রবিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১
অর্থকড়ি
মাগুরায় রমজানে ফলেছে ৫ কোটি টাকার নালিম ফল
মাগুরা প্রতিনিধি :
Published : Tuesday, 21 May, 2019 at 6:33 AM
মাগুরায় রমজানে ফলেছে ৫ কোটি টাকার নালিম ফল সাথি ফসল নালিম চাষে বেশ লাভবান হচ্ছেন মাগুরার কৃষকরা। পেঁপে, পেয়ারা, লিচু ও আম বাগানের মধ্যে কৃষকরা সাথি ফসল হিসাবে নালিমের চাষ করছেন। নালিম চাষ অধিক লাভজনক ও ফলন বেশি হওয়ায় মাগুরার কৃষকরা দিনকে দিন এ চাষে আগ্রহী হচ্ছেন। প্রতি বছর রমজান মাসকে টার্গেট করে নালিম চাষ করছেন কৃষকরা। এবার রমজানে নালিমের বাম্পার ফলন হয়েছে জেলায়। মোট আবাদকৃত ১৫০ হেক্টর জমিতে ৫ কোটি টাকার নালিম ফলবে বলে আশা করছেন কৃষক।
মাগুরা সদর উপজেলার শিবরামপুর, হাজরাপুর, নড়িহাটি, হাজিপুর, মির্জাপুর, মিঠাপুরসহ আশপাশের অনেক গ্রামের কৃষক এবারো বিপুল পরিমান জমিতে নালিম চাষ করেছেন। কৃষকরা জানান, এ চাষে সার কীটনাশক তেমন লাগে না বললেই চলে। এটি বাঙ্গি জাতীয় ফল। প্রতি হেক্টরে ৩০ থেকে ৪০ হাজার নালিম উৎপন্ন হয়। পাইকারি হিসাবে হেক্টর প্রতি যা প্রায় ৩ লাখ থেকে ৪ লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে। খুচরা প্রতি পিস বিক্রি হয় ১৫ থেকে ২০ টাকা। তবে এখানকার চাষিরা বেশিরভাগ জমির নালিম পাইকারি দরে বিক্রি করে থাকেন। পাইকাররা রমজানের আগে থেকেই মাঠে এসে পাইকারি দরে নালিম ক্ষেত কিনে রেখে যান। এটি দেখতে বাঙ্গি জাতীয় ফলের মতই। তবে আকারে ছোট ও গোলাকার। অন্যদিকে স্বাদে এটি বাঙ্গির অনুরূপ।
মাগুরা সদর উপজেলার নড়িহাটি গ্রামের কৃষক সাকেন বিশ্বাস জানান, এ বছর ২ হেক্টর জমিতে নালিম চাষ করেছেন। মোট জমির মধ্যে দেড় হেক্টর ইজারাকৃত। বাকি আধা হেক্টর তার নিজের। গোটা জমিতে তার খরচ হয়েছে প্রায় ৩ লাখ টাকা। বিক্রি হবে ৫ থেকে ৬ লাখ টাকায়। নালিম ফল বিশেষ করে মাঘ মাসে মাটিতে বীজ বপন করতে হয়। প্রায় ৩ মাসের স্বল্প জীবনকালীন সময়ে কৃষকরা এটি বিক্রির মাধ্যমে নগদ অর্থ ঘরে তুলতে পারেন। সাকেন বিশ্বাস বলেন, আমি প্রতিবছরই নালিম চাষ করে থাকি। অন্য ফসলের চেয়ে এটি চাষে লাভ যেমন বেশি তেমনি খরচ কম। রমজান মাসে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় নালিমের চাহিদা রয়েছে ব্যাপক। ব্যাপারীরা জমি থেকেই নালিম ফল পাইকারী দরে কিনে নিয়ে যান। প্রতি ট্রাকে ১০ থেকে ১২ হাজার নালিম ধরে। যা পাইকারি ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়।
একই উপজেলার শিবরামপুর গ্রামের অপর নালিম চাষি শেখ দিদার জানান, এ বছর তিনি ১ হেক্টর জমিতে নালিম চাষ করেছেন। যা ব্যাপারীদের কাছে ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করে দিয়েছেন। তিনি জানান, নালিম চাষ খুব লাভজনক। যা পেঁপে, লিচু, আম, পেয়ারার ক্ষেতে অনেকেই সাথি ফসল হিসেবে চাষ করছেন। অল্প সময়ের মধ্যে এ চাষে অধিক টাকা ঘরে তোলা সম্ভব। যে কারণে কৃষকরা নালিম চাষে আগ্রহী হচ্ছেন।
নালিমের ব্যাপারী আবু সুফিয়ান জানান, তিনি সদর উপজেলায় নড়িহাটি গ্রামে ছোট আকারের ১০টি নালিম ক্ষেত কিনেছেন ৩ লাখ টাকায়। ভালো ফলন হওয়ায় ১০ টি ক্ষেত থেকে এবার তিনি লক্ষাধিক টাকা লাভ করার আশা করছেন।
মাগুরা সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা নুসরাত কবির জানান, সদর উপজেলার হাজিপুর ও হাজরাপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে এবার ১১৪ হেক্টর জমিতে নালিমের চাষ হয়েছে। এছাড়া অন্যান্য এলাকায় আরো ৪০ থেকে ৫০ হেক্টর জমিতে নালিমের চাষ হয়েছে। রমজানে এটি স্থানীয় কৃষকদের কাছে অন্যতম অর্থকরি ফসল। এটির মাধ্যমে তারা আর্থিকভাবে ব্যাপক লাভবান হচ্ছেন। যে কারনে এটির কদর বাড়ছে। ব্যাপক পুস্টি গুন থাকায় সারা দেশে এটির চাহিদা রয়েছে।  



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
 আমাদের পথচলা   |    কাগজ পরিবার   |    প্রতিনিধিদের তথ্য   |    অন লাইন প্রতিনিধিদের তথ্য   |    স্মৃতির এ্যালবাম 
সম্পাদক ও প্রকাশক : মবিনুল ইসলাম মবিন
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আঞ্জুমানারা
পোস্ট অফিসপাড়া, যশোর, বাংলাদেশ।
ফোনঃ ০৪২১ ৬৬৬৪৪, ৬১৮৫৫, ৬২১৪১ বিজ্ঞাপন : ০৪২১ ৬২১৪২ ফ্যাক্স : ০৪২১ ৬৫৫১১, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
Design and Developed by i2soft