শিরোনাম: রাজনীতিকে নষ্ট করেছিল বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী       চৌগাছায় কৃষকদলের উদ্যোগে চাষিদের মাঝে বীজ বিতরণ       আত্রাইয়ে নাগর নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ভেসে গেল ১৫টি পরিবার : লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি       কেশবপুরে ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল        রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি আর্তমানবতার সেবায় কাজ করছে : সিটি মেয়র       ঝিনাইদহের গোবিন্দপুর গ্রামে প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে শীতকালীন সবজী বীজ বিতরন       লালপুরে ভেজাল গুড় কারখানায় অভিযান ব্যবসায়ীর জেল জরিমানা       উৎসর্গ ফাউন্ডেশন পাবনা সদর উপজেলা শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন ও পরিচিতি অনুষ্ঠান       চৌগাছায় ইজিবাইকের ধাক্কায় প্রাণ গেল শিশু তাহসিনের       ‘মিন্নির প্রতি অবিচার করা হয়েছে’      
ভৈরব নদ দখলে চলছে প্রতিযোগিতা : পরিবর্তন হচ্ছে নদের বাঁক
তারিম আহমেদ, নওয়াপাড়া (যশোর) থেকে :
Published : Friday, 14 August, 2020 at 11:15 AM
ভৈরব নদ দখলে চলছে প্রতিযোগিতা : পরিবর্তন হচ্ছে নদের বাঁকযশোরের শিল্প-বাণিজ্য ও বন্দর নগরী নওয়াপাড়ার প্রাণ ভৈরব নদকে ধ্বংস করতে আবারও মরিয়া হয়ে উঠেছে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী দখলবাজরা। কোনভাবেই ভৈরব নদকে দখলবাজদের হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছেনা। এবার নদের মাঝ বরাবর পর্যন্ত দখলে নেয়ার পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে অনেকেই।
ফলে নদের নাব্যতা হ্রাস পেয়ে নদের তলদেশ ভরাট হয়ে যাচ্ছে। যেটা সামাল দিতে সরকারকে শত কোটি টাকা গচ্চা দিয়ে নদী ড্রেজিং অব্যাহত রাখতে হচ্ছে। তবে নদ খেঁকোরা নদের বুকে এমনভাবে থাবা বসাচ্ছে যার কারণে সরকারের ড্রেজিং ব্যবস্থার সুফলও সম্পূর্ণরূপে ভেস্তে যেতে বসেছে। আর এসব কিছু দেখেও কোন ধরণের মাথা ব্যাথা নেই নদী বন্দর কর্তৃপক্ষের।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইতোপূর্বে যে সমস্ত ঘাটে বাঁশের জেটি বানিয়ে মালামাল উঠানামা করা হতো সে সকল ঘাটে বিভিন্ন ধরণের গাছের বল্লি পাইলিং করে নদের প্রায় ২০ থেকে ২৫ ফুট দখল করে ইট-পাথরের খোঁয়া দিয়ে ভরাট করা হয়েছে এবং এই ভরাটকৃত জেটির ওপর লং-বুম নামক স্কেভেটর স্থাপন করে কার্গো থেকে বিশেষ করে চাল, গম, সার, কয়লা, পাথর ও সিলেট বালি নামানো হচ্ছে।
লং-বুম বসানোর জন্য প্রায় প্রতিটি ঘাটে নদের মধ্যে এই ধরনের জেটি নির্মাণ করার ফলে ভৈরব নদের জোঁয়ার-ভাটা মারাত্মকভাবে বিঘœ ঘটছে। যার জন্য পলিমাটি জমে নদটি পুনরায় ভরাট হয়ে যাচ্ছে।
নওয়াপাড়া বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে  জানান, নওয়াপাড়া নদী বন্দর এলাকায় পরিকল্পিতভাবে ড্রেজিং করার পরও নদটি দ্রুত পুনঃভরাট হয়ে যাচ্ছে। এর প্রধান কারণ হিসেবে  বলেন, নওয়াপাড়া নদী বন্দরের চেঙ্গুটিয়া লবন মিল ঘাট, মহাকালের দিপু স্টোন ঘাট, নূর সিমেন্ট ঘাট, মাস্টার ঘাট, মালোপাড়া ঘাট, মশরহাটির পরশ আটা-সুজি-ময়দা মিলের ঘাট, সিডল টেক্সটাইল মিল ঘাটের ওপর নির্মিত ডলার ঘাট ও নওয়াপাড়ার বোয়ালমারী পোলের নিকটস্থ এলাকায় স্থাপিত জয়েন্ট ট্রেডিংয়ের ঘাটে ভৈরব নদ দখলে চলছে প্রতিযোগিতা : পরিবর্তন হচ্ছে নদের বাঁকঅবৈধভাবে নদের মধ্যভাগের দিকে ২০ থেকে ২৫ফুট প্যালাসাইডিং তৈরি করে বালির বস্তা, ইটের আঁধলা, পাথরসহ অন্যান্য সামগ্রী দিয়ে জেটি নির্মাণ করে নদের ¯্রােতকে মারাত্মকভাবে বাঁধাগ্রস্থ করে রেখেছে। তাছাড়া ব্যবসায়ীরা আরও জানান, অবৈধভাবে নদ দখলের কারণে নদের বাঁক পরিবর্তন হয়ে নদের স্বাভাবিক গতিকে বাঁধাগ্রস্থ করে নাব্যতাকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে চলেছে। অতি দ্রুততার সাথে নদ দখল রোধ করতে না পারলে অদূর ভবিষ্যতে নদটি খালে পরিণত হওয়ার আশংকা রয়েছে।
নওয়াপাড়া হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম সর্দার বলেন, ভৈরব নদের ঘাটগুলোতে অটোমেটিক ক্রেন বসালে তাতে নদের কোন ক্ষতি হবেনা বলে তিনি দাবি করেন। তবে অবৈধভাবে নদ দখল করে জেটি নির্মাণ করার ফলে ভৈরব নদের নাব্যতা দিনেদিনে ধ্বংস হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। তাছাড়া ভৈরব নদ না বাঁচলে এ বন্দরে খেটে খাওয়া প্রায় দশ হাজার ঘাট শ্রমিকের সাথে জড়িত প্রায় অর্ধলাখ মানুষ বেকার হয়ে পড়বে। যে কারণে অতি দ্রুত নদে গড়ে ওঠা অবৈধ জেটিগুলো অপসারণ করে নদটিকে বাঁচানোর জন্য বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানানও তিনি।
বিষয়টি সম্পর্কে নওয়াপাড়া নদী বন্দরের সহকারী পরিচালক মো. মাসুদ পারভেজ জানান, ভৈরব নদের মধ্যে গড়ে ওঠা জেটি নির্মাণ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে করা হলেও নিয়মনীতি মেনে তা সঠিকভাবে নির্মাণ করা হয়নি। বিষয়টি কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। যার প্রেক্ষিতে আগামী একমাসের মধ্যে ভৈরবনদে গড়ে ওঠা এসব অবৈধ স্থাপনাসমূহ অপসারণ করা হবে।





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও খবর
সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft