড়া আশ্রয়ণ কেন্দ্রে গৃহবধূ আরতি রাণীকে ধর্ষণের পর হত্যা করায় সাত আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে দুজনের পাঁচ লক্ষ এবং পাঁচজনের এক লক্ষ টাকা করে জরিমানা করা হয়।
মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক ড.এ.বি.এম মাহমুদুল হক এই রায় দেন।
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- আক্কেলপুর উপজেলার মারমাপূর্ব পাড়া গ্রামের খয়বর আলীর ছেলে সোহেল তালুকদার, সোনা পাড়া গ্রামের মৃত রইচ উদ্দিনের ছেলে আফজাল হোসেন, দেওড়া গ্রচ্ছগ্রামের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে রাহিন, সাখিদার পাড়ার মৃত এবাদত আলী সাখিদারের ছেলে ফেরদৌস আলী সাখিদার, সোনা পাড়া গ্রামের ভোলা সোনারের ছেলে মজিবর সোনার, জগতি গ্রামের আব্দুর রশীদের ছেলে রুহুল আমিন ও দেওড়া গ্রচ্ছগ্রামের মৃত ইছাহাকের ছেলে আজিজার রহমান।  
আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর রাতে দেওড়া আশ্রয়ণ কেন্দ্রের উজ্জ্বল মহন্তের স্ত্রী আরতী রাণীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে আসামিরা গণধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরতী রাণী মারা যায়। এ ঘটনায় ১০ সেপ্টেম্বর আরতী রাণীর স্বামী উজ্জ্বল মহন্ত বাদী হয়ে দণ্ডপ্রাপ্ত সাতজনকে আসামি করে আক্কেলপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলায় দীর্ঘ শুনানির পর জয়পুরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক সকল আসামির মৃত্যুদণ্ডের আদেশ প্রদান করেন। একই সাঙ্গে আসামি সোহেল ও ফেরদৌসের ৫ লাখ টাকা জরিমানা ও অন্য সকলের ১ লাখ টাকা করে জরিমানারও আদেশ দেন।
সরকার পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের পিপি আইনজীবী ফিরোজা চৌধুরী এবং বাদী পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোস্তাফিজুর রহমান ও রফিকুল ইসলামসহ পাঁচজন।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft