শিরোনাম: একটি মহল ক্ষমতায় আসতে না পেরে গুজব ছড়াচ্ছে : পরিকল্পনামন্ত্রী       ধান কেনার ক্ষেত্রে দরিদ্র কৃষকদের বেছে নেয়া হবে : কৃষিমন্ত্রী       মানবিক মূল্যবোধই ইসলামের মূল ভিত্তি : পুতিন       ‘শিগগির ১৮ হাজার শিক্ষক নিয়োগ’       শিবসেনার নেতৃত্ব মানতে রাজি কংগ্রেস-এনসিপি        ৪৫ টাকায় টিসিবির পেঁয়াজ বিক্রি জোরদার       সৌদি আরবে সেনা মোতায়েন ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রকে রাশিয়ার হুঁশিয়ারি       সরকারের পতন ছাড়া দেশে শান্তি আসবে না : সালাম       বিশ্বের নতুন দেশ হতে যাচ্ছে বুগেনভিলে?       কংগ্রেসের বিধায়ককে পুলিশের মারধর      
বাঘারপাড়ায় মাধ্যমিক স্কুলগুলোতে মিড ডে মিল চালু
চন্ডিপুর ও জহুরপুর স্কুলে শিক্ষার্থীরা টিফিনে মায়ের হাতের খাবার ভাগ করে খাচ্ছে
ফরিদুজ্জামান, খাজুরা (যশোর) থেকে :
Published : Friday, 8 November, 2019 at 6:06 AM
চন্ডিপুর ও জহুরপুর স্কুলে শিক্ষার্থীরা টিফিনে মায়ের হাতের খাবার ভাগ করে খাচ্ছেদেশের প্রাথমিক স্কুলগুলোতে শিক্ষার্থীদের টিফিনে মিড ডে মিল চালু বর্তমান সরকারের এক যুগান্তকারী পদক্ষেপ। যে কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছেন। প্রাথমিকের পাশাপাশি মাধ্যমিকেও এ কার্যক্রম চালুর নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। আগ্রহী প্রতিষ্ঠানগুলোর তালিকা প্রস্তুত করতে বলা হয়েছে। ইতিমধ্যে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলায় তালিকা প্রস্তুতির কাজ শুরু হয়েছে। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস জানায়, নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলার ৮২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৬০টি স্কুলে মিড ডে মিল চালু করা সম্ভব হয়েছে। বাকি স্কুলগুলে চলতি মাসেই এ কার্যক্রম শুরু হবে।
সরেজমিনে উপজেলার অন্যতম দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি শ্রেণী কক্ষে শিক্ষার্থীরা টিফিনে যার যার সামর্থ অনুযায়ী মায়ের হাতে রান্না করে আনা খাবার খাচ্ছে। তাদের সাথে বসে একসাথে খাবার খাচ্ছেন শিক্ষকরাও। আর যে সব শিক্ষার্থী খাবার নিয়ে আসেনি অন্যরা তাদের সাথে নিয়ে খাবার ভাগাভাগি করে খাচ্ছে। গত ১ মাস যাবৎ চন্ডিপুর ও জহুরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহ¯্রাধিক শিক্ষার্থী প্রতিদিন টিফিনে এভাবেই মিলেমিশে খাবার খাচ্ছে। এ যেন দিন বদলের এক অন্যরকম চিত্র। শুধু এ দু’টি স্কুল নয়, এমন চিত্র উপজেলার প্রায় ৬০টি স্কুলের প্রতিটি শ্রেণী কক্ষে।
শিক্ষার্থীরা জানায়, মিড ডে মিল তাদের উৎসবে পরিণত হয়েছে। একসাথে মিলেমিশে টিফিনে খাবার খাওয়ার মাঝে রয়েছে অন্যরকম আনন্দ। এতে অংশগ্রহণ করতে এখন আর কেউ স্কুলে অনুপস্থিত থাকে না। টিফিনের সময় বিদ্যালয় থেকে কেউ পালিয়েও যায় না। ফুটপাতের খাবার না খেয়ে তারা সবাই প্রতিদিন বাড়ি থেকে মায়ের হাতের সুস্বাদু খাবার নিয়ে আসে।
চন্ডিপুর স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক জানান, টিফিনের খাবারের মাধ্যমেই শিক্ষার্থীর একে অন্যের সাথে সহযোগিতার মনোভাব ও সহনশীলতা সৃষ্ঠি হয়েছে। পাশাপাশি পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা, উপস্থিতির হার, মনোযোগসহ লেখাপড়ার সার্বিক পরিবেশ বৃদ্ধি পেয়েছে।
জহুরপুর স্কুলের প্রধান শিক্ষক তাপস কুমার কুমার জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের বিদ্যালয় থেকে পালানোর প্রবণতা কমেছে। তারা আগে টিফিনে ফুটপাতের অস্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে অসুস্থ হতো। বর্তমানে মায়ের হাতে রান্না করা খাবার খাচ্ছে। আগামী দিনের সুস্থ জাতি গঠনে মিড ডে মিলের কোন বিকল্প নেই।
বাঘারপাড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ তেজারত জানান, বর্তমানে উপজেলার ৮২টি স্কুলের ৬০টিতে মিড ডে মিল চালু হয়েছে। আশা করছি চলতি মাসেই বাকি স্কুলগুলো এ কার্যক্রমে যুক্ত হবে। মিড ডে মিল সরকারের সুস্থ জাতি গঠন ও শিক্ষার মান উন্নয়নে কার্যকরি ভূমিকা রাখবে।




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft